চুয়াডাঙ্গার সাংবাদিকতার ইতিহাসে আজকের দিনটি ইতিহাস হয়ে থাকবে

চুয়াডাঙ্গার অর্ধশত সাংবাদিকের আরো একটি অবিস্মরণীয় দিন কাটলো : দায়িত্বভার হস্তান্তর

আরিফুল ইসলাম: চুয়াডাঙ্গার নবীন-প্রবীণ সাংবাদিকদের আরো একটি অবিস্মরণীয় দিন কাটলো। আর সেই দিনটি হলো চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাব ও সাংবাদিক সমিতির নবনির্বাচিত কমিটির দায়িত্বভার হস্তান্তর ও গ্রহণ অনুষ্ঠানটি। অনুষ্ঠানে যেমন ছিলো স্বতঃস্ফূর্ততা তেমনি নবনির্বাচিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক দৈনিক মাথাভাঙ্গার সম্পাদক প্রকাশক সরদার আল আমিনের জন্মদিনটি অনুষ্ঠানে আরো বাড়তি মাত্রা যোগ করে। অনুষ্ঠানে যোগদান করে বেশ কয়েকজন প্রবীণ সাংবাদিক জানান, চুয়াডাঙ্গার সাংবাদিকতার ইতিহাসে এমন স্বতঃস্ফূর্ততা আমাদের আগে চোখে পড়েনি। তোমরা এগিয়ে যাও, অনেক বক্তা চুয়াডাঙ্গার সাংবাদিকের ঐতিহাসিক এ ঐক্য বাংলাদেশের মডেল বলেও মন্তব্য করেন।

চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের দায়িত্বভার হস্তান্তর ও গ্রহণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে গতকাল শনিবার সন্ধ্যা ৬টার পর থেকেই প্রেসক্লাবে আসতে শুরু করেন সাংবাদিকরা। সন্ধ্যা ৭টার আগেই পুরো প্রেসক্লাব নবীন-প্রবীণ সদস্যদের পদভারে মুখরিত হয়ে ওঠে। ৭টার পরই ক্লাব সদস্য জাহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় দায়িত্বভার গ্রহণ অনুষ্ঠান শুরু হয়। অনুষ্ঠানে বাড়তি মাত্রা যোগ করে চুয়াডাঙ্গার দুজন প্রবীণ সাংবাদিককের উপস্থিতি। এরা হলেন, দৈনিক প্রথম রাজধানী ও সাপ্তাহিক চুয়াডাঙ্গা দর্পণের সম্পাদক প্রবীণ সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন, দৈনিক আকাশ খবরের সম্পাদক প্রকাশক প্রবীণ সাংবাদিক তছিরুল আলম মালিক ডিউক।

চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রবীণ সাংবাদিক মাহতাব উদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দায়িত্বভার গ্রহণ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দিতে গিয়ে প্রেসক্লাব চুয়াডাঙ্গার সাবেক সাধারণ সম্পাদক মরিয়ম শেলী বলেন, চুয়াডাঙ্গার সাংবাদিকদের ঐক্য সময়ের দাবি ছিলো। সেই দাবি আজ পূরণ হয়েছে। আজকের এ উপস্থিতি তারই প্রমাণ।  অনুষ্ঠানে অতিথির বক্তব্য দিতে গিয়ে প্রবীণ সাংবাদিক আনোয়ার হোসেন বলেন, দুর্নীতি অনাচার ও অবিচারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর একমাত্র হাতিয়ার হলো ঐক্য। এ ঐক্য হলো সাংবাদিকদের প্রধান শক্তি। তিনি যেকোনো মূল্যে সাংবাদিকদের এ দৃষ্টান্ত ধরে রাখার আহ্বান জানান।

আরেক প্রবীণ সাংবাদিক তছিরুল আলম মালিক ডিউক বলেন, একটি পত্রিকা চুয়াডাঙ্গার সাংবাদিকদের চরিত্র হননে মেতে উঠেছে। তিনি বলেন, আমার সাংবাদিকতার জীবনে এমন ঘটনা কখনো দেখিনি। এ জন্য ওই পত্রিকার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ও আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণেরও পরামর্শ দেন তিনি। চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের বিদায়ী সদস্য সচিব নাসির উদ্দীন আহমেদ বলেন, আমার অনেক দিনের স্বপ্ন ছিলো সাংবাদিকদের ঐক্য। কয়েকবার নিজ উদ্যোগে বেশ কয়েকবার চেষ্টা করেছি, তখন পুরাপুরি সফল হইনি, কিন্তু শেষমেষ ৩১ ডিসেম্বর সেই স্বপ্ন পুরণ হলো। তিনি ঐক্য প্রচেষ্টায় যারা অবদান রেখেছেন তাদের সকলকে ব্যক্তিগতভাবে ধন্যবাদ জানান।

জেষ্ঠ্য সাংবাদিক এমএম আলাউদ্দীন বলেন, যেদিন আমি ঐক্যর কথা শুনেছি, সেদিনই তৃপ্তির ঢেকুর তুলেছি। এমন একটি দিনের প্রতিক্ষায়ই ছিলাম আমি। সাংবাদিক চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আব্দুল মজিদ জিল্লু বলেন, আমার ৪১ বছরের সাংবাদিকতার ইতিহাসে এমন মহামিলন দেখিনি। নবনির্বাচিত কমিটির এগিয়ে যাওয়ার পারমর্শ দিয়ে এ জেষ্ঠ্য সাংবাদিক সব ধরনের সহযোগিতার আশ্বাস দেন। সাপ্তাহিক চুয়াডাঙ্গা বার্তার সম্পাদক জেষ্ঠ্য সাংবাদিক শেখ সেলিম সম্প্রতি সময় চুয়াডাঙ্গা থেকে প্রকাশিত একটি সহযোগী পত্রিকায় সাংবাদিকদের চরিত্র হননের কথা উল্লেখ করে উদ্বেগ প্রকাশ করেন। এ ঘটনার প্রতিবাদ ও নিন্দা  জানান তিনি।

জেষ্ঠ্য সাংবাদিক অ্যাড. বেলাল হোসেন একটি গল্পের উদাহরণ উল্লেখ করে সাংবাদিকদের বিভেদ ও ঐক্যের বিভিন্ন দিক উল্লেখ করেন। দৈনিক আমাদের সংবাদের সম্পাদক রুহুল আমিন রতন বলেন, আমার অবস্থানে থেকে চুয়াডাঙ্গার সাংবাদিকদের ঐক্যর পক্ষে কাজ করে যাবো।

অনুষ্ঠানে বক্তব্যের পালা শেষে শুরু হয় দায়িত্বভার গ্রহণ অনুষ্ঠান। প্রথমে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের আহ্বায়ক মাহতাব উদ্দীন, সদস্য সচিব নাসির উদ্দীন আহমেদ ও চুয়াডাঙ্গার সভাপতি অ্যাড. মানিক আকবর এবং সাধারণ সম্পাদক মরিয়ম শেলী নবনির্বাচিত চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবের সভাপতি মাহতাব উদ্দীন ও সাধারণ সম্পাদক সরদার আল আমিনের হাতে দায়িত্বভার হস্তান্তর করেন। এরপর সাংবাদিক সমিতি চুয়াডাঙ্গা জেলা ইউনিটের সভাপতি শরীফ উদ্দীন হাসু ও সাধারণ সম্পাদক ফাইজার চৌধুরী নবনির্বাচিত শরীফ উদ্দীন হাসু ও সাধারণ সম্পাদক শাহার আলীর হাতে দায়িত্বভার হস্তান্তর করেন। দায়িত্বভার গ্রহণ করার পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সভাপতি মাহতাব উদ্দীন বলেন, আপনারা যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করে আমাকে গুরুত্ব দায়িত্ব দিয়েছেন তা আমি যথাযথভাবে পালন করবো।

একই প্রতিক্রিয়ায় সাধারণ সম্পাদক সরদার আল আমিন বলেন, আজ চুয়াডাঙ্গার সাংবাদিকদের একটি স্মরণীয় দিন। যে দিনে চুয়াডাঙ্গার ৪৭ জন সাংবাদিক এক কাতারে অংশগ্রহণ করে যে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলো তা অবশ্যয় স্মরণীয় হয়ে থাকবে। আমি চেষ্টা করবো এ দৃষ্টান্ত অক্ষরে অক্ষরে ধরে রাখতে। এ জন্য তিনি চুয়াডাঙ্গার সকল সাংবাদিকের সহযোগিতা চান। দায়িত্বভার গ্রহণ শেষে সব নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক সরদার আল আমিনের হাতে ফুল দিয়ে জন্মদিনের শুভেচ্ছা জানান সাংবাদিকরা। পরে ক্লাব চত্বরে একটি কেক কাটা হয়। সভায় উপস্থিতির ক্রমানুসারে ছিলেন, তছিরুল আলম মালিক ডিউক, মাহতাব উদ্দীন, মরিয়ম শেলী, নাসির উদ্দীন আহেমদ, আনোয়ার হোসেন, শেখ সেলিম, চিত্তরঞ্জন সাহা চিতু, আব্দুল মজিদ জিল্লু, সুলতানুল আলম মালিক আজম, শাহার আলী, কামরুজ্জামান সেলিম, রানা কাদির, সরদার আল আমিন, রাজীব হাসান কচি, কামাল উদ্দীন জোয়ার্দ্দার, আরিফুল ইসলাম, শেখ পিন্টু, রিচার্ড রহমান, খাইরুজ্জামান সেতু, তানজির আহমেদ রনি, অ্যাড. বেলাল হোসেন, মানিক আকবর, এমএ মামুন, ইসলাম রকিব, হোসেন জাকির, বিপুল আশরাফ, খাইরুল ইসলাম, জাহিদ জীবন, জেড আলম, মাহফুজ মামুন, শাহ আলম সনি, রুহুল আমিন রতন, আব্দুস সালাম, রফিক রহমান, কামরুজ্জামান বেল্টু, রফিকুল ইসলাম, আশরাফুল ইসলাম পাপ্পু, উজ্জ্বল মাসুদ, ফাইজার চৌধুরী ও আতিয়ার রহমান।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *