ঈদ মরসুমে জালটাকা কারবারীচক্র সক্রিয় হয়ে ওঠে

 

 

জালমুদ্রার কারবারের সাথে যুক্ত জালিয়াতচক্র সাধারণ মানুষকে বোকা বানিয়েহাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। সন্দেহ নেই, এতে ব্যক্তিগতভাবে মানুষ যেমনক্ষতির সম্মুখীন হয়, পাশাপাশি সামগ্রিকভাবে দেশের অর্থনীতিতেও এর একটানেতিবাচক প্রভাব পড়ে। ঈদের কেনাকাটা শুরু হলে জালটাকা কারবারীরা বেপরোয়া হয়ে ওঠে। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়।

মুদ্রারইতিহাস প্রাচীন। সমাজ বিবর্তনের ধারায় বিনিময় প্রথা শুরু হলে মানুষবিভিন্ন বস্তু বা পদার্থের মূল্যমান স্থির করে লেনদেন শুরু করে। এরইধারাবাহিকতায় স্বর্ণ ও রৌপ্যমুদ্রার যুগ পার করে কাগজের নোট উদ্ভাবিত হয়।কাগজের নোটের প্রচলন শুরু হলে সহজে বহনযোগ্য বিবেচনায় মানুষ এটিকে সাদরেগ্রহণ করে। তবে কাগজের মুদ্রার কিছু অসুবিধাও রয়েছে। যেমন এটি আগুনে পুড়েঅথবা পানিতে ভিজে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। ক্ষেত্রবিশেষে পোকায়ও কাটতে পারে।তবে কাজগের মুদ্রার সবচেয়ে বড় অসুবিধা শুরুতে মানুষ বুঝতে না পারলেও এখনপারছে। আধুনিক মুদ্রণ প্রযুক্তির ব্যাপক উন্নয়ন ঘটায় বাজারে প্রচলিত ব্যাংকনোটগুলো অবিকল ছাপানো সম্ভব হচ্ছে। ফলে বিশ্বব্যাপি ডলার থেকে শুরু করেজাল মুদ্রার ব্যবসাও ফুলে-ফেঁপে উঠেছে। এ থেকে মুক্ত নয় আমাদের দেশও। জালমুদ্রার কারবারের সাথে যুক্ত জালিয়াতচক্র সাধারণ মানুষকে বোকা বানিয়েহাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। মুদ্রাজালিয়াতির সাথে কেবল দেশীয় প্রতারক দলই সম্পৃক্ত নয়, এর সাথে আন্তর্জাতিক মাফিয়াচক্রও সংশ্লিষ্ট। কাজেই বিমানবন্দর অথবা অন্য কোনোচ্যানেলে দেশে জাল মুদ্রার প্রবেশ রোধে কঠোর নজরদারির ব্যবস্থা থাকা উচিত।জাল ব্যাংকনোট প্রতিরোধে চুয়াডাঙ্গা মেহেরপুর ও ঝিনাইদহসহ দেশের ৬৪টি জেলায় জেলা প্রশাসকেরনেতৃত্বে একটি করে কমিটি ও প্রতি মাসে অন্তত ১টি করে সভা অনুষ্ঠানের কথারয়েছে। জেলা পর্যায়ে বিশেষ করে সীমান্ত জেলাগুলোয় জাল টাকার লেনদেন বেশিহয়। এসব পর্যায়ে জালটাকার গতি রোধ করতে পারলে সুফল পাওয়া যাবে- এতে কোনোসন্দেহ নেই। সে লক্ষ্যে পশু হাটগুলোর অধিকাংশেই জালনোট শনাক্তকরণ যন্ত্র স্থাপন করা হয়েছে। এ বিষয়েও ব্যাপক প্রচার প্রচারণার দিকে বিশেষ নজর দেয়া অবশ্যক।

জালনোট প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি জালিয়াতচক্রের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ ও তাদের শাস্তি প্রদানের বিষয়টিনিশ্চিত করতে হবে। রোজার মাস ও ঈদে অর্থের প্রবাহ বেড়েযাওয়ার সুযোগেপ্রতারকচক্র কৌশলেবাজারে জালনোট ছড়ায়।ঈদ মরসুমেবুথগুলোয় যাতে জালনোট প্রতিরোধ করা যায়, সে বিষয়েওকেন্দ্রীয় ব্যাংকের আশু পদক্ষেপ প্রয়োজন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *