চুয়াডাঙ্গা-মেহেরপুর ও ঝিনাইদহের সকল উপজেলায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় মহাজোটের বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ

বিএনপি-জামায়াত কায়েম করেছিলো সন্ত্রাস : মহাজোট সরকার দেশবাসীকে দিয়েছে উন্নয়ন আর স্বস্তি

 

মাথাভাঙ্গা ডেস্ক: চুয়াডাঙ্গা মেহেরপুর ও ঝিনাইদহের সকল উপজেলায় আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় মহাজোট বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ কর্মসূচি পালন করেছে। চুয়াডাঙ্গায় বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিলে নেতৃত্ব দেন জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি, দামুড়হুদার আয়োজনে ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক হাজি আলী আজগার টগর এমপি। আলমডাঙ্গা, জীবননগর, মেহেরপুর ও গাংনীতেও অভিন্ন কর্মসূচি পালনের খবর পাওয়া গেছে।

চুয়াডাঙ্গা শহীদ হাসান চত্বরের সমাবেশে সভাপতির বক্তব্য দিতে গিয়ে সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপি বলেন, দেশজুড়ে বিএনপি জামায়াত জোট নৈরাজ্য সৃস্টি করেছে। হরতালের নামে জ্বালাও পোড়াও রাজনৈতি করে দেশবাসীকে বিষিয়ে তুলেছে। যে জামায়াত-বিএনপি জোট এখন জালাও পোড়াও করছে, তারা যখন ক্ষমতায় ছিলো তখন দেশজুড়ে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম হয়েছিলো। মানুষ শান্তিতে ঘুমোতে পারতো না। সার নিতে গিয়ে গুলিতে কৃষকদের মতে হতো। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে মহাজোট সরকার উন্নয়নের সরকার। যেমন উন্নয়ন করেছে, তেমনই দেশবাসীকে শান্তিতে স্বস্তিতে রেখেছে।

বিএনপি-জামায়াত জোটের দেশজুড়ে নৈরাজ্যের প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল শুক্রবার বিকেলে আয়োজিত সমাবেশে ছেলুন জোয়ার্দ্দার এমপি এলাকাবাসীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, বিএনপি জামায়াত জোট আমলে এ চুয়াডাঙ্গায় প্রতিদিনই খুন হতো। মাথাভাঙ্গা পত্রিকা খুললেই খুনের খবর পাওয়া যেতো। বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে মহাজোট সরকার ক্ষমতায় এসে সন্ত্রাস দূর করেছে। একের পর এক উন্নয়ন করেছে। কৃষকের ঘরে পৌঁছে দিয়েছে সার। সরকারের সফলতা নস্যাত করতেই বিএপি জোট দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টি করে বড়ধরনের চক্রান্ত করছে। আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।

সভায় বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক দামুড়হুদা উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আজাদুল ইসলাম আজাদ, যুগ্মসম্পাদক সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস, সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান, সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক নাসির উদ্দীন আহম্মেদ, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাসুদুজ্জামান লিটু, অ্যাড. আলমগীর পিপি, ওয়াকার্র্স পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ মজনুর রহমান, জেলা সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম শেখ, সদস্য দাউদ হোসেন, জেলা যুবলীগ আহ্বায়ক আরেফিন আলম রঞ্জুসহ ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ। সমাবেশ শেষে জেলা শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। সমাবেশ শুরুর আগে ছেলুন জোয়ার্দ্দার এমপির নেতৃত্বে একটি মিছিল দলীয় কার্যালয় থেকে শহীদ হাসানচত্বরে সমাবেতন হয়। এর কিছুরে তথা সমাবেশ শুরুর এক পর্যায়ে আসাদুল হক বিশ্বাসের নেতৃত্বে আলুকদিয়া ইউনিয়ন এলাকা থেকে একটি মিছিল সমাবেশ যোগ দেয়। দামুড়হুদা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দামুড়হুদায় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ হরতালবিরোধী বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছেন। গতকাল বিকেল ৫টার দিকে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগরের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়। মিছিলটি বাসস্ট্যান্ড থেকে শুরু হয়ে উপজেলা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে চৌরাস্তার মোড়ে শেষ হয়। মিছিল শেষে দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টুর সভাপতিত্বে সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগর। তিনি বলেন, বিরোধীদলের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া মুখে রং মেখে অনাবরতভাবে মিথ্যা কথা বলে মানুষকে ধোকা দেয়ার চেষ্টা করছে। যা কোনো বিবেকবান মানুষ কখনও মেনে নেবে না। উপজেলা যুবলীগ নেতা অ্যাড. আবু তালেবের সঞ্চালনায় সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক এসএএম জাকারিয়া আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক রফিকুল আলম রান্টু, সদর ইউনিয়ন আ.লীগ সভাপতি শহিদুল ইসলাম, হাউলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদ খোকন, কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নজির আহম্মদ, কুড়ুলগাছি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওসমান গনি, জুড়ানপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব মাস্টার, উপজেলা যুবলীগ নেতা আব্দুল হান্নান ছোট, হযরত আলী, সেলিম উদ্দিন বগা, মহাসিন আলী, ছোট হযরত ও উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জামিরুল ইসলাম। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রবিউল হোসেন, শহিদুল ইসলাম, কোষাধ্যক্ষ আতিয়ার রহমান হাবু, যুগ্মসম্পাদক খলিলুর রহমান ভুট্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, আ. মমিন মাস্টার, নতিপোতা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর, কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শওকত আলী তরফদার, আ.লীগ নেতা গোলাম ফারুক আরিফ, আব্দুল করিম, আমিন উদ্দিন বেল্টু, আবু তালেব মেম্বার, আব্দুল হালিম, ইমতিয়াজ হোসেন, লাভলু মিয়া, আয়ুব আলী, ডালিম, রেজাউল হক মিন্টু, এনামুল করিম ইনু, আমিরুল ইসলাম, মুনসুর, ইদ্রিস আলী, জনাব, মতি, উপজেলা যুবলীগ নেতা আব্দুস সালাম ভুট্টু, আশরাফুল আলম বাবু, শেখ আসলাম আলী তোতা, আব্দুস সালাম, আ. রাজ্জাক, স্বপন, রানা, হাশেম মেম্বার, রাশেদুল মেম্বার, হাসান মেম্বার, জাহিদুল মেম্বার, ফয়সাল, আশাদুল, শামসুল, শরিফুল, আজিবার, হাবিব, জমাত, রকিবুল, ছোট ভুট্টু, আবদার, সিরাজ, মালেক, আতিয়ার, রফিকুল, এনামুল, খালেক, নাহিদ, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জামিরুল ইসলাম, সহসভাপতি মোছা করিম, সাধারণ সম্পাদক সাজু আহম্মেদ রিংকু, সাংগঠনিক সম্পাদক সাজেদুল বিশ্বাস মিঠু, কলেজ ছাত্রলীগের আহবায়ক শাহিন মোল্লা, ছাত্রলীগ নেতা করিম, রাসেল, আরিফ, সজিব, ইস্রারাফিল, বাবু, রবি প্রমুখ বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেয়। মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। বক্তরা ১৮ দলীয় জোট নেতৃবৃন্দকে জনবিরোধী হরতাল পরিহার করে প্রধানমন্ত্রীর ডাকে সাড়া দিয়ে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের পথে ফিরে আসার আহ্বান জানান।

অপরদিকে বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলা অডিটোরিয়াম হলের সামনে থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান মঞ্জুর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে বাসস্ট্যান্ডে শেষ হয়। মিছিল শেষে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে মনোনয়ন প্রত্যাশী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান মঞ্জু। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাথেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক সোহরাব হোসেন, আজিজুল হক, উপজেলা কৃষকলীগ সভাপতি রফিকুল ইসলাম, হাউলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি লাল মোহাম্মদ, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক তমসের আলী, সহপ্রচার সম্পাদক আব্দুল জব্বার, মদনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি সিরাজুল ইসলাম, দর্শনা পৌর যুবলীগের আহ্বায়ক লাল্টু, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিশান তরফদার, আব্দুল ওহাব, মহাসিন, সাইফুল, খুশি হযরত মেম্বারসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ। উপস্থিত ছিলেন ইসলাম, আব্বাস উদ্দিন, আ. মালেক, জামাল, শওকত, হায়দার, হাসমত, মিজানুর, আসলাম, শফি, হাবিবুল প্রমুখ।

দর্শনা অফিস জানিয়েছে, দর্শনায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে আ.লীগ। গতকাল সন্ধ্যায় দর্শনা পৌর আ.লীগের আয়োজনে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগরের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পৌর আ.লীগের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে সংক্ষিপ্ত সমাবেশ। পৌর আ.লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য দেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আ.লীগের শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক এমপি আলী আজগার টগর, জেলা ওয়ার্কার্স পার্টি নেতা সৈয়দ মজনুর রহমান, দামুড়হুদা উপজেলা আ.লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু, যুগ্মসম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান জাকারিয়া আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, আ.লীগে নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা লিয়াকত আলী, রুস্তম আলী, মোমিনুল ইসলাম, মোজাহারুল ইসলাম, গোলাম ফারুক আরিফ, মোশাররফ হোসেন, আব্দুর রফিক কাবি, বিল্লাল হোসেন, ফজলুল হক, সিরাজুল ইসলাম, আব্দুল হান্নান, মুনতাজ আলী, আতিয়ার রহমান হাবু, যুবলীগ নেতা আব্দুল হান্নান ছোট, আজিজুর রহমান বাবু, শেখ আসলাম আলী তোতা, হাবিবুর রহমান মিলন, আশরাফুল আলম বাবু, জয়নাল আবেদীন নফর, ফারুক আহম্মেদ, আব্দুস সালাম ভুট্টো, ইকবাল হোসেন, একে আজাদ কিরণ, হাকিম, সোলায়মান কবির, সাইফুল ইসলাম হুকুম, সাজাহান মোল্লাম, রেজাউল ইসলাম, আসাদুল ইসলাম, ফয়সাল, আমিরুল ইসলাম, মহিবুল ইসলাম, ছাত্রলীগ নেতা রফিকুল ইসলাম ববি, নাহিদ পারভেজ, আলামিন প্রমুখ।

মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, গতকাল শুক্রবার বিকেলে মেহেরপুর শহর আওয়ামী লীগের আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মেহেরপুর শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. ইয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে মেহেরপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে শহীদ ড. সামসুজ্জোহা নগর উদ্যানে সমাবেশে মিলিত হয়। শহর আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাড. ইয়ারুল ইসলামের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি অ্যাড. আব্দুস সালাম, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক সাইফুল ইসলাম পল্টু, শহর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ডা. ওমর ফারুক, সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলী, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক মোল্লা, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মালেক মোল্লা, মুজিবনগর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামরুল হাসান চাঁদু, জেলা যুবলীগের সভাপতি সাজ্জাদুল আনাম সাজ্জাদ, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুল আলম সাজ্জাদ, শহর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আজিজ আহমেদ মতিন, যুগ্মসম্পাদক আসলাম খান পিন্টু, সদর থানা কৃষকলীগের সভাপতি ইউপি সদস্য জাফর ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিলন, সদর থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর আল মামুন, জেলা যুলীগের যুগ্মসম্পাদক নিশান সাবের, সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান হিরন, মাহফিজুর রহমান মাহবুব, যুবলীগ নেতা গোপাল, মোমিন প্রমুখ। এর আগে যুবলীগ, কৃষকলীগসহ আওয়ামী লীগের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন ব্যানারসহ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশে অংশগ্রহণ করে।

আলমডাঙ্গা ব্যুরো জানিয়েছে, বিএনপি-জামায়াত-শিবিরের দেশব্যাপি নৈরাজ্য, সন্ত্রাস ও হরতালের প্রতিবাদে কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচর অংশ হিসেবে গতকাল শুক্রবার আলমডাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগ বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে। বিকেলে আলমডাঙ্গা মুক্তিযোদ্ধা মঞ্চে অনুষ্ঠিত ওই বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসান কাদির গনু। প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আওরঙ্গজেব মোল্লা টিপু। বিশেষ অতিথি ছিলেন অ্যাড. আব্দুর রশিদ মোল্লা, বিশিষ্ট আওয়ামী লীগ নেতা শিক্ষানুরাগী ইউপি চেয়ারম্যান নূরুল ইসলাম, আলমডাঙ্গা পৌর সভাপতি আবু মুসা, উপজেলা সহসভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম মন্টু, প্রশান্ত কুমার অধিকারী, পৌর কাউন্সিলর হাসিব রেজা রাজা, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন, পৌর সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, উপজেলা সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী খালেদুর রহমান অরুন, ইউপি চেয়ারম্যান মোস্তাফিজুর রহমান রুন্নু, বিআরডিবি চেয়ারম্যান মুহিদুল ইসলাম মুহিদ, শহিদুল ইসলাম খান, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা কাউসার আহম্মেদ বাবলু।

উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ইয়াকুব আলী মাস্টারের উপস্থাপনায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল আজিজ, নূরুল ইসলাম, রাহাব উদ্দীন, আনোয়ার হোসেন মাস্টার, আব্দুল হালিম, আব্দুল হান্নান, মকবুল হোসেন, আশাবুল হক ঠাণ্ডু, মাসুদ রানা তুহিন, আব্দুর রাজ্জাক, সাহেদা খাতুন, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আহসান উল্লাহ্, যুগ্মআহ্বায়ক সাজ্জাদুল ইসলাম স্বপন, সোনাহার, ছাত্রলীগ নেতা মামুন, তপন প্রমুখ।

ঝিনাইদহ অফিস জানিয়েছে, ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আজিজুর রহমান বলেছেন, হুমকি-ধামকি, হরতাল-অবরোধ দিয়ে নির্বাচন বানচাল করা যাবে না। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সব শক্তি দিয়ে বিএনপির ষড়যন্ত্র-চক্রান্তের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গতকাল শুক্রবার বিকেলে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল আজম খান চঞ্চল, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসম্পাদক তৈয়ব আলী জোয়ার্দ্দার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ময়জুদ্দীন হামিদ প্রমুখ। বিক্ষোভ সমাবেশে অ্যাড. আজিজুর রহমান আরও বলেন, সংলাপ আর সংঘাত এক সাথে চলতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী আন্তরিকভাবে বিরোধীদলীয় নেত্রীকে সংলাপের আহ্বান জানিয়েছেন। তার আমন্ত্রণে সাড়া দিলেই সংলাপ হতে পারে। তিনি হরতাল অবরোধের মতো ধ্বংসাত্মক কর্মসূচি বাদ দিয়ে বিরোধীদলকে শান্তিপূর্ণ রাজনীতিতে ফিরে আসার আহ্বান জানান। এর আগে জেলার কোটচাঁদপুরে উপজেলা আওয়ামী লীগের এক বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, কেন্দ্রীয় ঘোষিত কর্মসূচি মোতাবেক জীবননগর উপজেলা জীবননগরে হরতালবিরোধী মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মোর্তুজা ও পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি আবু মো. আ. লতিফ অমলের নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি শহর প্রদক্ষিণ করে। পরে বাসস্ট্যান্ড চত্বরে প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি উপজেলা চেয়াম্যান গোলাম মোর্তুজা। বক্তব্য রাখেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম, পৌর আওয়ামী লীগ সভপাতি আবু মো. আ. লতিফ অমল, সাধারণ সম্পাদক নাসিরউদ্দিন, উপজেলা যুবলীগ আহ্বায়ক উপজেলা ভাইস চেয়াম্যান হাফিজুর রহমান হাফিজ, উথলী ইউনিয়ন সভাপতি আব্দুল হান্নান, সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন খাঁন, কলেজ ছাত্রলীগ সভাপতি ডেও হাসান প্রমুখ। উপস্থাপনায় ছিলেন যুবলীগ যুগ্মআহ্বায়ক আ. সালাম ইশা।

দৌলতপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগ শুক্রবার বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে। উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে একই সময়ে এ কর্মসূচি পালন করা হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম শেলী, সহসভাপতি আব্দুর রশিদ বাবলু, অ্যাড. এজাজ আহমেদ মামুন উপজেলা জাসদের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ রেজাউল হক, যুগ্মআহ্বায়ক কেন্দ্রীয় যুবজোটের যুগ্মসম্পাদক শরিফুল কবীর স্বপন, আব্দুল মান্নান, মফিদুল ইসলামসহ আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ ১৪ দলের নেতারা সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।

গাংনী প্রতিনিধি জানিয়েছেন, মেহেরপুর গাংনীতে আওয়ামী লীগের সমাবেশে সাবেক এমপি মকবুল হোসেন বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে এদেশ স্বাধীন হয়েছিলো। সেই স্বাধীন দেশে আমরা শান্তিপূর্ণভাবে বসবাস করছি। কিন্তু একাত্তরের মতোই স্বাধীনতাবিরোধীরা আজ অশান্তি পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে। গাংনী উপজেলায় যারা নৈরাজ্য সৃষ্টির পাঁয়তারা করছে তাদেরকে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবেলা করতে হবে। তাই আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে নির্দেশ দেবেন তা অক্ষরে অক্ষরে পালন করতে হবে। ১৮ দলীয় জোটের নৈরাজ্যকর কর্মসূচির প্রতিবাদে গতকাল শুক্রবার বিকেলে গাংনী বাসস্ট্যান্ডে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা আ.লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম শাহ। বক্তব্য রাখেন জেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোকলেছুর রহমান মুকুল, যুগ্মসম্পাদক গাংনী উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম শফিকুল আলম, গাংনী পৌর মেয়র আওয়ামী লীগ নেতা আহম্মেদ আলী, জেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক ওয়াসিম সাজ্জাদ লিখন, আওয়ামী  লীগ নেতা হাজী মহাসিন আলী, বঙ্গবন্ধু স্মৃতি পাঠাগারের সহসভাপতি ইয়াসিন রেজা, জেলা যুবলীগের যুগ্মসম্পাদক সোহেল আহম্মেদ, সহসভাপতি গোলাম সাকলায়েন ছেপু, উপজেলা যুবলীগের যুগ্মসম্পাদক মজিরুল ইসলাম, ধানখোলা ইউপি আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আক্তারুজ্জামান বাবু, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি হাসান রেজা সেন্টু, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব হোসেন, কলেজ ছাত্রলীগের সম্পাদক উজ্জ্বল ও পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান হাবীব প্রমুখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন জেলা যুবলীগের বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক আমজাদ হোসেন। সমাবেশ শেষে হাজারো নেতাকর্মীর অংশগ্রহণে একটি প্রতিবাদ শোভাযাত্রা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। অনুষ্ঠানে রাইপুর গ্রামের বিএনপি সমর্থক আব্দুল হান্নানের নেতৃত্বে কিছু সমর্থক আওয়ামী লীগে যোগদান করেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *