স্বাস্থ্যসেবা মানুষের মৌলিক অধিকারের অন্যতম একটি

 

 

           বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়টিচিকিৎসাবিষয়ক শিক্ষারমানেরপাশাপাশি নতুন নতুন বিভাগ ও আধুনিক প্রযুক্তিগত চিকিৎসাসেবা চালু করেদক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে অন্যতম চিকিৎসাকেন্দ্র হিসেবে প্রতিষ্ঠাপেয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় গত বুধবার যুক্ত হয়েছে পেডিয়াট্রিক কার্ডিয়াকক্যাথল্যাব। এখানে রয়েছে শিশুহৃদরোগীর জন্য পূর্ণাঙ্গ করোনারি কেয়ার ইউনিটও ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিট; যা সঙ্কটাপন্ন শিশু হৃদরোগীদের চিকিৎসা দেয়াসম্ভব হবে। এ বিভাগ চালু হওয়ায় হৃদযন্ত্রে ত্রুটি নিয়ে জন্মানো শিশুদেরআধুনিক পূর্ণাঙ্গ পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও চিকিৎসাসেবা প্রদান করা যাবে।

দেশে প্রতিবছর হৃদযন্ত্রে নানা ত্রুটি নিয়ে ২৫ হাজারের মতো শিশু জন্মাচ্ছে।অনেক অভিভাবক জানেন না তাদের শিশু সন্তানের হৃদযন্ত্রে সমস্যা রয়েছে।চিকিৎসাও অত্যন্ত ব্যয়বহুল। গ্রামে শিশুদের শরীরে যখন এ উপসর্গ দেখা দেয়তখন তাদের বাবা-মা কবিরাজ-ওঝা ও হাতুড়ে চিকিৎসকের কাছে যান। এ ধরনেরচিকিৎসক-কবিরাজরা সঠিক রোগ নির্ধারণ করতে না পেরে রোগকে আরও জটিল করে তোলেন।বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থার তথ্য মতে, বিশ্বে হৃদরোগ নিয়ে জন্মানো শিশুর শতকরা১৫ ভাগ ভারতে, ১০ ভাগ শ্রীলঙ্কায়, ৬ ভাগ বাংলাদেশে, ৬ ভাগ মিয়ানমারে এবংবাকি ৬৩ ভাগ বিশ্বের অন্যান্য দেশে। এর মধ্যে জন্মের প্রথম সপ্তাহে ৪০-৫০%রোগী এবং প্রথম মাসে ৫০-৬০% রোগীর রোগ ধরা পড়ে। জন্মের প্রথম বছরেই প্রতিহাজারে ২-৩ জনের হৃদরোগের লক্ষণ প্রকাশ পায়। জন্মের পরেও বিভিন্ন সংক্রমণ, পুষ্টিহীনতা এবং অন্যান্য রোগের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া শিশুর হৃদরোগ হয়ে থাকে।সম্প্রতি আরও এক গবেষণায় জানা যায়, শিশুবয়সে মুটিয়ে যাওয়া, অল্প বয়সেধূমপান করা, নিষ্ক্রিয়তা ইত্যাদির প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। আর এপ্রবণতাগুলোই বয়সবৃদ্ধির সাথে সাথে হৃদরোগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

স্বাস্থ্যসেবা মানুষের মৌলিক অধিকারের অন্যতম একটি। এই অধিকার নিশ্চিত করতেসরকার সচেষ্ট। বিভিন্ন সময় এই অধিকার অনেকে ভোগ করতে পারেনি। বিশেষ করেদরিদ্র রোগীদের দুর্গতি আর অসহায়ত্তের সুযোগ নিয়ে প্রতারিত হওয়ার ঘটনা নতুননয়। সরকারি হাসপাতালগুলোতে একশ্রেণির দালাল-প্রতারকের কারণে সুষ্ঠুচিকিৎসা ব্যবস্থা ব্যাহত হওয়ার অভিযোগ পুরোনো; যাদের সাথে সংশ্লিষ্টহাসপাতালের এক শ্রেণির কর্মচারী যুক্ত থাকার অভিযোগ রয়েছে। বিভিন্ন সময় এইবিষয়গুলো পত্রপত্রিকায়ও এসেছে। তবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেলবিশ্ববিদ্যালয়ে শিশুদের জন্য যে বিশেষায়িত বিভাগটি চালু হয়েছে তা শিশুদেরচিকিৎসার ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এটা সবার বিশ্বাস।চিকিৎসা ব্যবস্থায় আমরা এখন অনেক এগিয়েছি। এদেশে এখন অনেক জটিল রোগেরচিকিৎসা হচ্ছে। সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতেও কিছু বিশেষায়িত হাসপাতালবাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমাদের দেশে তৈরি ওষুধ এখন সরকারিভাবে বিদেশেরফতানি হচ্ছে। যদিও ভেজাল এবং নিম্নমানের ওষুধ নিয়ে প্রশ্ন রয়েছেই।

শিশুদের জন্য পেডিয়াট্রিক কার্ডিয়াক ক্যাথল্যাব উদ্বোধনীঅনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেছেন, অত্যাধুনিক চিকিৎসা সেবা দেশেই দ্রুতগড়ে উঠছে এবং চিকিৎসা সেবায় বাংলাদেশ অচিরেই এশিয়ায় নেতৃত্ব দেয়ার সক্ষমতাঅর্জন করবে। দেশবাসীর প্রত্যাশা চিকিৎসা ক্ষেত্রে যে সাফল্যের ধারা চলছে তাঅব্যাহত থাকলে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এ আশাবাদ অমূলক হবে না। দেশে চিকিৎসার মান বৃদ্ধিতে ল্যাব’র উনয়নের পাশাপাশি দরকার চিকিৎসকদের সেবার মানসিকতা গড়ে তোলা। উন্নত চিকিৎসার সুযোগ জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদেরও মাঠ পর্যায়ে দায়িত্ব পালনে আন্তরিক করার বাস্তবমুখি পদক্ষেপও প্রয়োজন।

 

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *