চুয়াডাঙ্গায় একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের ৩ দফা দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ

 

স্টাফ রিপোর্টার: জাতীয় সংসদের হুইপ সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন এমপির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর বরাবর একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের ৩ দফা দাবিতে স্মারকলিপি পেশ করেছেন চুয়াডাঙ্গা জেলায় কর্মরত কর্মকতা-কর্মচারীরা। গতকাল রোববার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে জেলার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দ্রুত পল্লি সঞ্চয় ব্যাংকে পদায়নের দাবিতে এ স্মারকলিপি পেশ করা হয়। একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প ও পল্লি সঞ্চয় ব্যাংক আলমডাঙ্গা উপজেলা শাখা ব্যবস্থাপক আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে জাতীয় সংসদের হুইপ ছেলুন জোয়ার্দ্দার এমপির কাছে স্মারকলিপি পেশকালে উপস্থিত ছিলেন প্রকল্পের অন্যান্য উপজেলা পর্যায়ে শাখা ব্যবস্থাপকদের মধ্যে আবু হাসনাত শাহরিয়ার, আব্দুস সাত্তার, তানভীর আহমেদ, সাদিকুর রহমান, শামিউল আলমসহ সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।

স্মারকলিপিতে বলা হয়- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একান্ত ইচ্ছায় ২০১৪ সালের ৮ জুলাই একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পলে স্থায়ী রূপদানের জন্য পল্লি সঞ্চয় ব্যাংক আইন সংসদে পাস করা হয়। পল্লি সঞ্চয় ব্যাংক আইন ২০১৪ এর ৩৯নং ধারা অনুযায়ী ৩০ জুন ২০১৬ খ্রিস্ট্রাব্দে প্রকল্প বিলুপ্ত হবে এবং ১ জুলাই ২০১৬ থেকে প্রকল্পের স্থাবর-অস্থাবর সম্পদ এবং জনবল পল্লি সঞ্চয় ব্যাংকে স্থানান্তরিত হয়েছে বলে গণ্য হবে। কিন্তু আপনার মাধ্যমে প্রথমে ১০০টি এবং পরবর্তীতে ৩৮৫টি ব্যাংক শাখা খোলা সত্ত্বেও ব্যাংকিং কার্যক্রম আদৌ শুরু করা ও বিলুপ্ত প্রকল্পের জনবলকে পল্লি সঞ্চয় ব্যাংকে পদায়ন করা হচ্ছে না। বিধায় মাঠ পর্যায়ে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। তথাপি কর্মকর্তা/কর্মচারীদের বেতন-ভাতাদি চলমান না থাকায় মানবেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে। প্রকল্প কর্মকর্তা/কর্মচারীদের ৩ দফা দাবিসমূহ হলো- ১. বিলুপ্ত একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের কর্মকর্তা/ কর্মচারীদেরকে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক আইনে চাকুর প্রবিধান মোতাবেক দ্রুত পদায়ন ও চাকরি স্থায়ীকরণ। ২. যাচাই-বাছাই এর নামে কোনো কর্মকর্তা/কর্মচারীকে ছাটাই না করা। ৩. দ্রুত পল্লি সঞ্চয় ব্যাংকের কার্যক্রম শুরু করা। স্মারকলিপিতে প্রকল্প কর্মকর্তা/কর্মচারীগণ প্রধানমন্ত্রীর দ্রুত হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *