চুয়াডাঙ্গায় প্রবল বর্ষণ ও ঝড়ে কৃষকের সোনালি স্বপ্ন ভাসছে পানিতে : মারা গেছে বহু পাখি

বেগমপুর প্রতিনিধি: ধানে ব্লাস্ট রোগের পর দু দিনের প্রবল বৃষ্টি ও ঝড়ে চুয়াডাঙ্গার অন্য জায়গার ন্যায় বেগমপুর ও তিতুদহ ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের নিচু জমির ধান কৃষকের সোনালি স্বপ্ন ভাসছে পানিতে। ডুবন্ত ধান ডাঙায় তুলতে খাচ্ছে হিমশিম। কৃষকের সারাবছরের খাদ্য পরিকল্পনার হিসাব-নিকাশ গেছে পাল্টে। ধানের পাশাপাশি মারা গেছে প্রকৃতির অনেক পাখি।

চুয়াডাঙ্গায় চলতি মরসুমে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে সাড়ে ৩৩ হাজার হেক্টর জমিতে। ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্র নির্ধারণ করা হয়েছিলো ১ লাখ ২৬ হাজার মেট্রিক টন। এর মধ্যে ৬৮ হেক্টর জমিতে ব্লাস্ট রোগে আক্রান্ত হয়ে সে হিসাব-নিকাশ পাল্টে যায়। তার ওপর দু দিনের ভারি বর্ষণ ও ঝড়ে কৃষকের সোনালি স্বপ্ন বোরো ধানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বিশেষ করে নিচু জমির ধানের এ ক্ষতি বেশি হয়েছে। পাকা ধান ঘরে তোলার আগেই পানিতে ডুবে গেছে। এদিকে ডুবন্ত ধান কেটে ঘরে তুলতে কৃষকদের রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে। তার ওপর ধান কাটা শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। বোরো ধান এক থেকে দু দিন পানির নিচে থাকলে তা কলিয়ে হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *