একই সময়ে ঘণ্টাধ্বনী বাজিয়ে সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করলো বাংলাদেশের শিশুরা

স্টাফ রিপোর্টার: আমরা চাই প্রতিবন্ধীসহ সকল শিশু বিদ্যালয়ে আসুক এই স্লোগানে একযোগে বাংলাদেশের শিশুরা এক মিনিট ধরে ঘণ্টা বাজিয়ে সকল প্রতিবন্ধী শিশুর শিক্ষার অধিকার আদায়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলো নীতি নির্ধারক ও দেশবাসীর। ‘উই রিং দ্যা বেল’ নামক বিশ্বব্যাপী ক্যাম্পেইনের অংশ হিসেবে বাংলাদেশের প্রতিবন্ধী ও অ-প্রতিবন্ধী শিশুরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ঘণ্টা, ঢোল, বাদ্যযন্ত্র এমনকি থালা বাসনে আওয়াজ তুলে প্রতীকী এ কর্মসূচি পালন করেছে। চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও ঝিনাইদহসহ সারাদেশে এ কর্মসূচি পালিত হয়। একই সময়ে আফ্রিকা, এশিয়া, ইউরোপ এবং ল্যাটিন আমেরিকার বিভিন্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়ের হাজার হাজার শিক্ষার্থীরা এই ক্যাম্পেইনে অংশগ্রহণ করেছে। যে সমস্ত প্রতিবন্ধী শিশু স্কুলে যেতে পারেনা তাদের শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করার জন্য অন্য সকল প্রতিবন্ধী ও অ-প্রতিবন্ধী সকল শিশু, তাদের শিক্ষক, অভিভাবক মিলে এ কর্মসূচি পালনের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ঠ নীতি নির্ধারণ কর্তৃপক্ষের মনোযোগ আকর্ষণ করলো।
চুয়াডাঙ্গা রাহেলা খাতুন বালিকা বিদ্যালয় ও মাস্টারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সকাল সাড়ে ১০টার থেকে সিগনেচার ক্যাম্পেইন, বেল রিলে শেষে দুপুর বারোটা থেকে বারোটা এক মিনিট পর্যন্ত একযোগে ঘণ্টাধ্বনী বাজালো চুয়াডাঙ্গার শিশুরা। গতকাল বুধবার লিলিয়ান ফাউন্ডেশন ও ডিআরআরএ’র সহযোগিতায় প্রত্যাশা সামাজিক উন্নয়ন সংস্থার আয়োজনে কর্মসূচিতে প্রত্যাশা সামাজিক উন্নয়ন সংস্থার সভাপতি প্রফেসর আতিয়ার রহমানের সভাপতিত্বে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাহেলা খাতুন বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিরুল ইসলাম, মাস্টারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মালেকা পারভীন নাহার, যুব উন্নয়ন অধিদফতরের প্রশিক্ষক গিয়াস উদ্দিন, সিনিয়র শিক্ষক সাইফুল্লাহ, ওয়াশিম উদ্দিন, সাহিদ হাসান জোয়ার্দ্দার, স্বপন কুমার, মাহমুদা খাতুন পান্না, উম্মে মৌসুয়া, নুরুন্নাহার, মাজেদা খাতুন, ছালেহা খাতুন, হাচিনা মমতাজ, সাহরিয়া সুলতানা, প্রত্যাশার সমন্বয়কারী সাইদুর রহমান, কো-ওয়ার্কার আসাদুজ্জামান ও মহিবুল হাবীব প্রমুখ। বক্তারা বলেন, সারাবিশ্বব্যাপী এই কার্যক্রমটি একইভাবে উদযাপন করছে প্রতিবন্ধী ও সাধারণ স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা তাদের স্কুুলের আঙিনায় একত্রিত হয়ে ১ মিনিটব্যাপী বেল ও ড্রাম বাজিয়ে অসাধারণভাবে কোলাহল তৈরি করেছে। এই কর্মসূচির মাধ্যমে তারা প্রতিবন্ধী শিশুদের বিদ্যালয় গমনে প্রতিবন্ধকতা দূর করার মাধ্যমে সকল প্রতিবন্ধী শিশুর শিক্ষার অধিকার নিশ্চিত করার জন্য নীতি-নির্ধারক ও সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করলো। পরিচালনা করেন সিনিয়র শিক্ষক দিলরুপা খাতুন।
ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, ঝিনাইদহ কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে ‘উই রিং দ্যা বেল’ শিরোনামে এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এইড ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ও ডিআরআরএ’র সহায়তায় প্রধান অতিথি ছিলেন ঝিনাইদহ সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মুশতাক আহম্মেদ, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঝিনাইদহ কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর সুষেন্দু কুমার ভৌমিক, ঝিনাইদহ প্রতিবন্ধীসেবা ও সাহায্য কেন্দ্রের জেলা প্রতিবন্ধী বিষয়ক কর্মকর্তা তরিকুল ইসলাম। আরও উপস্থিত ছিলেন সুশীল সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে নুরুন্নাহার কুসুম, আফরিনা ইয়াসমিন রানী ও এইড ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী তারিকুল ইসলাম পলাশ, প্রশাসন বিভাগের, সহকারী পরিচালক মি. তন্ময় কুন্ডু, প্রতিবন্ধী শিশু পুনর্বাসন কর্মসূচির সহকারী পরিচালক জনাব সুরাইয়া পারভীনসহ এইড ফাউন্ডেশনের সকল পর্যায়ের কর্মী এবং উক্ত স্কুল অ্যান্ড কলেজের শিক্ষকবৃন্দ, সাংবাদিক এম এ সামাদ ও তরিকুল ইসলাম তারেক।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *