চুয়াডাঙ্গা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে চিকিৎসক শূন্যতায় চিকিৎসা সেবা ব্যাহত

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গা বক্ষব্যাধি হাসপাতালে স্বাভাবিক চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হচ্ছে। চিকিৎসক না পেয়ে রোগীদের ফিরতে হচ্ছে সদর হাসপাতালে। অবস্থাদৃষ্টে অনেকেই মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছেন, ‘চুয়াডাঙ্গা বক্ষব্যাধি হাসপাতালের অবকাঠামো অনেকটা জনবলহীন হয়ে পরিত্যক্ত হওয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।’
চুয়াডাঙ্গা বক্ষব্যাধি হাসপাতালের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত ছিলেন ডা. রতন কুমার সিংহ। তিনি গত ৭ জানুয়ারি অবসর গ্রহণ করেন। ফলে বিষেশজ্ঞ চিকিৎসক পদটি শূন্য হয়ে পড়ে। এ পদে শূন্য রেখেই মেডিকেল অফিসার হিসেবে কর্মরত ডা. ফরহানা নার্গিসকে সদর হাসপাতালে বদলি করা হয়েছে। গত ৫ মার্চ এ বদলির আদেশ পেয়ে তিনিও ছেড়েছেন বক্ষব্যাধি হাসপাতাল। ফলে চিকিৎসক শূন্য হয়ে পড়েছে হাসপাতালটি। তবে সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. শামীমা ইয়াসমিনকে বক্ষব্যাধি হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার হিসেবে অতিরিক্ত দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তিনি সুযোগ বুঝে দায়িত্ব পালন করলেও বক্ষব্যাধি হাসপাতালটি অধিকাংশ সময়ই থাকছে চিকিৎসক শূন্য। ফলে রোগীরা এ হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসা সেবা না পেয়ে ফিরছে হতাশ হয়ে। তাছাড়া ২০০৯ সালে এক্স-রে মেশিনটি বিকল হওয়ার পর এ পর্যন্ত তা মেরামতের ব্যবস্থাও করা হয়নি। এক্স-রে মেশিনের বেহাল দশা দীর্ঘ ৮ বছর ধরে। চিকিৎসক সঙ্কট শুরু হয়েছে সবে। ফলে অবস্থাদৃষ্টে অনেকেই মন্তব্য করতে গিয়ে বলেছেন, এ হাসপাতালটির দিকে বিশেষ নজর না দেয়া হলে তা অচিরেই পরিত্যক্ত হাসপাাতালে রূপান্তর হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *