মানবপাচার : থাই সেনা কর্মকর্তার আত্মসমর্পণ

মাথাভাঙ্গা মনিটর: মানবপাচারের জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হওয়ার পর আত্মসমর্পণ করেছেন থাইল্যান্ডের এক শীর্ষ সেনা কর্মকর্তা। গতকাল বুধবার গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, লেফটেন্যান্ট জেনারেল মানাস কোঙপাইন নামের ওই সেনা কর্মকর্তাকে এর আগে একই অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গত মে মাসে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় মানবপাচারের বিষয়ে তদন্ত শুরুর পর এই প্রথম কোনো সেনা কর্মকর্তা গ্রেফতার হলেন। মানবপাচারসহ  থাই সেনার ওই ঊর্ধ্বতন উপদেষ্টার বিরুদ্ধে আটক ও মুক্তিপণ চাওয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।

থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ার সীমান্তের ক্যাম্প থেকে কবর অসংখ্য মানুষের লাশ উদ্ধার করার পর স্থানীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও সরকারি কর্মকর্তাসহ অর্ধশতাধিক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। উদ্ধার হওয়া লাশগুলো মিয়ানমারের রোহিঙ্গাদের বলে ধারণা করা হচ্ছে।  থাইল্যান্ডের জাতীয় পুলিশ প্রধান জেনারেল সোমিয়ট পোম্পানমাউং বুধবার বলেছেন, মানাস সব অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। চলতি সপ্তাহে মানাসের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হওয়ার আগে মানবপাচার সিন্ডিকেটের সাথে থাই সেনাদের সম্পৃক্ততার কথা অস্বীকার করেছেন। এর আগে মানাসের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ারা জারি হওয়ার পর তাকে সেনাবাহিনী থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। মানবপাচারের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ এনে তার বিরুদ্ধে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *