চুয়াডাঙ্গার বেগমপুরে কাবিখার কাজে ব্যাপক অনিয়ম

 

স্টাফ রিপোর্টার: চলতি অর্থবছরে গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কারের জন্য (কাবিখা) চুয়াডাঙ্গা সদরের বেগমপুর ইউনিয়নের দুটি প্রকল্পে ২০ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এলাকাবাসী অভিযোগ করে জানায়, প্রকল্প দুটির পিআইসি আক্কাচ আলী ও নাসিমা বেগম ক্ষমতাবলে রাস্তা পুনঃ নির্মানের নামে রাস্তায় মাটি দিচ্ছে স্প্রে করে। এদিকে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কাজে অসন্তোস প্রকাশ করে আগামী ১৪ মার্চের মধ্যে সঠিকভাবে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

জানা গেছে, চলতি বছর গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কারের (কাবিখা) জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর ইউনিয়নের নেহালপুর পশ্চিমপাড়া আমিনুল বিশ্বাসের বাড়ির নিকট থেকে বোয়ালিয়া চৌদুনীপাড়া মসজিদ পর্যন্ত রাস্তা পুনর্নির্মাণের জন্য ১০ মে. টন গম বরাদ্দ দেয়। প্রকল্পের পিআইসি হিসেবে দায়িত্ব পান ২ নং ওয়ার্ড সদস্য আক্কাচ আলী। তিনি ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতির ছেলে হওয়ায় ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে ওই রাস্তায় মাটি স্প্রে করে কাজ করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। অপরদিকে একই প্রকল্পের রাঙ্গিয়ারপোতা গ্রামের ইসলামের বাড়ির নিকট থেকে ব্রিজ পর্যন্ত রাস্তা পুনর্নির্মাণের জন্য ১০ মে. টন গম বরাদ্দ হয়। প্রকল্প পিআইসি হিসেবে দায়িত্ব পান মহিলা ইউপি সদস্য নাসিমা খাতুন। তিনি ওই রাস্তায় একই অবস্থায় কাজ করছেন বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করে জানায়। এদিকে তাদের কাজে সন্তুষ্ট নয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

সংশ্লিষ্ট বিভাগ জানিয়েছে, চলতি মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত এ কাজের মেয়াদ আছে। এর মধ্যে পিআইসিরা যদি নিয়ম মাফিক কাজ না করেন তাহলে তাদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ বিষয়ে প্রকল্প পিআইসি আক্কাচ আলী বলেন, জানেন তো সব ম্যানেজ করে চলতে হয়। কাজ সঠিক হবে কি করে? পিআইসি নাছিমা খাতুন বলেন, আমার কাজ দেখে প্রকল্প কর্মকর্তা সন্তোষ প্রকাশ করেছেন। এ বিষয়ে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বীর মুক্তিযোদ্ধা মোয়াজ্জেম হোসেন অনিয়মের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সময়ের মধ্যে সঠিকভাবে কাজ করার জন্য প্রকল্প পিআইসিদের বলা হয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *