বাড়ি ছাড়তে হলো মওদুদকে

 

তাদেরও জনগণ এক কাপড়ে বিদায় করে দেবে : খালেদা জিয়া

স্টাফ রিপোর্টার: বিএনপি নেতা মওদুদ আহমদ ৪ দশক ধরে গুলশানের যে বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন, সর্বোচ্চ আদালতের রায়ের পর অভিযান চালিয়ে সেই বাড়ির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ।
রাজউকের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খন্দকার অলিউর রহমানের নেতৃত্বে গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে গুলশান এভিনিউয়ের ১৫৯ নম্বর হোল্ডিংয়ে ওই বাড়িতে অভিযান শুরু করে। এরপর রাজউকের একটি ট্রাক ও তিনটি পিকআপ ভ্যানে করে ওই বাড়ির মালপত্র মওদুদ ও তার এক আত্মীয়র মালিকানাধীন অন্য দুটি বাড়িতে সরিয়ে নেয়ার কাজ চলে। এই উচ্ছেদ অভিযান ঘিরে ওই বাড়ির সামনে নেয়া হয় কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। বিপুলসংখ্যক পুলিশ ও র‌্যাব সেখানে ছিলো; ছিলো জলকামান, প্রিজনভ্যান, সাঁজোয়া যান ও রাজউকের বুলডোজার। অলিউর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, এটা রাজউকের সম্পত্তি। দীর্ঘদিন ধরে তারা দখল করে রেখেছিলেন। আদালত আমাদের পক্ষে রায় দিয়েছেন। আমরা দখলমুক্ত করছি। অন্যদিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ ওই বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে বলেন, আমরা রাজনীতি করি বলে, বিরোধী দল করি বলেই কি আজকে এই অবস্থা? সরকারি দলের কেউ হলে আজকে এ রকম হতো? আজকে বিরোধী দল করি বলেই প্রতিহিংসার এই চরম দৃষ্টান্ত। তিনি বলেন, ‘আমি কী করবো কী করার আছে। রাতে ফুটপাতে শুয়ে থাকব, আর করার কী আছে? জোরের বিরুদ্ধে, বেআইনি শক্তির বিরুদ্ধে আমাদের মতো নাগরিকদের করার আর কী থাকে? ওই বাড়ির কর্মচারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মওদুদের স্ত্রী ও মেয়ে আছেন দেশের বাইরে। কেয়ারটেকার ও অন্যরা মিলেই জিনিসপত্র গাড়িতে তোলার জন্য কিছুটা গুছিয়ে দেন। একটি পিয়ানো, কাঠের একটি বড় সিন্দুক, অর্ধশতাধিক স্যুটকেস, কয়েক ডজন সোফা ও চেয়ার, বেশ কয়েকটি আলমারি, খাটসহ বিভিন্ন আসবাবপত্র, রেফ্রিজারেটর, শীতাতপ নিযন্ত্রণ যন্ত্রসহ গৃহস্থালির যাবতীয় সামগ্রী ট্রাক ও পিকআপে করে দফায় দফায় সরিয়ে নিতে দেখা যায়। এক বিঘা ১৩ কাঠা জমির ওপর ওই বাড়ির প্রকৃত মালিক ছিলেন পাকিস্তানি নাগরিক মো. এহসান। ১৯৬০ সালে তৎকালীন ডিআইটির কাছ থেকে তিনি ওই জায়গার মালিকানা পান। ১৯৬৫ সালে বাড়ির মালিকানার কাগজপত্র এহসানের স্ত্রী অস্ট্রিয়ার নাগরিক ইনজে মারিয়া প্লাজের নামে নিবন্ধন করা হয়। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে এহসান স্ত্রীসহ ঢাকা ত্যাগ  রেন। তারা আর ফিরে না আসায় ১৯৭২ সালে এটি পরিত্যক্ত সম্পত্তির তালিকাভুক্ত হয়। ওই বছরই মওদুদ ওই বাড়ির দখল নেন। কিন্তু ইনজে মারিয়া প্লাজের মৃত্যুর পর ‘ভুয়া’ আমমোক্তারনামা তৈরি করে মওদুদের ভাই মনজুর আহমদের নামে ওই বাড়ির দখল নেয়ার অভিযোগ এনে দুদক মামলা করলে চার বছর আগে শুরু হয় আইনি লড়াই।
মওদুদ সর্বোচ্চ আদালত পর্যন্ত গেলেও রায় তার বিপক্ষে যায়। বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য আপিলের রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন করলেও গত রোববার তা খারিজ হয়ে গেলে মওদুদের বাড়ি ছাড়া অনিবার্য হয়ে পড়ে।
ওই রায়ের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মওদুদ বলেছিলেন, দেশে কি আইন নাই? আমি আইনের আশ্রয় নেব। আদালতের আশ্রয় নেব। বাড়ি ছাড়ব না। অন্যদিকে অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছিলেন, মামলায় হেরে গিয়ে এ কথা বলাও দুঃখজনক। অবশ্যই বাড়ি ছাড়তে হবে। এর দুই দিনের মাথায় বুধবার দুপুরের দিকে ওই বাড়ির দখল বুঝে নিতে উচ্ছেদ অভিযান শুরু করে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ। গুলশান থানার ওসি আবু বকর সিদ্দিক, পরিদর্শক (তদন্ত) সালাউদ্দিন মিয়াসহ বেশ কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন সেখানে। অভিযান শুরুর কিছু সময় পর আইনজীবীর পোশাকে ওই বাড়ির সামনে হাজির হন ব্যারিস্টার মওদুদ। পরে ম্যাজিস্ট্রেটের অনুরোধে গেট থেকে সরে রাস্তার পাশে দাঁড়ান তিনি। বিগত চারদলীয় জোট সরকারের আইনমন্ত্রী মওদুদ বলেন, সুপ্রিম কোর্টে যে মামলা ছিলো সেটার নিষ্পত্তি হয়ে গেছে। কোনো আইন নেই যে এতো দিনের মধ্যে আপনাকে বাড়ি ছাড়তে হবে?… আজকে আদালতের কোনো অর্ডার আছে? তাদের (রাজউক) কোনো অর্ডার আছে? একটা বাড়িতে ঢুকে গেলো ! আমাদের দেশে কি আইন নেই? রাজউক কোনো নোটিশ ছাড়াই এ অভিযান চালাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেন সুপ্রিম কোর্টের এই আইনজীবী। এ বিষয়ে জানতে চাইলে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট অলিউর রহমান বলেন, এটা তো আমাদের সম্পত্তি। আদালত আমাদের পক্ষে রায় দিয়েছে। এটা কি উনার সম্পত্তি? নোটিস দেব কেন?
রাজউকের এই কর্মকর্তা বলেন, মওদুদ আহমদ এ বাড়ি দখলে রেখেছিলেন অবৈধভাবে। এখন রাজউক বিধি অনুযায়ী তার নিয়ন্ত্রণ নিচ্ছে। আপতত এটা তালাবদ্ধ থাকবে, পরে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব। উনার মালামাল তিনি যেখানে চেয়েছেন, সেখানে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খন্দকার মোশাররফ হোসেন ওই বাড়ির সামনে যান। চলে যাওয়ার আগে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আইনি বিষয় জানি না। আমরা জানি উনি ছিলেন। এখন দেখছি তাকে বের করে দেয়া হচ্ছে। মওদুদের জুনিয়র ব্যারিস্টার এহসানুর রহমান বলেন, আপাতত মালপত্রগুলো দুটো ফ্ল্যাটে রাখা হচ্ছে। গুলশানের ৮৪ নাম্বার রোডে একটি ফ্ল্যাট আছে, ওটা স্যারের নিজের ফ্ল্যাট। কিছু মালামাল ওখানে যাবে। আর কিছু যাবে ৫১ নাম্বার রোডের একটি ফ্ল্যাটে। সেটা স্যারের এক আত্মীয়র বাসা।

 

 

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *