সিরাজগঞ্জে পুলিশ পিকআপ ভাঙচুর : টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ

চুয়াডাঙ্গা মেহেরপুর ও ঝিনাইদহসহ সারাদেশে বিএনপির বিক্ষোভ ও সমাবেশ


মাথাভাঙ্গা ডেস্ক: ঢাকা মহানগরীতে সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল রোববার বিভাগীয় এবং জেলা শহরগুলোতে মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনগুলো। চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপিসহ একাধিক অংশ পৃথক মিছিল ও সভা করেছে। মেহেরপুরেও বিক্ষোভ মিছিল করেছে বিএনপি। বিএনপির অপরাংশের নেতৃবৃন্দ সমাবেশের আয়োজন করে। চুয়াডাঙ্গায় বিক্ষোভ মিছিলগুলোর সামনে পুলিশ দাঁড়ালেও তেমন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি।

জানা গেছে, চট্টগ্রাম, সিলেট, বরিশাল, খুলনা ও রাজশাহীসহ অধিকাংশ স্থানে শান্তিপূর্ণভাবে মিছিল-সমাবেশ অনুষ্ঠিত হলেও সিরাজগঞ্জে এদিন পুলিশের সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন। বিএনপি নেতাকর্মীরা পুলিশের গাড়ি ও আওয়ামী লীগ নেতার বাসভবন এবং ক্লিনিক ও দোকানপাট ভাঙচুর করে। নাটোরসহ কয়েক জায়গায় পুলিশের বাধার মুখে পড়ে বিক্ষোভ মিছিল। ময়মনসিংহে বাধার মুখে ককটেল ফাটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করে কর্মীরা। ঝালকাঠিতে পুলিশের বাধায় পণ্ড হয়ে যায় বিক্ষোভ সমাবেশ। গাজীপুরে নেতাকর্মীদের লাঠিপেটা করে পুলিশ। দশমিনায় সারা দিন অবরুদ্ধ ছিলো বিএনপির কার্যালয়। সিরাজগঞ্জে বিকেলে দলীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে শহরে মিছিল বের করে জেলা বিএনপি। মিছিলটি বড়বাজার এলাকায় পৌঁছে পুলিশের সদর সার্কেল অফিসারের পিকআপ ভ্যান ভাঙচুর করে। এ সময় মিছিলকারীদের একটি অংশ এসএস রোডে আওয়ামী লীগ নেতা প্রফেসর হাবিবে মিল্লাত মুন্নার বাসভবন ও পলি ক্লিনিক ভাঙচুর করে। ভাঙচুরে বাধা দিলে সংঘর্ষ বাধে। খবর পেয়ে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ও ৱ্যাব ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করলে সংঘর্ষ এসএস রোড ছাড়িয়ে শহরের চামড়াপট্টি, রেলগেট ও মালসাপাড়া এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী শতাধিক রাউন্ড টিয়ারসেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। সংঘর্ষে ২ পুলিশ সদস্যসহ অন্তত ৩০ জন আহত হন। এ ঘটনার প্রতিবাদে সন্ধ্যার পর আওয়ামী লীগ শহরে মিছিল করে এবং বিএনপি রেলগেট মোড়ে টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করে।

গতকাল রোববার চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির উদ্যোগে দেশব্যাপি কেন্দ্রীয়  কর্মসূচির অংশ হিসেবে বেলা ৪টার দিকে এক বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি দলীয় কার্যালয় থেকে বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শহীদ হাসান চত্বরে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা শহরে মিছিল সমাবেশসহ সকল প্রকার রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড নিষিদ্ধ করায় তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয় এবং সকল দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে ১৮ দলীয় জোট নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি মেনে নেয়ার আহবান জানিয়ে জেলা বিএনপির সহসভাপতি এম.জেনারেল ইসলামের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির যুগ্মসম্পাদক অ্যাড. ওয়াহেদুজ্জামান বুলা, যুগ্মসম্পাদক শেখ সাইফুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক অ্যাড. আ.স.ম আব্দুর রউফ, সদর থানা বিএনপির সভাপতি অ্যাড. শামীম রেজা ডালিম, সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর মন্টু, সদর পৌর বিএনপির সভাপতি শহিদুল ইসলাম রতন, সাধারণ সম্পাদক মজিবুল হক মালিক মজু, আলমডাঙ্গা থানা বিএনপির সহসভাপতি আব্দুল জব্বার, আলমডাঙ্গা পৌর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইসরাফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আজিজুর রহমান পিন্টু, দামুড়হুদা থানা বিএনপির সভাপতি লিয়াকত আলী শাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক মোকাররম হোসেন প্রমুখ।

আমঝুপি প্রতিনিধি জানিয়েছেন, রাজধানী ঢাকায় সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধ করার প্রতিবাদে গতকাল রোববার বিকেল ৪টায় মেহেরপুর সদর উপজেলার বারাদী বাজার প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। মিছিলের নেতৃত্ব দেন মেহেরপুর-১ আসনের সাবেক এমপি বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মাসুদ অরুন। এর আগে সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সভাপতি মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আমজাদ হোসেন। প্রধান বক্তা হিসেবে বক্তব্য রাখেন মেহেরপুর-১ আসনের সাবেক এমপি বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য মাসুদ অরুন। জেলা বিএনপির সহসভাপতি এমএ হালিমের সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহসভাপতি আব্দুর রহমান, পৌর বিএনপির সভাপতি জাহাঙ্গীর বিশ্বাস, জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক শেখ সাঈদ আহমেদ, গাংনী উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান বাবলু, জেলা বিএনপির যুগ্মসম্পাদক এমএকে খায়রুল বাসার, সদর উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও আমঝুপি ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম, জেলা বিএনপির দপ্তর সম্পাদক আব্দুর রহিম, অর্থ সম্পাদক আরজুল্লাহ মাস্টার বাবলু, বিএনপি নেতা আবু সুফিয়ান হাবু প্রমুখ। এছাড়াও পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী সদর উপজেলার দরবেশপুর হাট ও আমঝুপি বাজারে পৃথক পৃথক পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় প্রধান অতিথি আমজাদ হোসেন এমপি তার বক্তব্যে বলেন, নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে। অনুষ্ঠানের প্রধান বক্তা সাবেক এমপি মাসুদ অরুন বলেন, রাজধানীতে সভা সমাবেশ বন্ধ করে সরকারের শেষ রক্ষা হবে না। ৬৮ হাজার গ্রাম বাংলার মানুষ আওয়ামী সরকারের দুঃশাসনের বিরুদ্ধে রাজধানী ঘেরাও করবে। তিনি আরো বলেন, সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত মেহেরপুর বিএনপির নেতাকর্মীরা বেগম খালেদা জিয়ার নির্দেশে রাজপথে সংগ্রাম চালিয়ে যাবে।

ঝিনাইদহ অফিস জানিয়েছে, রাজধানীতে সভাসমাবেশ নিষিদ্ধসহ ১৪৪ ধারা জারির প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঝিনাইদহে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বিএনপি। গতকাল রোববার বেলা ১২টার দিকে এ কর্মসূচি শুরু করে জেলা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা বিএনপির সভাপতি মসিউর রহমানের নেতৃত্বে শহরের কেপি বসু সড়ক থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হয়ে শহর প্রদক্ষিণ শেষে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশ করে মিছিলকারীরা। সমাবেশে বিএনপি নেতা মসিউর রহমান, অ্যাড.এমএ মজিদ ও জাহিদুজ্জমান মনা বক্তব্য রাখেন। সমাবেশে বক্তারা বলেন, ঢাকা শহরে মিছিল মিটিং বন্ধ করে বর্তমান সরকার বাক-স্বাধীনতা হরন করেছে। এ সরকার মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও প্রকৃত অর্থে স্বৈরাচারি আচরণ করছে জনগণের সাথে। এদিকে জেলার হরিণাকুণ্ডু উপজেলায় বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে উপজেলা বিএনপি।

কুষ্টিয়ায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বিএনপি। গতকাল রোববার বিকেল ৫টার দিকে কুষ্টিয়া জেলা বিএনপির উদ্যোগে একটি বিক্ষোভ মিছিল শহরের শিল্পকলা একাডেমী থেকে বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে বড় বাজার রেলগেট এলাকায় গিয়ে সেখানে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা বিএনপির সভাপতি সৈয়দ মেহেদী আহমেদ রুমীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সোহরাব উদ্দিন, জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অধ্যাপক শহিদুল ইসলাম, সাবেক সংসদ সদস্য রেজা আহমেদ বাচ্চু প্রমুখ।

অপরদিকে, চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপি একাংশের দফতর সম্পাদক আবু আলা সামসুজ্জামান স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানান, সারা দেশব্যাপি কারাবন্দি নেতাকর্মীদের মুক্তি ও সরকার কর্তৃক গণতান্ত্রিক অধিকার খর্ব করে ঢাকা মহানগরে সভাসমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারির প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপি একাংশ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে। বিকেল ৫টার দিকে কোর্টমোড় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কোর্টমোড়ে এসে সমাবেশ করে। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি অ্যাড. শাহাজান মুকুল। উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সহসভাপতি আব্দুল হাকিম হিরু, যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হক পল্টু, জেলা মহিলাদলের সভানেত্রী রউফুন নাহার রীনা, ক্রীড়া সম্পাদক আব্দুস সালাম, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের আহ্বায়ক হাজি আব্দুল মান্নান, জেলা ওলামাদলের আহ্বায়ক মাও. আনোয়ার হোসেন, আলুকদিয়া ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি ইবাদত হোসেন, শঙ্করচন্দ্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক রমজান আলী, পদ্মাবিলা ইউনিয়ন বিএনপি সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান কাজল, প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে বলেন, এ জালেম সরকার সভাসমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারী করে গণতান্ত্রিক অধিকার হরন করেছে।

মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, ঢাকায় সভা-সমাবেশ নিষিদ্ধকরণ ও মৌলিক অধিকার হরণের প্রতিবাদে মেহেরপুর জেলা বিএনপির শাহাজীপাড়াস্থ কার্যালয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়েছে। গতকাল রোববার বিকেলে মেহেরপুর জেলা বিএনপির যুগ্মআহ্বায়ক আনছার-উল হকের সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপি নেতা কর্ণেল (অবসরপ্রাপ্ত) সামছুল ইসলাম সামস। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পৌর বিএনপির সভাপতি আলমগীর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুল হক কালু, জেলা জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. মোখলেছুর রহমান স্বপন, সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি বিএনপি নেতা মজিবুল হক খান চৌধুরী হেলাল, জেলা যুবদলের আহ্বায়ক জহুরুল ইসলাম বড়বাবু, যুগ্মআহ্বায়ক প্রভাষক ফয়েজ মোহাম্মদ, সদর উপজেলা যুবদলের সভাপতি হাসিবুজ্জামান স্বপন, সিনিয়র সহসভাপতি নূর তাজুল, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান মুকুল, মুজিবনগর উপজেলা যুবদলের সভাপতি গোলাম মহি হিরু, সাধারণ সম্পাদক আসাদুল ইসলাম, পৌর যুবদলের যুগ্ম সম্পাদক সামছুল আযম লিন্টু, যুবদল নেতা আজমল হোসেন মিন্টু, একরামূল হক একা, ইমন বিশ্বাস, জাহিদ খান, জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি মীর আলমগীর ইকবাল আলম, ছাত্রদল নেতা রনি, রিজভী, ইকবাল, কানন  প্রমুখ।

এদিকে চুয়াডাঙ্গা জেলা বিএনপির অর্থ বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করা হয়েছে। কোর্টমোড়স্থ কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে কোর্টচত্বর ট্রাফিক আইল্যাণ্ডের সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জেলা বিএনপির সাবেক সহসভাপতি আইনুর হোসেন পচা। প্রধান অতিথি ছিলেন, জেলা মৎস্যজীবীদলের সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক, সাধারণ সম্পাদক ওহিদুল ইসলাম ওহিদ, জেলা কৃষকদলের একাংশের সভাপতি হামিদুল ইসলাম নেতাজী, পৌর বিএনপির যুগ্মসাধারণ সম্পাদক আজাদুল ইসলাম আজাদ প্রমুখ।

জেলা বিএনপির অপর অংশ কলেজ রোডস্থ কার্যালয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা বিএনপির প্রচার সম্পাদক আব্দুল ওহাব মল্লিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সাংগঠনকি সম্পাদক সরদার আলী হোসেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন, জেলা বিএনপির সহপ্রচার সম্পাদক রেজাউল করিম মুকুট। বক্তব্য রাখেন, সদর উপজেলা বিএনপির সহসভাপতি মহাসিন আলী বিশ্বাস, যুবদল নেতা মফিজুর রহমান মনা, সৈয়দ শরীফুল আলম বিলাস ও মনিরুজ্জামান লিপটন প্রমুখ।

গাংনী প্রতিনিধি জানিয়েছেন, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে ও ঢাকায় সভাসমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে মেহেরপুর জেলা বিএনপির সহসভাপতি জাভেদ মাসুদ মিল্টনের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ১১টার দিকে বামন্দী বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে বিক্ষোভ শুরু হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে একই স্থানে সমাবেশের মধ্য দিয়ে শেষ হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন জাভেদ মাসুদ মিল্টন। উপস্থিত ছিলেন জেলা যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক মুরাদ আলী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জুলফিকার আলী ভুট্টো, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক বামন্দী ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আওয়াল, গাংনী পৌর জিয়া পরিষদের সভাপতি আহসান হাবিব বাবু, সাধারণ সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর সাহিদুল ইসলাম, উপজেলা শ্রমিকদলের সভাপতি গিয়াস উদ্দীন, ষোলটাকা ইউপি চেয়ারম্যান সাবদাল হোসেন কালু, রাইপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলফাজ উদ্দীন কালু, নারী নেত্রী নুরুন্নাহার, আব্দুল ওহাবন বুলবুল, জামাল উদ্দীন, হারুন-অর রশিদ বাচ্চু,  কাউছার আলী, চপল বিশ্বাস, শাহিবুল, আবির, হাসের ও তোহিদুল প্রমুখ।

হরিণাকুণ্ডু প্রতিনিধি জানিয়েছেন, নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে ছাড়া বাংলার মাটিতে কোনো নির্বাচন হতে দেয়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মসিউর রহমান। গতকাল রোববার বিকেল ৪টায় জটারখাল বাজারে হরিণাকুণ্ডুর জোড়াদাহ ইউনিয়ন বিএনপির আহ্বায়ক ডা. ফজলুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং যুগ্মআহ্বায়ক আমোদ আলীর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত জনসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দলের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মসিউর রহমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি আবুল হোসেন চেয়ারম্যান, জেলা বিএনপির যুগ্মসম্পাদক ও উপজেলা সেক্রেটারি অ্যাড. এমএ মজিদ চেয়ারম্যান, পৌর সেক্রেটারি অনিসুর রহমান কাউন্সিলর, উপজেলা সহসভাপতি ডা. আবুল কাশেম, রবিউল ইসলাম এবং সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল হাসান মাস্টার। বক্তব্য রাখেন দপ্তর সম্পাদক তাইজাল হোসেন, আব্দুস সামাদ, আকতারুজ্জামান প্রমুখ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *