সিরীয় বিদ্রোহীদের নৃশংসতা

মাথাভাঙ্গা মনিটর: পরনে প্যান্ট ছাড়া গায়ে কোনো পোশাক নেই, শরীরে আঘাতের চিহ্ন। এ সাতজনের কারও কারও হাত পেছনে বাধাঁ। সবার মাথা মাটিতে ঠেকানো। পেছনে অস্ত্র হাতে দাঁড়িয়ে ১০ জন। অস্ত্র হাতে থাকা একজন কিছুক্ষণ বক্তব্য দিলেন। বক্তব্য শেষের পরে গুলি করে হত্যা করা হলো ওই সাত জনকে। সিরিয়ার বিদ্রোহীরা সরকারি বাহিনীর সাত সদস্যকে এভাবেই হত্যা করেছে। এ হত্যাকাণ্ডের দৃশ্য একটি ভিডিওতে উঠে এসেছে সিরীয় বিদ্রোহীদের ‍নৃশংসতা। ভিডিওটিতে দেখা গেছে, সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের এ সাত সেনাকে হত্যার আগে বিদ্রোহী নেতা আবদুল সামাদ ইসা প্রথম গুলি ছোড়ার আগে একটি কবিতা আবৃত্তি করেন।
চাচা নামে পরিচিত আবদুল সামাদ ইসা বলেন, এরা গত চল্লিশ বছরের দুর্নীতির সহযোগী। আমরা জাহানের মালিকের কাছে প্রতিজ্ঞা করে যে আমাদের শপথ হচ্ছে: আমরা প্রতিশোধ নেবো। গত এপ্রিলে ধারণকৃত এ হত্যার ভিডিও কয়েক দিন আগে প্রকাশ পেয়েছে। ভিডিওটি মার্কিন একটি সংবাদমাধ্যম ওই হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়া এক বিদ্রোহী। তিনি জানিয়েছেন, তার এক সময়ের কমরেডদের নৃশংসতার কৌশলে তিনি বেদনাহত হয়েছেন। সিরিয়া যুক্তরাষ্ট্র যখন হামলার কথা ভাবছে এবং রাশিয়ার চলমান জি২০ সম্মেলনের সিরিয়া নিয়ে বিভক্ত নেতারা তখনই এ ভিডিও প্রকাশ পেলো।

Leave a comment

Your email address will not be published.