চুয়াডাঙ্গায় চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন নির্মাণের প্রস্তাবিত স্থান টাস্কফোর্স কমিটির পরিদর্শন : সন্তোষ প্রকাশ

 

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশের ৬৪টি জেলায় চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন নির্মাণ (প্রথম পর্যায়) প্রকল্পের আওতায় চুয়াডাঙ্গায় চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন নির্মাণের জন্য প্রস্তাবিত স্থান পরিদর্শন করেছেন টাস্কফোর্স কমিটি। টাস্কফোর্স কমিটির আহ্বায়ক  ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (সমন্বয়) একে মহিউদ্দিন আহমদের নেতৃত্বে গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় প্রস্তাবিত স্থান পুরাতন জেলা কারাগার এলাকা সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন। পরিদর্শক দল এতে সন্তোষ প্রকাশ করেন। এছাড়া পরিদর্শক দল রেললাইনের ওপারে পানি উন্নয়ন বোর্ডের একটি জমি এবং নতুন জেলখানার পাশে একটি জমিও পরিদর্শন করেছেন।

এ সময় প্রকল্পের পরিচালক দেবাশীষ সাহা এবং স্থানীয় পর্যায়ে হুইপ সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার এমপি, জেলা ও দায়রা জজ রবিউল ইসলাম, জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ, চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এবিএম মাহমুদুল হক, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আব্দুর রাজ্জাক, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি নুরুল ইসলাম, সরকারি কৌসুলি (পিপি) মহ. শামশুজ্জোহা, সরকারি কৌশলী (জিপি) মোল্লা আব্দুর রশিদ ও গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. এনামুল হক টাস্কফোর্স কমিটিকে সহযোগিতা করেন। এছাড়া জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি সেলিম উদ্দিন খান, আলমগীর হোসেন, এমএম শাহজাহান মুকুল, সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার, সাঈদ মাহমুদ শামীম রেজা ডালিম ও সৈয়দ হেদায়েত হোসেন আসলাম, সিনিয়র আইনজীবী মনিরুজ্জামান ও শহিদুল ইসলামসহ আইনজীবীরা উপস্থিত ছিলেন। পাঁচ সদস্যের টাস্কফোর্স কমিটির উপস্থিত সদস্যরা হলেন- স্থাপত্য অধিদফতরের অতিরিক্ত প্রধান স্থপতি আসম আমিনুর রহমান, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব হেমন্ত হেনরী কুবি, নগর উন্নয়ন অধিদফতরের সহকারী প্ল্যানার মো. আহসান হাবীব এবং কমিটির সদস্য সচিব ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নিকার অধিশাখার উপসচিব মোহাম্মদ কায়কোবাদ খন্দকার। গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. এনামুল হক জানান, চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন নির্মাণের জন্য প্রস্তাবিত স্থান দেখে টাস্কফোর্স কমিটির সদস্যরা ইতিবাচক মন্তব্য করেছেন।

জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি নুরুল ইসলাম বলেন, আইনজীবীদের প্রাণের দাবি চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবন নিয়ে হুইপ সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার টাস্কফোর্স কমিটিকে বিষয়টি উপস্থাপন করেন। টাস্কফোর্স কমিটিও পুরাতন জেলখানার স্থানকে প্রাথমিকভাবে সম্মতি প্রদান করেছেন।

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ বলেন, টাস্কফোর্স টিম স্থান নির্বাচন বিষয়ে সরেজমিন দেখেছে। তবে এ বিষয়ে স্থান নির্বাচন নিয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *