মাথাভাঙ্গা ও ভৈরব খাল-বিল আর মুক্ত জলাশয়ে দেশীয় মাছের দেখা মিলতে শুরু করেছে

দামুড়হুদায় দেশীয় প্রজাতির মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি

তাছির আহমেদ: শীতের শুরুতেই চুয়াডাঙ্গা জেলার বিশেষ নদ-নদী মাথাভাঙ্গা ও ভৈরব নদে এবং মুক্ত উন্মুক্ত জলাশয়গুলোতে প্রচুর দেশীয় মাছের দেখা মিলতে শুরু করেছে। বিগত বছরগুলোর তুলনায় এবার দেশীয় মাছের উৎপাদন অনেকাংশে বৃদ্ধি পাওয়ায় এ পেশায় জড়িত ব্যক্তিদের ভাগ্যের চাকায় দক্ষিণা বাতাস লেগেছে।

জানা গেছে, প্রায় ১ হাজার ৪৫০ হেক্টর জলকর রয়েছে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলায়। এর মধ্যে খাল-বিল, হাওড়-বাওড়, নদ-নদীসহ মুক্ত জলাশয়গুলো অন্যতম। এ সমস্ত মুক্ত জলাশয়গুলোতে নানা প্রতিকূলতার ফাঁদে পড়ে  দেশীয় প্রজাতির মাছ প্রায় শুন্য হতে চলেছিলো। শুন্যের কোঁঠায় বেশি ছিলো মায়া, ঝায়া, ভেদা, তপসে, খয়রা, লালখলিশা পাবদা, গোরকুতে আর লালচাদ। সঙ্কটের মধ্যে ছিলো টেংরা, ফলুই, চেলাপুটি, সরপুটি, তিতপুটি শিং, মাগুর, কৈ, বেলে, শৈল, গজাড়, টাকি, বোয়াল, বাইন, পাকাল, তোড়াসহ বিভিন্ন প্রজাতির মাছ। উপজেলার হাটবাজারে এসব প্রজাতির মাছ তেমন একটা চোখে পড়তো না। কিন্তু এ বছর দামুড়হুদার বাজারে প্রতিদিন সকালে প্রচুর দেশীয় প্রজাতির মাছ আসতে দেখে অনেকেই অবাক হচ্ছে।

মন্তব্য করতে গিয়ে এলাকাবাসী বলে, এক সময়ের চিরচেনা এ মাছগুলো হয়ে পড়ছিলো খুব অচেনা। মফস্বলের হাট-বাজারগুলোতে মাঝে-মধ্যে মাথাভাঙ্গা নদী থেকে কিছু আমদানি হতো, তাও আবার সাথে সাথে চলে যায় পয়সাওয়ালা ভাগ্যবানদের বাজারের ব্যাগে। এসব মাছের দাম অত্যন্ত চড়া হওয়ায় সাধারণ মানুষদের কপালে জুটতো না। দেশীয় প্রজাতির প্রাকৃতিক মাছের বংশবৃদ্ধির হার আশঙ্কাজনক হ্রাস পাওয়ায় উপজেলা মৎস্য বিভাগের টনক নড়ে।

এ অবস্থায় মৎস্য সংরক্ষণ আইনে নদ-নদী, খাল-বিলসহ মুক্ত জলাশয়গুলোতে দেশীয় প্রজাতির মাছ রক্ষার্থে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করার কারণে উপজেলার জলাশয়গুলোতে দেশীয় প্রজাতির মাছ অনেকাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। দামুড়হুদা হাট-বাজারের মাছব্যবসায়ী আব্দুল কাদের মিয়া ও মৎস শিকারি রফিকুল ইসলাম বলেন, খাল-বিল, নদী-নালাসহ মুক্ত জলাশয়গুলোতে পানিশুন্য হয়ে পড়ায় দেশী মাছের উৎপাদন কমতে শুরু করেছিলো। তাই আমরা বেঁচে থাকার তাগিদে বিদেশি জাতের মাছ চাষের ওপর পুরোপুরি নির্ভরশীল হয়ে পড়েছিলাম। কিন্তু এ বছর পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাতের কারণে নদ-নদী, খাল-বিলসহ মুক্ত জলাশয়গুলো থেকে দেশীয় প্রজাতির মাছ বাজারে আসতে শুরু করেছে। দেখা মিলছে নানা প্রজাতির দেশীয় মাছ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *