ভুয়া সার্জনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অর্থদণ্ডাদেশ : মুচলেকা দিয়ে মুক্ত তিন

আলমডাঙ্গা হাটবোয়ালিয়া জনসেবা ক্লিনিকে অপারেশনের সময় তর্কে জড়িয়ে আলী ডাক্তারের ভোঁ-দৌড় : তাড়িয়ে আটক

 

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আলমডাঙ্গা হাটবোয়ালিয়ার জনসেবা ক্লিনিকে অপারেশন করার সময় তর্কে জড়িয়ে দৌড়ে পালানোর সময় পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে ভুয়া সার্জন আশরাফ আলী। তাকে ধরে পুলিশ ভ্রাম্যমাণ আদালতে হাজির করলে আদালত অর্থদণ্ডাদেশ দেন। একই সময় দামুড়হুদা হিজলগাড়ির এসএসসি পাস ডাক্তার কাম সাংবাদিক এমএআর জুয়েল, ঈশ্বরচন্দ্রপুরের সেবা ক্লিনিকের হাতুড়ে ডাক্তার পান্না ও ওরিয়ন কোম্পানির প্রতিনিধি ইমরানকে পুলিশ গ্রেফতার করে। পরে মুচলেকা নিয়ে এদেরকে ছেড়ে দেয়া হয়। সার্জন বলে পরিচয় দেয়া আশরাফ আলী জীবননগর শাপলাকলিপাড়ার মৃত আজিম উদ্দীনের ছেলে।

জানা গেছে, আলমডাঙ্গা হাটবোয়ালিয়া বাজারে অবস্থিত জনসেবা ক্লিনিকে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় দামুড়হুদার হিজলগাড়ি বাজারের সেবা ক্লিনিকের ডাক্তার কাম সাংবাদিক এমএআর জুয়েল, অপারেশনের সময় ঈশ্বরচন্দ্রপুরের হারুন-অর-রশিদ পান্না, ও ওরিয়ন কোম্পানির প্রতিনিধি ইমরান হোসেন উপস্থিত হন। তারা সেখানে উপস্থিত হয়েই সরাসরি অপারেশন থিয়েটারে ঢুকে পড়েন। এসময় এক রোগীর অপারেশন করছিলেন জীবননগর শহরের শাপলাকলিপাড়ার মৃত আজিম উদ্দিনের ছেলে আশরাফ আলী ওরফে আলী ডাক্তার। আশরাফ আলীকে হাটবোয়ালিয়া এলাকার মানুষ বিশিষ্ট সার্জন আলী ডাক্তার নামেই চেনে। ওই সময় তারা লেনদেন নিয়ে আলী ডাক্তারের সাথে বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তারা আলী ডাক্তারকে ভুয়া ডাক্তার আখ্যায়িত করেন। অপারেশন থিয়েটারে হট্টগোল দেখে ক্ষিপ্ত হয়ে উঠেন রোগীর আত্মীয়-স্বজন। তারা দামুড়হুদা থেকে আসা ৩ ব্যক্তিকে আটকে রাখেন। বিষয়টি শেষ পর্যন্ত থানা পুলিশ পর্যন্ত গড়ায়। প্রথমে হাটবোয়ালিয়া ফাঁড়ি পুলিশ ঘটনাস্থলে ছুটে যান। পুলিশ আসতে দেখে সার্জন পরিচয়দানকারী আলী ডাক্তার অপারেশন থিয়েটারে রোগী ফেলে রেখেই দৌঁড়ে পালিয়ে যান। সে সময় আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ রফিকুল ইসলাম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে উপস্থিত হন। তিনি পুলিশকে নির্দেশ দেন পালিয়ে যাওয়া আলী ডাক্তারকে মাঠ থেকে ধরে আনতে। পুলিশ মাঠ থেকে কথিত সার্জন আলী ডাক্তারকে তাড়িয়ে ধরে নিয়ে আসেন। পুলিশ কথিত সার্জন আলী ডাক্তার ও দামুড়হুদার ৩ জনকে গ্রেফতার করে আলমডাঙ্গা উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহিনুজ্জামানকে অবহিত করেন। পুলিশের উপর্যুপরি জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে আসে অবিশ্বাস্য তথ্য। আসলে তিনি কোনো মেডিকেল কলেজ থেকে পাস করে ডাক্তার হননি। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহিনুজ্জামান ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে কথিত সার্জন আলী ডাক্তারকে ৩৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। অনাদায়ে ৩মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ডের আদেশ দেন। জরিমানার টাকা কথিত ডাক্তার আলীর পক্ষে হাটবোয়ালিয়া এলাকার আওয়ামী লীগের কয়েক নেতা রাতেই পরিশোধ করেছেন বলে জানা গেছে। জরিমানার টাকা পরিশোধ শেষে কথিত সার্জন আলী ডাক্তার আর হাটবোয়ালিয়ার জনসেবা ক্লিনিকে যাবেন না মর্মে পুলিশের নিকট লিখিত মুচলেকা দিয়ে মুক্ত হয়েছেন।

এদিকে, জিজ্ঞাসাবাদে ডাক্তার কাম সাংবাদিক জুয়েল (সমগ্র বাংলাদেশ) সম্পর্কেও পুলিশ চমকপ্রদ তথ্য পেয়েছে বলে জানিয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে হিজলগাড়ির আলী কদরের ছেলে জুয়েল এসএসসি পাস। তিনি হিজলগাড়ির জয়িতা ডায়াগনস্টিক সেন্টারের কথিত প্যাথলজিস্ট। এছাড়া তিনি হিজলগাড়ির সেবা ক্লিনিকে রোগীর চিকিৎসা করেন। তিনি খুলনা থেকে প্রকাশিত সরেজমিন পত্রিকার বিশেষ প্রতিনিধি (সমগ্র বাংলাদেশ)। পুলিশের অভিযোগ সাংবাদিকতার দাপট দেখিয়ে তিনি অবৈধভাবে বিভিন্ন ক্লিনিক ও ডাক্তারদের নিকট থেকে সুবিধা আদায় করে থাকেন। ডাক্তার কাম সাংবাদিক জুয়েল, পান্না ও ইমরান পূর্ব থেকেই জানতো কথিত সার্জন আলী একজন মামুলি হাতুড়ে ডাক্তার। ইতঃপূর্বেও সে জীবননগর থেকে এনএসআই‘র হাতে একবার ধরা পড়েছিলো। হাটবোয়ালিয়ার জনসেবা ক্লিনিকে সে বর্তমানে অপারেশন করে থাকে এমন সংবাদ পেয়ে তারা অবৈধ সুবিধা নিতে গতকাল সন্ধ্যায় জনসেবা ক্লিনিকে গিয়েছিলো।

এদিকে জনসেবা ক্লিনিকে অভিযানকালে কথিত ডাক্তার আলীর পরপর ক্লিনিকের মালিক খবির উদ্দীন ও সিরাজুল ইসলামও পালিয়ে যান বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে। এলাকার একাধিক সূত্র জানিয়েছে, আনন্দধামের সারব্যবসায়ী খবির উদ্দিন প্রথমে কয়েক বছর পূর্বে আলমডাঙ্গা শহরের আনন্দধামে জনসেবা ক্লিনিক প্রতিষ্ঠা করেন। সুবিধা না পেয়ে এরপর হাউসপুর, পরে জামজামিতে এবং সর্বশেষ তা হাটবোয়ালিয়া বাজারে স্থানান্তরিত করেন। প্রত্যেক স্থানে তিনি চিকিৎসা সেবার নামে নানা কাহিনি জন্ম দিয়েছেন। বর্তমানে আলমডাঙ্গার কনা নার্সিং হোমের ওয়ার্ডবয় আলমডাঙ্গা কোর্টপাড়ার সিরাজুল ইসলামকে নিয়ে হাটবোয়ালিয়া এলাকার কিছু রাজনৈতিক নেতাকে ম্যানেজ করে জমজমাট ক্লিনিক ব্যবসা ফেঁদে বসেছেন বলে স্থানীয়দের অভিযোগ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *