ইরাকের সবচেয়ে বড় বাঁধে যুক্তরাষ্ট্রের বিমান হামলা

 

 

মাথাভাঙ্গা মনিটর: ইরাকেরউত্তরাঞ্চলে অবস্থিত দেশটির সবচেয়ে বড় বাঁধ মসুল ড্যামে ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিদের অবস্থান লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।শনিবার চালানো এ হামলায় নিহত হয় কমপক্ষে ১৫ আইএস জঙ্গি। এছাড়া ইরাকিকুর্দিস্তানের সিনজার পর্বতমালা সংলগ্ন আইএসের অবস্থান লক্ষ্য করেও হামলাচালায় মার্কিন জঙ্গি বিমান। ওই এলাকায় সংখ্যালঘু ইয়াজিদি সম্প্রদায়েরবিরুদ্ধে গণহত্যা চালানোর অভিযোগ রয়েছে আইএস জঙ্গিদের।

মসুল ড্যাম ও তারপাশ্ববর্তী এলাকায় বিমান হামলা চালানোর উদ্দেশ্য অঞ্চল জিহাদিদের কাছ থেকেপুনর্দখল করা। কুর্দি পেশমারগাদের কাছে মসুল বাঁধের নিয়ন্ত্রণ বুঝিয়ে দিতেএই সামরিক অপারেশন শুরু হয়। কুর্দিশ অঞ্চলের পানি ও বিদ্যুৎ সরবরাহ হয় এইমসুল বাঁধ থেকে। সম্প্রতি ইরাকের বিস্তীর্ণ উত্তরাঞ্চলীয় এলাকাসহ সিরিয়ারউল্লেখযোগ্য অংশের দখল নেয় ইসলামিক স্টেট। পরবর্তী সময়ে কুর্দিস্তানেররাজধানী আরবিল এবং ইরাকের রাজধানী বাগদাদ দখলে নিতে অভিযান শুরু করেজঙ্গিরা। আইএসের এই অগ্রাভিযান ঠেকাতে জঙ্গি অবস্থান লক্ষ্য করে বিমানহামলা চালানোর ঘোষণা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

নতুনপ্রধানমন্ত্রীকে সমর্থনে আগ্রহী সুন্নি নেতারা: শর্তসাপেক্ষে ইরাকের নতুনপ্রধানমন্ত্রী হায়দার আল আবাদিকে সমর্থন দিতে চায় ইরাকের সুন্নি নেতারা। একমুখপাত্রের বরাত দিয়ে জানা গেছে, সুন্নি রাজনৈতিক ও ধর্মীয়নেতারা নতুন প্রধানমন্ত্রীকে শর্তসাপেক্ষে সমর্থন দিতে আগ্রহী। তাহামুহাম্মদ আল হামাদুন নামের ওই মুখপাত্র শুক্রবার জানান, আনবার ও অন্যান্যপ্রদেশের সুন্নি নেতারা কিছু দাবি-দাওয়া তৈরি করছেন। এগুলো নতুনপ্রধানমন্ত্রী আবাদির কাছে পাঠানো হবে। ওই সব দাবি মেনে নিলে সুন্নিরাজনৈতিক ও ধর্মীয় নেতারা তার প্রতি সমর্থন জানাবেন বলে উল্লেখ করেন ওইমুখপাত্র। তিনি আলোচনার স্বার্থে সরকার ও শিয়া যোদ্ধাদের প্রতি তাদেরঅভিযান স্থগিতের আহ্বান জানান।হামাদুন বলেন, এলোপাতাড়ি বোমা হামলা চালিয়ে কোনো আলোচনাইসম্ভব নয়। চলমান সংকট অবসানের স্বার্থে বোমা হামলা বন্ধ এবং শিয়া যোদ্ধাদেরপ্রত্যাহার করার আহ্বান জানান তিনি। ইরাকের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর ইরবিলথেকে আল জাজিরা সংবাদদাতা জানিয়েছেন, সুন্নি নেতারা বেশ কিছু দাবি জানাতেপারেন। তার মধ্যে আটক নেতাকর্মীদের মুক্তি ও তাদের জন্য বিশেষ গুরুত্ব দিয়েকর্মসংস্থান সৃষ্টির বিষয়টি প্রাধান্য পেতে পারে বলে জানান তিনি।

এরআগে, ইরাকের প্রধান ও প্রভাবশালী শিয়া নেতা আয়াতুল্লাহ আল সিস্তানি একভাষণে ইরাকের সব পক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, নতুন প্রধানমন্ত্রীক্ষমতা নেয়ায় ইরাকে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টির এক গুরুত্বপূর্ণ সুযোগ এসেছে।এদিকে, শুক্রবার নতুন প্রধানমন্ত্রী আবাদি দেশের এই সংকটময় মুহূর্তে সবাইকেঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করা এক কঠিন কাজউল্লেখ করে আবাদি এক ফেসবুক বার্তায় বলেছেন, তিনি কোনো অবাস্তব প্রতিশ্রুতিদেবেন না।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *