দেশের টুকিটাকি : চিনি ৫৫ সয়াবিন ৮৫ ও ছোলা ৭০ টাকা বিক্রি করবে টিসিবি

চিনি ৫৫ সয়াবিন ৮৫ ছোলা ৭০ টাকা বিক্রি করবে টিসিবি

স্টাফ রিপোর্টার: পবিত্র রমজান উপলক্ষে রাজধানী চুয়াডাঙ্গাসহ সারাদেশের ১৮৫টি স্থানে ভ্রাম্যমাণ বিপণন কেন্দ্রের মাধ্যমে নায্যমূল্যে নিত্যপণ্য বিক্রি করবে সরকারের বিপনন সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। আগামী ১৫ মে থেকে এই পণ্য বিক্রি শুরু হবে। সয়াবিন তেল, চিনি, মসুর ডাল, ছোলা ও খেজুর বিক্রি করবে সরকারের এ সংস্থাটি। এর মধ্যে চিনি ৫৫ টাকা, সয়াবিন তেল ৮৫ টাকা, ছোলা ৭০ টাকা, মসুর ডাল ৮০ টাকা ও খেজুর ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হবে। একজন ভোক্তা প্রতিদিন সর্বোচ্চ ৪ কেজি চিনি, ৩ কেজি মসুর ডাল, ৫ লিটার সয়াবিন তেল, ৫ কেজি ছোলা ও এক কেজি খেজুর কিনতে পারবেন। ঢাকায় ৩০টি স্থানে, চট্টগ্রামে ১০টি স্থানে, অন্যান্য বিভাগীয় শহরে ৫টি করে এবং বাকি জেলা সদরগুলোতে ২টি করে ট্রাকে করে পণ্য বিক্রি করা হবে। এছাড়া টিসিবির নিজস্ব ১০টি খুচরা বিক্রয় কেন্দ্র ও ২ হাজার ৮১১ জন পরিবেশকের কাছ থেকেও ভোক্তারা পণ্য কিনতে পারবে।

 

রাষ্ট্রীয় উপহার দুর্নীতি মামলায় খালাস পেলেন এরশাদ

স্টাফ রিপোর্টার: রাষ্ট্রীয় উপহার সামগ্রী গ্রহণের অভিযোগে দুদকের করা মামলায় আপিলের রায়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদকে খালাস দিয়েছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি মো. রুহুল কুদ্দুস ও বিচারপতি ভীষ্মদেব চক্রবর্তীর সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার এ রায় দেন। আদালতে এরশাদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন শেখ সিরাজুল ইসলাম। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) পক্ষে ছিলেন খুরশীদ আলম খান। এ মামলায় বিচারিক আদালত এরশাদকে তিন বছরের কারাদণ্ড দিয়েছিলেনে। এ সাজা থেকে খালাস চেয়ে এরশাদ আপিল করেছিলেন। অন্যদিকে সাজা বাড়াতে আপিল করেছিলো রাষ্ট্রপক্ষ। এছাড়া এরশাদের পক্ষে সাক্ষ্য দেয়া এক সাক্ষীর বিষয়ে সরকার আরেকটি আপিল করেছিলো। মঙ্গলবার তিন আপিলের রায়ে সাবেক রাষ্ট্রপতি এইচএম এরশাদকে খালাস দেন হাইকোর্ট। জানা গেছে, ১৯৮৩ সালের ১১ ডিসেম্বর থেকে ১৯৯০ সালের ৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রপতি ছিলেন এইচএম এরশাদ।

 

তরমুজের বিষাক্ত রং সনাক্তকরণের সহজ পদ্ধতি উদ্ভাবন দুই ঢাবি শিক্ষার্থীর

স্টাফ রিপোর্টার: তরমুজের বিষাক্ত রং সনাক্তকরণের সহজ পদ্ধতি উদ্ভাবন করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী। মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রসায়ন বিভাগের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক ড. নীলুফার নাহারের তত্ত্বাবধায়নে দুই তরুণ গবেষক তানহাউল ইসলাম এবং আহসান হাবীব খন্দকার এই পদ্ধতি আবিষ্কার করেন। গবেষণা কাজে আরো সম্পৃক্ত ছিলেন বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ শোয়েব এবং মো: কামরুল হাসান। তানহাউল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, তরমুজের মধ্যে কেমিক্যাল রং মিশিয়ে লাল করা হয়ে থাকে। সহজে চার-পাঁচ মিনিটের মধ্যে তরমুজ থেকে বিষাক্ত রং শনাক্ত করা সম্ভব হয়। মেশিনের মধ্য দিয়ে তরমুজ এবং পানি আলাদা করা হয়ে থাকে। কিন্তু লাল রং যেহেতু তরমুজের পানির মধ্যে দ্রবীভুত থাকে, তাই সেটা পানিতে চলে যায়, তরমুজ আলাদা হয়। চতুর্থ বর্ষের প্রজেক্টের অংশ হিসেবে বিভাগের চেয়ারপার্সন অধ্যাপক নীলুফার নাহার তত্ত্বাবধায়নের এট করেছেন বলে জানান তানহা।

 

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *