নারায়ণগঞ্জে সাত খুনের ঘটনায়গণশুনানি করবে তদন্ত কমিটি

 

স্টাফ রিপোর্টার: প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম অ্যাড. চন্দনকুমারসহ নারায়ণগঞ্জে সাতজনকে অপহরণ পরবর্তী হত্যার ঘটনায় হাইকোর্টেরনির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটি আগামী ১২ ও ১৫ মে  গণশুনানি করবে। অপরদিকে, গতকাল তদন্ত কমিটি নিহত ৭ জনের পরিবারের সদস্যদের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করেছে।

এদিকে, বহুল আলোচিত সাত হত্যামামলার প্রধান আসামি নুর হোসেন ও ২নং আসামিইয়াছিন মিয়াকে বহিষ্কার করা হয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগ থেকে। গতকালসংগঠনের এক বর্ধিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়া নুর হোসেনের দুসহযোগীকে গতকাল নোয়াখালী থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জে সাতজনকেঅপহরণ পরবর্তী হত্যার ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটি আগামী ১২ ও ১৫ মে  গণশুনানিকরবে। নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ওইদিন সকাল ১০টায় ওই গণশুনানিশুরু হবে। এতে যে কেউ সাক্ষ্য দিতে পারবেন। শনিবার তদন্ত কমিটির সদস্য সচিবও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব আবুল কাশেম মো. মহিউদ্দিন গণমাধ্যমকে এতথ্য জানিয়েছেন। গণশুনানিতে অংশ নিতে সাক্ষ্য দিতে আগ্রহী ব্যক্তিদেরনির্ধারিত তারিখে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আসতে অনুরোধ জানানোহয়েছে।

এদিকে নারায়ণগঞ্জেসাতজনকে হত্যার ঘটনায় হাইকোর্টের নির্দেশে গঠিত তদন্ত কমিটি শনিবার নিহতব্যক্তিদের স্বজনদের সাক্ষ্য গ্রহণ করেছে। সকাল সাড়ে ১০টায় নারায়ণগঞ্জ জেলাপ্রশাসকের কার্যালয়ে এ সাক্ষ্য নেয়া শুরু হয়। এসময় তদন্ত কমিটিরচেয়ারম্যান জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. শাহজাহান আলী মোল্লা, সদস্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব আবদুল কাইয়ুম সরকার ও আবুল কাশেমমহিউদ্দিন, আইন ও বিচার বিভাগ এবং সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের উপসচিবমোস্তাফিজুর রহমান ও মিজানুর রহমান খান এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়েরউপ-সচিব শফিকুর রহমান ও সাঈদ মাহমুদ বেলাল হায়দার উপস্থিত ছিলেন।

নারায়ণগঞ্জসিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর ও প্যানেল মেয়র নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দনকুমার সরকারসহ নিহত সাতজনের পরিবারের সদস্যরা তদন্ত কমিটির কাছে সাক্ষ্যদেন। এসময় তারা অবিলম্বে খুনীদের গ্রেফতারের দাবি জানান। একইসাথে তারাতাদের জীবনের নিরাপত্তা চান।

এদিকেসরকারি তদন্তদলের প্রধান জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শাহজাহানআলী মোল্লা সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, আগামী তিনদিনের মধ্যে তদন্তের প্রাথমিকঅগ্রগতি প্রতিবেদন আদালতকে অবহিত করা হবে।গত বৃহস্পতিবার তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করে। ওই দিন দুপুরে তদন্ত কমিটি নারায়ণগঞ্জে আসে এবং পরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে।অপরদিকে, বহুল আলোচিত সাত হত্যা মামলার প্রধান আসামি নুর হোসেনকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানাআওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি পদ থেকে ও ২নং আসামি ইয়াছিন মিয়াকেসিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে অব্যহতি দেয়া হয়েছে।শনিবার  বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের এক বর্ধিতসভায় এসিদ্ধান্ত  গ্রহণ  করে  দলটি। সিদ্ধিরগগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবররহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বর্ধিত সভায় সর্বসম্মতিক্রমে এ সিদ্ধান্তগ্রহণ করা হয়। এসময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় শ্রমিকলীগেরসাবেক সভাপতি আব্দুল মতিন মাস্টার, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণসম্পাদক অ্যাডভোকেট খোকন সাহা, সহসভাপতি রিয়াজউদ্দিন রেণু, সাদেকুর রহমান, বাবুল আক্ত মোল্লা, সহসাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, আলী হোসেন আলা ও হালিমকন্ট্রেক্টার।

শৃঙ্খলা ভঙ্গেরকারণে দলের গঠনতণতন্ত্রের ৪৬(ক) ধারা লঙ্ঘনের কারণে ৪৬(ঙ) অনুযায়ী তাদেরকে এঅব্যহতি দেয়া হয়। সাধারণ সম্পাদক ইয়াছিনের স্থলে ভারপ্রাপ্ত সাধারণসম্পাদক করা হয়েছে যুগ্মসাধারণ সম্পাদক কালীপদ মল্লিককে। তাদের দল থেকে  বহিষ্কারের জন্য অব্যহতিপত্র মহানগর কমিটির মাধ্যমে কেন্দ্রীয়  কমিটির কাছেপাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন সিদ্ধিরগঞ্জ থানা  আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবররহমান। বর্ধিত সভায় নজরুল  ইসলামসহ নির্মমভাবে হত্যাকাণ্ডের শিকার সকলেরআত্মার মাগফেরাত কামনা করা হয়। সমবেদনা জনানো হয় নিহতদের পরিবারের সদস্যদেরপ্রতি।

এদিকে, ৭ জনকে অপহরণ ওহত্যা মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের ২ সহযোগী মো. মাসুদ (৩৫) ও তারশ্যালক সম্রাটকে (১৮) নোয়াখালী থেকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার বিকেল ৪টারদিকে সেনবাগ থানা পুলিশে সহায়তায় নারায়ণগঞ্জ পুলিশের একটি দল মোবাইলট্র্যাকিঙের মাধ্যমে জেলার বেগমগঞ্জের রসুলপুর ইউনিয়নের উত্তর লাউতলীগ্রামের ছেরাজুল হকের বাড়ি থেকে তাদের আটক করা হয় বলে নারায়ণগঞ্জের পুলিশেরদায়িত্বশীল একটি সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। সেনবাগ থানার ওসি মমিনুলইসলাম বলেন, নারায়ণগঞ্জের সিআইডি পুলিশের একজন এএসপি’র নেতৃত্বে অভিযানপরিচালিত হয়। এ সময় ২ জনকে আটক করা হয়েছে। তবে আটককৃতরা কি ধরনের অপরাধেরসাথে জড়িত তা তিনি বলতে পারেননি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *