বৈরুতে ইরানি দূতাবাসে জঙ্গি হামলা : নিহত ২৫

মাথাভাঙ্গা মনিটর: লেবাননের রাজধানী বৈরুতে ইরানি দূতাবাস লক্ষ্য করে গতকাল মঙ্গলবার জঙ্গি হামলা চালানো হয়েছে। এতে কমপক্ষে ২৫ জন নিহত এবং দেড় শতাধিক লোক আহত হয়েছে। এ হামলায় দূতাবাস প্রাঙ্গণের অন্তত ছয়টি ভবন ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে লেবাননে নিযুক্ত ইরানি কালচারাল কাউন্সিলর ইব্রাহিম আনসারি রয়েছেন। দূতাবাসের একজন ইরানি গার্ডও হামলায় নিহত হয়েছে। বিপুল সংখ্যায় লোক আহত হবার কারণে কর্তৃপক্ষ আশঙ্কা করছে মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

আবদুল্লাহ আজ্জাম ব্রিগেডস নামে পরিচিত লেবানন ভিত্তিক আল-কায়েদা সংশ্লিষ্ট একটি গ্রুপ এ হামলার দায় স্বীকার করেছে। দক্ষিণ বৈরুতের ইরানি মিশনে দু দফা আত্মঘাতী হামলা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা। তবে ইরানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ হামলার কঠোর নিন্দা জানিয়ে এর পেছনে ইসরায়েল দায়ী বলে অভিযোগ করেছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এমন জঘন্য কাজ ইসরায়েল ও তার দোসররাই করতে পারে।

বৈরুতের দক্ষিণাংশে ইরানি দূতাবাসটি অবস্থিত। সিসি ক্যামেরায় দেখা গেছে এক ব্যক্তিকে বিস্ফোরক বেল্ট পরে দূতাবাসের বাইরের দেয়ালের দিকে দৌঁড়ে যাচ্ছেন। এরপরই তিনি আত্মঘাতী বিস্ফোরণ ঘটান। আর দ্বিতীয়টি ছিলো গাড়িবোমা হামলা। গাড়িটি দূতাবাস কমপ্লেক্স থেকে দুটো ভবন পরে দাঁড় করিয়ে রাখা ছিলো। কয়েক মিনিটের ব্যবধানে হামলা দুটি চালানো হয়।

আবদুল্লাহ আজ্জাম ব্রিগেডস এর ধর্মীয় পথপ্রদর্শক শেখ শিরাজেদ্দিন জুরাইকাত ঘোষণা দেন, লেবাননের দু সুন্নি বীর এ আত্মত্যাগী অভিযান চালিয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এখানে সেখানে পড়ে ছিলো ছিন্ন বিচ্ছিন্ন অঙ্গ প্রত্যঙ্গ। এতে ভবনগুলোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এবং ঘটনাস্থলে দুমড়ানো মোচড়ানো কয়েকটি গাড়ি পড়ে থাকতে দেখা গেছে। দুটো মার্সিডিজ গাড়ি একেবারে ধ্বংস হয়ে গেছে। লেবাননের শিয়া রাজনৈতিক দল ও বেসামরিক বাহিনী হিজবুল্লাহর প্রধান সমর্থক ইরান। লেবাননের প্রতিবেশী সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে দেশটির শিয়া প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের পক্ষ নিয়ে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে হিজবুল্লাহর গেরিলারা। সিরিয়ার প্রধানত শিয়া-সুন্নি গৃহযুদ্ধের কারণে লেবাননের শিয়া-সুন্নি সামপ্রদায়িক উত্তেজনাও তীব্র আকার ধারণ করেছে। দক্ষিণ বৈরুতের যে অংশে ইরানি দূতাবাসের অবস্থান তা হিজবুল্লাহ নিয়ন্ত্রিত এলাকায় অবস্থিত।

Leave a comment

Your email address will not be published.