কুমিল্লা থেকে স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ : আলমডাঙ্গার গোয়ালবাড়ি আটকে রাখার অভিযোগ

 

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর থানার হাসানপুর গ্রামের স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা গোয়ালবাড়িতে আটকে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ফুঁসলিয়ে বিভিন্ন কাজি অফিসে বিয়ের জন্য দৌড়ঝাঁপ করে উপায় না পেয়ে অজ্ঞাত স্থানে আটকে রাখার অভিযোগ উঠেছে গোয়ালবাড়ি গ্রামের নুরুজ্জামানের বিরুদ্ধে।

জানা গেছে, কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর থানার হাসানপুর গ্রামের স্থানীয় স্কুলের ৯ম শ্রেণির ছাত্রী পলি ওরফে সাথির (১৪) সাথে মোবাইলফোনে পরিচয় হয় চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গার গোয়ালবাড়ি গ্রামের আশরাফুল ওরফে বুড়োর ছেলে নুরুজ্জামানের (২২) সাথে। গত বুধবার কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর থানার স্থানীয় একটি স্কুল থেকে অপহরণ করে নুরুজ্জামান গ্রামে নিয়ে আসে। ফুঁসলিয়ে বিভিন্ন গ্রামের আটকে রাখে তাকে। বিয়ের জন্য বিভিন্ন কাজি অফিসে দৌড়ঝাঁপ করে বিয়ে না করতে পেরে অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখেছে নাবালিকা স্কুলছাত্রীকে।

এ ব্যাপারে স্কুলছাত্রী পলি খাতুন ওরফে সাথির মায়ের কাছে মোবাইলফোনে জানাতে চাইলে তিনি বলেন, গত বুধবার সকালে মেয়ে স্কুলে যায়। ফিরতে দেরি হলে চিন্তায় পড়ি। রাতেও না ফিরলে তার বান্ধবী ও নিকট আত্মীয়দের বাড়িতে খোঁজখবর নিয়ে পাওয়া যায় নি। ২ দিন পর মোবাইলফোনের মাধ্যমে জানতে পারি সে চুয়াডাঙ্গাতে আছে। তিনি আরও জানান, মেয়ে ছোট মানুষ কোনো কিছু চেনে না বোঝে না। তাকে অপহরণ করে নিয়ে ধর্ষণ করেছে নুরুজ্জামান। আমরা এর বিচার চাই।

এ ব্যপারে গোয়ালবাড়ি গ্রামে গেলে ঘটনার সত্যতা পাওয়া যায়। গ্রামবাসী জানায়, একটি মেয়েকে নুরুজ্জামান গ্রামে নিয়ে এসেছে তাকে অজ্ঞত স্থানে আটকে রেখে বিয়ের আয়োজন করছে। কিন্তু মেয়ে নাবালিকা হওয়ায় কোনো কাজি বিয়ে পড়াতে রাজি না হওয়ায় বিভিন্ন গ্রামে নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে বলে জানায়।

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *