ঝিনাইদহে পাকা বাড়িঘর ভেঙে সাপের ভয়ে বাড়ি ছাড়লো তিন পরিবার

 

জাহিদুর রহমান তারিক: সাপের অভিশাপ লেগেছে, এই বিশ্বাসে পাকা বাড়িঘর ভেঙে অন্যত্র চলে যাচ্ছে ঝিনাইদহ সদর উপজেলার তিনটি পরিবার। সদর উপজেলার দক্ষিণ-দূর্গাপুর গ্রামের তিন ভাই গত বুধবার থেকে বাড়ি ভাঙতে শুরু করেছেন। ২শ’ গজ দূরে আরেকটি জমিতে নতুন করে বাড়ি তৈরি করছেন। এরা হচ্ছেন- নূর আলী শেখ, আবুল কাশেম শেখ ও আব্দুস সামাদ শেখ।

পরিবারের সদস্যরা জানান, ঘরে ওঠা একটি সাপ মেরে পুড়িয়ে ছিলেন তারা। এরপর থেকে তাদের পরিবারে নানা সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তিন পরিবারের ১৬ সদস্যের মধ্যে ৫ জন বর্তমানে অসুস্থ। এছাড়াও নানাভাবে তারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। সর্বশেষ তাদের এক মেয়ে গুরুত্বর অসুস্থ হয়ে নানা কথা বলছেন। তার কথার পর এই বাড়িতে আর থাকার উপায় থাকে না। যে কারণে তারা এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

তাদের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, পাকা ঘরগুলোর টিনের চাল খোলার কাজ চলছে। ২৫ শতক জমির ওপর তাদের তিন ভাইয়ের বাড়ি। মোট কক্ষ আছে ৬টি। বড় ভাই নূর আলী থাকেন পূর্বপাশে, মেজো ভাই আবুল কাশেম থাকেন মাঝে আর ছোট ভাই আব্দুস সামাদ থাকেন পশ্চিম পাশে।

বাড়িতে গেলে কথা হয় আবুল কাশেম শেখের স্ত্রী আয়েশা খাতুনের সাথে। তিনি জানান, ইতঃপূর্বে এক বছর হলো তার স্বামীর বড় ভাই নূর আলীর ঘরে একটি সাপ দেখতে পাওয়া যায়। পরিবারের সকলে মিলে ওই সাপ মেরে পুড়িয়ে দেন। তখন তেমন একটা কিছু হয়নি। কিন্তু ৩ মাস হলো আবারো ওই ঘর থেকে আরেকটি সাপ মারা হয়। এই সাপটি মারার পর তাদের পরিবারের নানা সমস্যা দেখা দেয়।

নূর আলীর ছেলে রানা হোসেন জানান, ওই সাপটি মারার ঘটনার পর তার বাবার শরীরে ব্যাথার সমস্যা দেখা দিয়েছে। তার বড় বোন রেশামা খাতুনের চোখের সমস্যা, তার চাচা আবুল কাশেম ও চাচি আয়েশা খাতুনের শরীরে ব্যাথার সমস্যা ও চাচাতো বোন পিংকীর (১৪) মাথায় সমস্যা দেখা দিয়েছে। অন্যরা সারাক্ষণ ব্যাথায় কষ্ট পাচ্ছেন, আর পিংকী মাঝে মধ্যে জ্ঞান হারিয়ে ফেলছেন। এই অবস্থায় তারা মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন।

তিনি আরও জানান, এক সপ্তাহ হলো পিংকী জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এরপর যখন তার জ্ঞান ফেরে তখন সে নানা কথা বলতে থাকে। সে বলে ওই সাপটি মারা তাদের ঠিক হয়নি। এই বাড়িতে থাকলে তাদের আরও ক্ষতি হবে। এসব ভেবে তারা বাড়ি ভেঙে নিচ্ছেন।

আব্দুস সামাদ জানান, তাদের বাড়িতে বেশ কিছু বিপদ দেখা দিয়েছে। তাদের কয়েকটি গরু গোয়াল ঘরে থাকা অবস্থায় মারা গেছে। এ সব কারণে বাড়ি ভেঙে চলে যেতে বাধ্য হচ্ছেন। এই অভিশাপ বিশ্বাস করলেন কিভাবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিপদগুলো নিজেদের চোখের সামনে দেখতে পাচ্ছি তাই বিশ্বাস করছি। এটা ঠিক কি-না জানতে চাইলে গ্রামের আরেক বাসিন্দা জামিরুল ইসলাম জানান, এটা কোনোভাবেই বিশ্বাস যোগ্য হতে পারে না। বর্তমান সময়ে এসেও পরিবারটি অলৌকিক এই সব কথা বিশ্বাস করছে এটা ভাবাই যায় না। তিনি বলেন, শিক্ষার অনেকটা অভাব রয়েছে। গ্রামের মেম্বার আয়ুব হোসেন জানান, বাড়িঘর ভেঙে চলে যাচ্ছেন এটা তিনি শুনেছেন। এ জাতীয় অলৈকিক ঘটনায় বাড়ি ভেঙে চলে যাওয়া তাদের ঠিক হচ্ছে না। বিষয়টি তিনি খোঁজ নিয়ে তারা যাতে অন্যত্র চলে না যান সে বিষয়ে পদক্ষেপ নেবেন বলে জানান ।

Leave a comment

Your email address will not be published.