বিশ্ব টুকিটাকি : ভারতের রাজস্থানে সোয়াইন ফ্লুতে ১১জনের মৃত্যু

ভারতের রাজস্থানে সোয়াইন ফ্লুতে ১১জনের মৃত্যু
মাথাভাঙ্গা মনিটর: ভারতের রাজস্থানে সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়ে চলতি বছর ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। স্বাস্থ্য বিভাগের একজন কর্মকর্তা বলেন, চলতি বছরের শুরু থেকে জানুয়ারির ১৯ তারিখ পর্যন্ত রাজ্যটিতে সোয়াইন ফ্লুতে ১১ জন মারা গেছেন। ৫৪জনের শরীরে এই ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। জানা গেছে, জয়পুরে সর্বোচ্চ পাঁচজন, বিকানারে দুইজন এবং আজমির, সিকার, ঝুনঝুনু এবং কোটাতে একজন করে মারা গেছেন। আর এই ফ্লুতে সংক্রামিত ৫৪জনের মধ্যে ৩২জন জয়পুরের, ছয়জন কোটা এবং বাকিরা অন্যান্য শহরের। ২০১৫ সালে রাজ্যটিতে সোয়াইন ফ্লু মারাত্মক আকার ধারণ করেছিলো। ৬,৮০০জন ব্যক্তি এতে আক্রান্ত হন এবং ৪৬৮জন মারা যান। গেলো বছর ভারতজুড়ে ৩৩ হাজার মানুষ সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হয়েছিলেন। এদের মধ্যে মৃত্যুবরণ করেছেন ১,৯৯৪ জন। সোয়াইন ফ্লুর জন্য দায়ী এইচ১এন১ ভাইরাস। ২০০৯ সালে প্রথম মেক্সিকোয় এ ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটে দ্রুতই ছড়িয়ে পড়ে গোটা বিশ্বে। সোয়াইন ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গসমূহ অন্যান্য ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গের মতই। সোয়াইন ফ্লুতে আক্রান্ত হওয়ার উপসর্গের মধ্যে জ্বর হওয়া, মাথা ব্যথা, গলা ও শরীর ব্যথা, শ্বাস কষ্ট, ক্ষুদামন্দা ও আলস্যবোধ করা, ওজন কমে যাওয়া ইত্যাদি অন্যতম।

কাবুলে আত্মঘাতী হামলায় সাত টেলিভিশনকর্মী নিহত
মাথাভাঙ্গা মনিটর: আফগানিস্তানের জনপ্রিয় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল টোলো টিভির ৭ কর্মী রাজধানী কাবুলে আত্মঘাতী গাড়িবোমায় নিহত হয়েছেন। বিবিসি বলছে, গত বুধবার টেলিভিশনকর্মীদের বহনকারী বাসটি লক্ষ্য করে চালানো ওই গাড়িবোমা হামলায় আরো অন্ততপক্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে পথচারীরাও রয়েছেন। এক ট্যুইটার বার্তায় টোলো টিভি বলছে, দুর্ভাগ্যজনকভাবে, আজকের সন্ত্রাসী হামলায় আমাদের ৭ কর্মীকে হারিয়েছি। তালেবান হামলায় দায় স্বীকার করেছে। গেলো বছর কুন্দুজ দখলমুক্ত করার জন্য লড়াই চলাকালে তালেবান জঙ্গিদের খুন, ধর্ষণ, অপহরণ এবং অন্যান্য নির্যাতনের ঘটনা নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করার পর উগ্রপন্থি গোষ্ঠীটি চ্যানেলটিকে হুমকি দিয়েছিলো। করেছিলো তালেবান। পরবর্তী সময়ে সরকারি বাহিনী তাদের হটিয়ে দেয়। কাজ শেষে টোলো ও এর মূল গণমাধ্যম সংস্থার কর্মীদের নিজ নিজ গন্তব্যে পৌঁছে দেয়ার সময় কাবুলের কেন্দ্রস্থলে বাসটিতে হামলা চালানো হয়। টোলো টিভি আফগানিস্তানের প্রথম ২৪ ঘণ্টা সংবাদ প্রচারের চ্যানেল, পাশাপাশি টোলোর একটি নিউজ ওয়েবসাইটও রয়েছে। এ দুটিই আফগানিস্তানের সবচেয়ে পরিচিতি সংবাদ উৎস। এই হামলাকে কাপুরুষ সন্ত্রাসীদের চালানো বর্বর হামলা মন্তব্য করে এর নিন্দা জানিয়েছেন আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ গনি। ২০০১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক অভিযানে তালেবান ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর থেকে কোনো আফগান গণমাধ্যম সংস্থায় চালানো সবচেয়ে বড় সন্ত্রাসী হামলা এটি।

উষ্ণতায় অতীতের সব রেকর্ড ভেঙেছে ২০১৫
মাথাভাঙ্গা মনিটর: গেলো বছর বিশ্বের গড় তাপমাত্রা উষ্ণতার সব রেকর্ড ভেঙেছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের দুটি সরকারি সংস্থা। গত বুধবার যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা এবং দেশটির সমুদ্র ও বায়ুমণ্ডল সংক্রান্ত প্রশাসন নিজেদের বার্ষিক প্রতিবেদনের সংক্ষিপ্তসারে এ কথা জানিয়েছে। একই দিন যুক্তরাজ্যের আবহাওয়া দফতর এবং পূর্ব অ্যাঞ্জলিয়া আবহাওয়া গবেষণা ইউনিটের প্রকাশিত উপাত্তও যুক্তরাষ্ট্রের সংস্থা দুটোর পাওয়া তথ্য নিশ্চিত করেছে। বৈশ্বিক আবহাওয়ার স্বাভাবিক গতি নষ্ট করে দেয়া উষ্ণতাকে থামাতে গ্রিন হাউস গ্যাসের নির্গমন ব্যাপকভাবে কমানো দরকার, বলছেন বিজ্ঞানীরা। বুধবার প্রকাশিত তথ্য-উপাত্তে গ্রিন হাউস গ্যাস হ্রাস করার চাপ আরো বাড়লো। যুক্তরাষ্ট্রের সংস্থা দুটির প্রকাশিত তথ্য দেখিয়েছে, ২০১৫ সালে বিশ্বের ভূভাগে ও সমুদ্রপৃষ্ঠের গড় তাপমাত্রা ছিলো দশমিক নয় শূন্য সেলসিয়াস (এক দশমিক ৬২ ডিগ্রি ফারেনহাইট) । এই মান বিংশ শতকের গড় তাপামাত্রা থেকেও বেশি এবং ২০১৪ সালের রেকর্ড ভাঙা তাপমাত্রা দশমিক এক ছয় সেলসিয়াস (দশমিক দুই নয় ফারেনহাইট) থেকেও অনেক বেশি। এই নিয়ে চলতি শতাব্দিতে চতুর্থবারের মতো বৈশ্বিক তাপমাত্রার রেকর্ড হলো বলে জানিয়েছে সংস্থা দুটি। মহাকাশ গবেষণায় নিয়োজিত নাসার গডার্ড ইনস্টিটিউটের পরিচালক গ্যাভিন স্মিথ বলেন, বড় এবং লম্বা সময় ধরে উষ্ণায়ন প্রবণতার জন্যও ২০১৫ উল্লেখযোগ্য। ২০১৫ সালে উষ্ণতার এই হঠাৎ বৃদ্ধির জন্য এল নিনোও আংশিক দায়ী। এল নিনো প্রশান্ত মহাসগারের আবহাওয়ার একটি স্বাভাবিক চক্র, যা প্রতি ২ থেকে ৭ বছরে সমুদ্র পৃষ্ঠকে উষ্ণ করে তোলে। কিন্তু বিজ্ঞানীরা বলছেন, মানুষের কার্যকলাপ বিশেষ করে জীবাশ্ম জ্বালানি ব্যবহারই বিশ্বের উষ্ণতা দ্রুত বেড়ে যাওয়ার কারণ।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *