ইবি ফের বন্ধ ঘোষণা : শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ

ইবি প্রতিনিধি: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) ফের অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এক জরুরি সিন্ডিকেটের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়। আজ শনিবার সকাল ১০টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল ত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে এক ছাত্র নিহতের জের ধরে গত ৩০ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়। ৩৫ দিন বন্ধ থাকার পর গত ৫ জানুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয় খুলে দেয়া হয়।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে আটটার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে এক জরুরি সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল হাকিম সরকারের সভাপতিত্বে সিন্ডিকেট সভায় উপউপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. শাহিনুর রহমান, রেজিস্ট্রার ড. মসলেম উদ্দিন, পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

বৈঠক শেষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. আবদুল হাকিম সরকার বলেন, অনিবার্যকারণবশত শিক্ষার্থীদের বৃহত স্বার্থে বিশ্ববিদ্যালয় অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ক্যাম্পাস বন্ধ থাকবে। ক্লাস পরীক্ষা বন্ধ থাকলেও প্রশাসনিক কার্যক্রম চলবে বলে তিনি জানান।

শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ: এদিকে আগামীকাল সকাল ১০টার মধ্যে আবাসিক শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, দীর্ঘ ৩৫ দিনের ছুটি শেষে গত ৭ জানুয়ারি হলসমুহ খুলে দেয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট কাউন্সিলের সভাপতি অধ্যাপক ড. দেবাশীষ শর্মা বলেন, শিক্ষার্থীদের আগামীকাল সকাল ১০টার মধ্যে হল ত্যাগের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। পরবর্তীতে হল খোলার তারিখ জানানো হবে।

এদিকে দীর্ঘ ছুটি শেষে ক্যাম্পাস খোলার দু দিন যেতে না যেতেই আবার কর্তৃপক্ষ ফের বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করায় চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন শিক্ষার্থীরা। ব্যবস্থাপনা বিভাগের ছাত্র শাহ আলম ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, অবরোধ সত্বেও চরম ভোগান্তির পর শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজশাহী থেকে ক্যাম্পাসে এসে পৌঁছিয়েছি। রুমে আসার পরপরই শুনলাম আগামীকাল থেকে আবার ক্যাম্পাস বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। অবরোধের মাঝে আবার কালকে বাড়ির উদ্দেশে রওনা দিতে হবে। তিনি বলেন, এ ক্যাম্পাস এখন আর পড়াশোনার ক্যাম্পাস না। এ ক্যাম্পাস এখন বন্ধের ক্যাম্পাস। শাহাদাত হোসেন নামে আরেক শিক্ষার্থী বলেন, ক্যাম্পাস স্বাভাবিক না করে আবার বন্ধ করে দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতার কারণে আমরা লেখাপড়ার পরিবেশ এখানে পাচ্ছি না।

শিক্ষকদের গাড়িতে দুর্বত্তদের হামলা: গতকাল শুক্রবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বহনকারী একটি মাইক্রেবাসে হামলার ঘটনা ঘটেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন অফিস সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাত পৌনে আটটার দিকে কুষ্টিয়া শহর শিক্ষক বহনকারী একটি মাইক্রোবাস লক্ষ্মীপুর নামক স্থানে এসে দুর্বৃত্তরা মাইক্রোবাস লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে গাড়িটির বেশ ক্ষয়ক্ষতি হয়। পরিবহন প্রশাসক অধ্যাপক ড. মামুনুর রহমান বলেন, হামলায় গাড়ির কিছু ক্ষয়ক্ষতি হলেও কোনো শিক্ষক আহত হননি।

প্রসঙ্গত, গত বছরের ৩০ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের বাসে এক ছাত্র নিহতের জের ধরে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অনির্দিষ্টকালের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করে দেয়। নিহতের জের ধরে অনির্ধারিত বন্ধ ও শীতকালীন ছুটি শেষে গত ৫ জানুয়ারি অফিস ও ৭ জানুয়ারি আবাসিক হল খুলে দেয়া হয়। তবে ৮ জানুয়ারি থেকে ক্লাস শুরু হবার কথা থাকলেও অবরোধের কারণে ক্যাম্পাসে বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিবহন চলাচল বন্ধ থাকায় গত দু দিনে কোনো ক্লাস পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। অবশেষে আবার অনির্দিষ্টকালের জন্য ক্যাম্পাস বন্ধ করে দেয়া হলো।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *