বিদেশি টুকরো

আফরিনে নেমেছে তুরস্কের নারী যোদ্ধারা

মাথাভাঙ্গা মনিটর: সিরিয়ার আফরিনের তুরস্কের চালানো ‘অপারেশন অলিভব্রাঞ্চ’ এ দেশটির নারী সদস্যরা অংশ নিয়েছেন। আফরিনে অভ্যন্তরে তুরস্ক সীমান্তবর্তী এলাকায় তারা সন্ত্রাসীদের প্রতিরোধে কাজ করছেন। একই সঙ্গে সেখানে মোতায়েনকৃত সেনা ইউনিটগুলোর সার্বিক দেখভাল করছেন তারা। যেসব নারী যোদ্ধা অপারেশন অলিভব্রাঞ্চে অংশ নিয়েছেন তাদের অনেকেই ইতঃপূর্বে অপারশন ইউফ্রেটিস শেল্ড এ অংশ নিয়েছিলেন। এবার তাদের সঙ্গে কয়েকজন নতুন নারী যোদ্ধা পাঠানো হয়েছে। অপারেশন অলিভব্রাঞ্চের এক আর্টিলারি ক্যাপ্টেন হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন নারী যোদ্ধা দিলেক আয়ান।

তিনি হোয়েতজার নামের এক ধরণের অস্ত্র ব্যবহারের দায়িত্বে রয়েছেন। ওই অস্ত্র দিয়ে ৪০ কিলোমিটারের অভ্যন্তরের যেকোনো লক্ষ্যবস্তু ধ্বংস করা যায়। আয়ান বলেন, যুদ্ধক্ষেত্রে আমরা এ অস্ত্রের প্রয়োগ করছি। এটি খুবই ফলপ্রসূ এবং ব্যবহারে নিরাপদ।

 

কাশ্মীরে ভারতীয় সেনাদের গুলিতে নিহত ৫

মাথাভাঙ্গা মনিটর: কাশ্মীরে অস্থায়ী একচেকপোস্টে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে পাঁচ কাশ্মিরী যুবক নিহত হয়েছেন। ভারতীয় সেনারা বরাবরের মতোই নিহতদের ‘সন্ত্রাসী’ বলে উল্লেখ করলেও, তাদের বেসামরিক বলে দাবি করেছে স্থানীয় বাসিন্দারা। যদিও গত রোববার স্থানীয় সময় রাত ৮টার দিকে দক্ষিণ কাশ্মীরের সোপিয়ানে এ হামলার ঘটনা হয়।

নিহতদের মধ্যে একজনকে ‘সন্ত্রাসী’ বলে দাবি করেছে নিরাপত্তা বাহিনী। তারা অপর তিনজনকে ওই ‘সন্ত্রাসীর’ সহযোগী বলে দাবি করলেও স্থানীয়দের অভিযোগ, ওই তিনজন সেনাবাহিনীর গুলিতে নিহত বেসামরিক। নিহত অপরজন একজন বেসামরিক শিক্ষার্থী, তাকে একটি গাড়ির ভিতরে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে। নিরাপত্তা বাহিনীর এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, রাত ৮টার দিকে চেকপোস্টে তল্লাশিরত সেনাবাহিনীর সদস্যরা একটি গাড়িকে থামার সঙ্কেত দিলে গাড়ি থেকে তাদের লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়।

পূর্ব গৌতায় সরকারি বাহিনীর হামলায় ১১ শিশুসহ নিহত ৩৪

মাথাভাঙ্গা মনিটর: সিরিয়ায় বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত ঘাঁটি পূর্ব গৌতায় গত রোববার সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় শিশুসহ ৩০ জনের বেশি বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে।  মানবাধিকার বিষয়ক সিরীয় পর্যবেক্ষণ সংস্থার প্রধান রামি আব্দেল রহমান জানান, পূর্ব গৌতায় আসাদ বাহিনীর রকেট হামলায় ৩৪ বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে।’ তিনি আরও জানান, নিহতদের মধ্যে ১১ শিশু রয়েছে। রহমান জানান, হামলায় গৌতার প্রধান নগরী দৌমা ও এর পূর্বাঞ্চলীয় শহরতলীতে ২৬ জন নিহত হয়েছে। গত ১৫ দিন ধরে গৌতায় সরকারি বাহিনীর বিমান হামলা, গোলাবর্ষণ ও রকেট হামলায় ৬৯০ জনের বেশি বেসামরিক লোক প্রাণ হারিয়েছে।

সাদ্দাম হোসেনের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ

মাথাভাঙ্গা মনিটর: ইরাকের সাবেক প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেন এবং তার যৌথ পরিবারের সদস্যদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার নির্দেশ দিয়েছে ইরাকের সরকার। ইরাকে একটি ‘জবাবদিহিতা ও ন্যায়বিচার সংক্রান্ত কমিশন’ এই তালিকা তৈরি করেছে। এতে সাদ্দাম হোসেন, তার সন্তান, নাতি-নাতনি এবং আত্মীয়স্বজনরা আছেন। তাদের সম্পত্তি কি আছে, কোথায় আছে তার এখন খুঁজে বের করার কাজ চলছে। ২০০৩ সালে ইরাকে মার্চ-এপ্রিল মাসে মার্কিন-নেতৃত্বাধীন অভিযানে সাদ্দাম হোসেন ক্ষমতাচ্যুত হন। জুলাই মাসে মসুল শহরে আরেক অভিযানে নিহত হন তার দু’ছেলে উদে ও কুসে হোসেন। এরপর সে বছরই ডিসেম্বরের ১৩ তারিখ তিকরিতের কাছে একটি খামার বাড়িতে মার্কিন সেনাদের হাতে ধরা পড়েন সাদ্দাম হোসেন। মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধসহ একাধিক অপরাধের দায়ে তার বিচার হয় এবং মৃত্যুদণ্ড দেয়া হয়। ২০০৬ সালের ৩০ ডিসেম্বর তার ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

 

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *