বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু : ইজতেমাতে জুমায় লাখো মুসল্লি

স্টাফ রিপোর্টার: ধর্মপ্রাণ লাখো মুসল্লির এবাদত বন্দেগীতে এখন মুখর টঙ্গীর তুরাগ তীর। গতকাল শুক্রবার বাদ ফজর তাবলিগ জামাতের শীর্ষস্থানীয় মুরব্বী পাকিস্তানের মাওলানা আব্দুর রহমানের আম বয়ানের মধ্য দিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে বিশ্ব মুসলিম জাহানের দ্বিতীয় বৃহত্তম মহাসমাবেশ ৫১তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। আগামী রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্যদিয়ে শেষ হবে এবারের বিশ্ব ইজতেমা। এবারের ইজতেমার দ্বিতীয় পর্বে রয়েছে চুয়াডাঙ্গা ও ঝিনাইদহসহ ১৬টি জেলা।
গতকাল ইজতেমার প্রথম দিনে জুমার নামাজকে ঘিরে সকাল থেকেই তুরাগ তীরে মুসল্লিদের ঢল নামে। বিশাল জামাতে জুমার নামাজ আদায় করার জন্য টুপি, পাঞ্জাবী পরে জায়নামাজ হাতে রাজধানী ঢাকাসহ আশপাশের জেলা এমনকি দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসেন নানা বয়সি মানুষ। দীর্ঘ পথ পায়ে হেঁটে এসেছেন অনেকে। তিল ধারণের ঠাঁই ছিলো না প্রায় ১৬০ একর জমিতে তৈরি করা বিশাল ছাউনির নীচে। জুমার নামাজ শুরুর আগে পুরো ইজতেমাস্থল কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে জনসমুদ্রে পরিণত হয়। বহু মুসল্লিকে জায়গা না পেয়ে রাস্তায় খবরের কাগজ, পলিথিন বিছিয়ে নামাজ আদায় করতে দেখা যায়। জুম্মার নামাজে ইমামতি করেন ঢাকার কাকরাইল জামে মসজিদের পেশ ইমাম মাওলানা যোবায়ের আহম্মেদ।
এদিকে গতকাল জুমার নামাজ আদায় করতে রাজধানী ও এর আশপাশ থেকে আসা মুসল্লিদের ভোগান্তিতে পড়তে হয়। প্রতিবার ইজতেমায় জুম্মার নামাজের জন্য দুই ঘণ্টা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক বন্ধ করে রাখা হয়। যাতে করে মুসল্লিরা মহাসড়কে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করতে পারেন। কিন্তু গতকাল সড়ক আগে থেকে বন্ধ না করায় নামাজের সময় পরিবহনের জট লেগে থাকায় জুমার নামাজে আসা মুসল্লিদের এলাকার অলিগলিতে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করতে হয়। আনুমানিক ৫ লক্ষাধিক মুসল্লি জুমার নামাজ আদায় করেন বলে ইজতেমা সংশ্লিষ্ট সূত্রের ধারণা। এছাড়া লাখো মুসল্লির সাথে বৃহত্তম জুমার নামাজে অংশ নেন ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়া, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক, গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ প্রমুখ। গতকাল ইজতেমার প্রথম দিনে বাদ ফজর হতে মাগরিব পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে দেশ-বিদেশের শীর্ষস্থানীয় আলেমগণ ইমান, আমল ও দাওয়াতের মেহনত সম্পর্কে অত্যন্ত ফজিলতপূর্ণ বয়ান করেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *