ঘুষ নেওয়ার ভিডিও ভাইরাল: সাব–রেজিস্ট্রার বরখাস্ত

স্টাফ রিপোর্টার: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা বন্দর উপজেলা সাব–রেজিস্ট্রার এছহাক আলী মণ্ডলকে ঘুষ নেয়ার অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।
গতকাল রোববার দুপুরে ইন্সপেক্টর অব জেনারেল (আইজিআর) আবদুল মান্নান খান তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করেন বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ জেলা সাব–রেজিস্ট্রার সাবিকুন নাহার। সাবিকুন নাহার আরও বলেন, একই কারণে এছহাক আলীকে অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা আড়াইহাজার উপজেলায় সাব–রেজিস্ট্রার পদ থেকে প্রত্যাহার করা হয়। পাশাপাশি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যে ভিডিও ভাইরাল হয়েছে এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে গণমাধ্যমে আসা প্রতিবেদনের বিষয়ে তার কাছে ২৮ মার্চের মধ্যে ব্যাখ্যা চাওয়া হয়েছে—কেন তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে না ।

গত বৃহস্পতিবার সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে অতিরিক্ত দায়িত্বে থাকা বন্দর উপজেলা সাব–রেজিস্ট্রার এছহাক আলী মণ্ডল দলিলে স্বাক্ষর করার সময় টেবিলের ড্রয়ার খুলে ঘুষ গ্রহণ এবং সেই টাকা ড্রয়ার থেকে নিজ হাতে প্যান্টের পকেটে রাখার ভিডিও প্রকাশ পেলে তা ভাইরাল হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল রোববার দুপুরে ইন্সপেক্টর অব জেনারেল (আইজিআর) আবদুল মান্নান খান সরেজমিন আড়াইহাজার উপজেলা সাব–রেজিস্ট্রি অফিস পরিদর্শন করে স্থানীয় দলিল লেখকদের সঙ্গে কথা বলে সাব-রেজিস্ট্রারের ঘুষ গ্রহণের সত্যতা পান। এর আগে সাব-রেজিস্ট্রার ঘুষ ছাড়া কোনো কাজ করেন না, এমন প্রতিবাদে গত মঙ্গলবার থেকে আড়াইহাজারে দেড় শতাধিক দলিল লেখক একযোগে কর্মবিরতি পালন করেন।
এছহাক আলীকে সাময়িক বরখাস্তের বিষয়টি নিশ্চিত করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে আইন মন্ত্রণালয়ের অধীন নিবন্ধন অধিদপ্তর। এই আদেশে বলা হয়, এটা সম্পূর্ণ বেআইনি। এটি সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধি ১৯৮৫ অনুযায়ী অসদাচরণ ও দুর্নীতিপরায়ণমূলক অভিযোগে অভিযুক্ত। সাময়িক বরখাস্তের পাশাপাশি বিভাগীয় মামলা করে কেন তাকে চাকরি থেকে বরখাস্ত বা অন্য কোনো শাস্তি দেয়া হবে না, তা জানাতে সাত কর্মদিবসের মধ্যে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *