নারী সহকর্মীকে স্পর্শ :জেনারেল বরখাস্ত

 

মাথাভাঙ্গা মনিটর:মেডিটেশনের সময় নিম্নপদস্থ এক নারী কর্মকর্তাকেআত্মাশুদ্ধিরজন্য স্পর্শ করে বরখাস্ত হয়েছেন ভারতীয় এক মেজর জেনারেল।সম্প্রতি তাকে দোষী সাব্যস্ত করে দেয়া আগের রায়ই বহাল রেখেছেন আদালত।শারীরিক স্পর্শ আত্মারশুদ্ধিরজন্য প্রয়োজনীয় নয় জানিয়ে আগের কোর্টমার্শালে মেজর জেনারেল অরুন কুমার লালকে দোষী সাব্যস্ত করে দেয়া রায় বহালরাখের মুম্বাইয়ের সামরিক আদালত।অরুন কুমার লাল ভারতীয় সেনাবাহিনীর ৩পদাতিক ডিভিশনের জিওসি ছিলেন। ধ্যানমগ্ন অবস্থায় অধস্তন নারী কর্মকর্তাকেআপত্তিকরভাবে শারীরিক স্পর্শের অভিযোগ করা হয় তার বিরুদ্ধে।এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১০ সালের ১৬ ডিসেম্বর সামরিক বাহিনীথেকে বরখাস্ত হন অরুন লাল। সোমবার তার আবেদনের শুনানির সময় বিচারক এয়ারমার্শাল ডি সি কুমারিয়া ও অবসরপ্রাপ্ত জেএইচ ভাটিয়ার বেঞ্চ আগের রায় বহালরাখলেও সাজা কিছুটা পরিমার্জিত করে ‘বরখাস্ত’ শব্দটির বদলে ‘সরিয়ে দেয়া’ কথাটি ব্যবহার করে।এ ব্যাপারে বিচারকরা যুক্তি দেখিয়ে বলেন, অরুনলালের মতো খুব ভালো পথে থাকা একজন মানুষ ক্ষণিকের বিচ্যুতিতে ভুল করেছেন।তাই তাকে পেনশনের অধিকার থেকে বঞ্চিত করাটা কঠোর সিদ্ধান্ত হয়ে যায়।আদালতেরপর্যসবেক্ষণে বলা হয়, অরুন লাল প্রায় ২০ বছর ধরে চেন্নাইয়ের শ্রী রামচন্দ্র মিশনে সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন পদমর্যা দার কর্মকর্তাদের গুরুহিসেবে ধ্যান শিক্ষা দিয়ে এসেছেন। শুধু ক্যাপ্টেন নিশা সিং (ছদ্ম নাম) ছাড়াএই ২০ বছরে তার বিরুদ্ধে কেউ কোনো অভিযোগ করেনি। এছাড়া সেনাবাহিনীতে ৩৬বছরের কাজের অভিজ্ঞতা রয়েছে তার।২০০৬ সালে জিওসির দায়িত্বে আসেনঅরুন কুমার লাল। সে সময় মাত্র আড়াই বছর সামরিক বাহিনীতে কাজ করেন ক্যাপ্টেননিশা সিং। ঘটনাটি ঘটে পরের বছরই।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *