চুয়াডাঙ্গার সরিষাডাঙ্গায় বিশু শাহ’র ৮৩তম স্মরণোৎসবের উদ্বোধন : বাউল ভক্তদের পদচারণায় জমে উঠেছে মাজার প্রাঙ্গণ

 

অনিক সাইফুল: ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’ বাউল স্লোগানে গতকাল শুক্রবার রাত ৮টার দিকে চুযাডাঙ্গার সরিষাডাঙ্গার আধ্যাত্মিক জ্ঞানের অধিকারী সাধক বিশু শাহ’র ৮৩তম স্মরণোৎসবের উদ্বোধন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানকে ঘিরে বসেছে বাউলমেলা। দেশ-বিদেশের বাউল ভক্তদের উপস্থিতিতে প্রাণবন্ত হয়ে উঠেছে মাজার প্রাঙ্গণ। নানা রঙের আলোকসজ্জা আর রঙ-বেরঙের খেলনা, খাবারের দোকান, পরিবারের নিত্য প্রয়োজনীয় দোকান আর মিনি চিড়িয়াখানা মেলা প্রাঙ্গণ আরো আকর্ষণীয় করে তুলেছে। এছাড়া এপার বাংলা-ওপার বাংলার বাউল শিল্পীদের বাউল গানে মুগ্ধ করে কেড়েছে বাউল ভক্তদের হৃদয়।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গার মোমিনপুর ইউনিয়নের সরিষাডাঙ্গা গ্রামের বাউল সাধক বিশু শাহের ৮৩তম স্মরণোৎসব এক জমকালো পরিবেশে গতকাল শুক্রবার উদ্বোধন করা হয়। ভক্তরা সাঁইজির মাজার দর্শন দিতে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে এসেছেন মাজার প্রাঙ্গণে। সাধু দর্শন আর ভক্তদের ভক্তিতে সিক্ত বাউল ভক্তদের মন। গতকাল শুক্রবার সন্ধা ৭টার দিকে অনুষ্ঠানের মিডিয়া পাটনার প্রথম পর্বে মানবতার কল্যাণে নিবেদিত কোরআন ও হাদিস নিয়ে আলোচনা করেন হেযবুত তওহিদের খুলনা বিভাগীয় আমির শেখ মনিরুল ইসলাম ও ইমাম হুসাইন মাহমুদ সেলিম। রাত ৮টার দিকে উপস্থিত সকল বাউল ভক্তদের সর্বসম্মতিক্রমে বিশু সাঁইয়ের ৮৩তম স্মরণোৎসবের উদ্বোধন ঘোষণা করেন দৈনিক মাথাভাঙ্গার প্রকাশক ও সম্পাদক চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সরদার আল আমিন। বক্তব্য রাখেন- মোমিনপুর ইউপি চেয়ারম্যান বিশু শাহ বাউল একাডেমীর সভাপতি পৃষ্ঠপোষক গোলাম ফারুক জোয়ার্দ্দার। অনুষ্ঠানের সভাপতি ছিলেন মোস্তাফিজুর রহমান মাজু। প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন দৈনিক মাথাভাঙ্গার প্রকাশক ও সম্পাদক সরদার আল-আমিন, ঢাকার শিল্পপতি জাহাঙ্গীর আলমসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ। উদ্বোধন শেষে বাউল সঙ্গীতের আয়োজন করা হয়। শান্তর উপস্থাপনায় উদ্বোধনী সঙ্গীত এলাহী আলমিন গো আল্লা বাদশা আলমপনা তুমি গানটি পরিবেশন করেন গঞ্জের শাহ। এছাড়া বাউল সঙ্গীত পরিবেশন করেন ওপার বাংলার সুদীপ্ত ঘোষ ও ভাস্কর ভাট্টাচার্য, ধীরু বাউল, স্বপন বৈরাগী, মজিবর রহমান লাড্ডুসহ দেশবরেণ্য শিল্পীরা তাদের বাউল গানে বাউল ভক্তদের ভরিয়ে তোলেন। অনুষ্ঠান চলে গভীর রাত পর্যন্ত।

এছাড়া বিশু সাঁইয়ের ৮৩তম স্মরণোৎসবকে ঘিরে বসেছে সরিষাডাঙ্গার বটমুলে মেলা, মেলাকে ঘিরে বাউল ভক্তদের স্বাগতম জানাতে তৈরি করা হয়েছে ৪টি বিশাল তোরণ দ্বার। করা হয়েছে বিভিন্ন আলোকসজ্জা। বসেছে বিভিন্ন খেলনা আর পরিবারের নিত্য প্রয়োজনীয় আসবাপত্রের দোকান। মিনি চিড়িয়াখানা ভক্তদের মনে আনন্দ দিয়ে চলেছে। এপার বাংলা আর ওপার বাংলার শিল্পীদের গান ছুঁয়েছে হাজারো বাউল ভক্তদের হৃদয়। আজ শনিবার দেশ-বিদেশের বিভিন্ন বাউলশিল্পী বাউল ভক্তদের মন মাতাবেন বলে আয়োজক কমিটি জানিয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *