বিচার বিভাগকে বিক্ষুব্ধ করবেন না : প্রধান বিচারপতি

আইন না জেনে আইন মন্ত্রণালয় আইনের ভুল ব্যাখ্যা দিচ্ছে : আপিল বিভাগ

স্টাফ রিপোর্টার: আইন না জেনে আইন মন্ত্রণালয় আইনের ভুল ব্যাখ্যা দিচ্ছে বলে মন্তব্য করে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা বলেছেন, এমন কিছু করা নির্বাহী বিভাগের উচিত হবে না, যাতে বিচার বিভাগ বিক্ষুব্ধ হয়।
বিচারকদের চাকরিবিধির গেজেট প্রকাশ নিয়ে সোমবার আপিল বিভাগের শুনানিতে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ ছাড়া প্রেষণে থাকা বিচারকের বিদেশযাত্রা প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতির এ বক্তব্য আসে।

অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমকে তিনি বলেন, আপনারা যদি আইন না জানেন, তাহলে আমাদের কাছে ব্যাখ্যা চাইবেন। সংবিধান অনুসারে ব্যাখ্যা আমরা দেব। নির্বাহী নয়, এগুলো মনে করে চলবেন।
অধস্তন আদালতের বিচারকদের চাকরির শৃঙ্খলা ও আচরণসংক্রান্ত বিধিমালার গেজেট প্রকাশ না করে সোমবার আবারও সময়ের আবেদন করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। আড়াই বছরের বেশি সময় ধরে আটকে থাকা ওই গেজেট প্রকাশে সরকার আরও সময় চাওয়ায় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন ৭ বিচারকের আপিল বেঞ্চ উষ্মা প্রকাশ করে এবং শুনানি শেষে আরও দুই সপ্তাহ সময় দেয়া হয়। শুনানির শুরুতে অ্যাটর্নি জেনারেল সময়ের আবেদন জমা দিলে প্রধান বিচারপতি জানতে চান, এটা কী? অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, সময়। তখন প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘কারণটা কী?’ অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘প্রসেস চলছে। প্রধান বিচারপতি বলেন, আমরা হাসব না কাঁদব? হাসতে গেলেওতো কষ্ট হয়। যাই হোক, আমি কিছু বলছি না। স্বাধীনতার ৪৫ বছর পার হয়ে গেছে। কিছু ত্রুটি রয়ে গেছে। কিছু অনিয়ম আছে। এগুলো নিয়ে সারাজীবন নয়। আমরা চাচ্ছি একটা সিস্টেমে চলে আসতে। প্রধান বিচারপতি অনিয়ম থেকে নিয়মে আসতে গেলে বলে, গেল গেল। এরপর প্রেষণে থাকা বিচারকদের প্রেষণে প্রশিক্ষণ নিতে বিদেশে পাঠানো নিয়ে সুপ্রিম কোর্ট আর আইন মন্ত্রণালয়ের সাম্প্রতিক টানাপড়েনের প্রসঙ্গ আসে প্রধান বিচারপতির কথায়। তিনি বলেন, পত্রিকায় বলা হয়, প্রধান বিচারপতির সাথে সরকারের দ্বন্দ্ব। আপনার মিনিস্ট্রিকে (আইন মন্ত্রণালয়) বলবেন, জেনারেল ক্লজ অ্যাক্টের ২১ পড়তে। সরকারকে বলবেন, যেসব বিচারক প্রেষণে আছে, তারা সরকারি কর্মচারি না। সুপ্রিম কোর্ট জানতে চেয়েছিল প্রেষণে থাকাদের মধ্যে কারা বিদেশে যায় তাদের নাম। নিম্ন আদালতের বিচারকদের প্রশিক্ষণ দিতে গত ২৮ মার্চ আইন ও বিচার বিভাগের সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি সমঝোতা স্মারক সই হয়। এর প্রথম ধাপে প্রেষণে ১৭ জন বিচারককে বিভিন্ন মেয়াদে অস্ট্রেলিয়া পাঠানোর জন্য ৩ মে একটি অফিস আদেশ জারি করে আইন মন্ত্রণালয়।
এরপর ৯ মে বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাগণের বিদেশ গমনের ক্ষেত্রে আবশ্যিকভাবে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ গ্রহণ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করে সুপ্রিম কোর্ট। প্রেষণে থাকা বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ ছাড়া বিদেশে না যেতে নির্দেশ দেয়া হয় সেখানে। এই নির্দেশ না মানলে শৃঙ্খলা ভঙ্গের জন্য বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে সেখানে হুশিয়ার করা হয়। এরপর গত ১৬ মে আইন মন্ত্রণালয় থেকে সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেলের কাছে একটি চিঠি পাঠানো হয়। রাষ্ট্রপতির অনুমোদন নিয়ে গত বছর মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা একটি পত্রের বরাতে সেখানে বলা হয়, অধস্তন আদালতের বিচারকরা প্রেষণে থাকলে তাদের বিদেশযাত্রার ক্ষেত্রে সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ নেয়ার আবশ্যকতা নেই।
আইন মন্ত্রণালয় রাষ্ট্রপতির অনুশাসনের কথা বললেও সুপ্রিম কোর্ট ২৩ মে আরেকটি পরিপত্র জারি করে ওই ১৭ জনকে বিদেশ না পাঠানোর নির্দেশনাই বহাল রাখে। গতকাল সোমবারের শুনানিতে সেই প্রসঙ্গে প্রধান বিচারপতি বলেন, যতো বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তা ডেপুটেশনে দিয়েছি, যদি তাদের প্রত্যাহার করি, তাহলে কারও কিছু করার নেই। বিচারকদের ডেপুটেশনে দিয়ে নির্বাহী বিভাগের সাথে সুষ্ঠুভাবে কাজ করার জন্য হাত বাড়িয়ে দিয়েছি। ১৮৯৭ সালের সেকশন জেনারেল ক্লজ অ্যাক্ট ২১ দেখেন। যদি না হয় এটা ডিলিট করে দেন। এটা এতো দিন ধরে চলে আসছে।
অ্যাটর্নি জেনারেলকে তিনি বলেন, আপনারা বিচার বিভাগকে বিক্ষুব্ধ করবেন না, রাষ্ট্রপতির অনুশাসন বলে এমন কিছু করতে পারেন না। রাষ্ট্রপতির কাছে কোনো ফাইল পাঠিয়ে যদি করতে বলা হয় তখন তিনি করেন, আর না বললে না বলেন। তাই বলছি ভুল ব্যাখ্যা দেয়া হয়। প্রধান বিচারপতি বলেন, তারা মনে করে সুপ্রিম কোর্টকে আদেশ করবে, তা ভুল করবে। তারা আইন না জেনে একের পর এক ব্যবধান সৃষ্টি করছে। রাষ্ট্র এ রকম করতে পারে না। সুপ্রিম কোর্টের প্রত্যেকটা সিদ্ধান্ত সিনিয়র বিচারকরা চিন্তা করে নেন। তারা (আইন মন্ত্রণালয়) যদি মনে করে যে, আইনের একটা ব্যাখ্যা দাঁড় করিয়ে দিবে তাহলে খুব ভুল করবে। নির্বাহী বিভাগকে আইনের ব্যাখ্যা না দেয়ার পরামর্শ দিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘অল্প বিদ্যা ভয়ংকর! মারাত্মক হয়ে যাবে! তারা যদি আইনের ব্যাখ্যা দিয়ে বলে এটাই কারেক্ট, খুব ভুল হবে।

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *