আলমডাঙ্গার আইলহাস ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার লিটনকে মারধরের অভিযোগ

মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধি: আলমডাঙ্গার আইলহাস ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড সদস্য লিটনকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জেলা পরিষদ থেকে বরাদ্দ কৃত ঘোলদাড়ী গ্রামের ঈদগাহ ও মক্তব মেরামতের টাকা নিয়ে গতকাল মারামারির ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, আলমডাঙ্গার আইলহাস ইউনিয়নের ঘোলদাড়ী গ্রামের ঈদগাহ ও মক্তব নির্মাণের  জন্য গ্রামের মৃত ফজলুর রহমানের ছেলে বর্তমান ইউপি সদস্য লিটন হোসেনকে চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদ ২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়। গতকাল মক্তবে লেবার দিয়ে কাজ করার সময় গ্রামের কয়েকজন টাকা দাবি করে। টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাকে মারধর করে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

লিটন মেম্বার অভিযোগ করে বলেন, জেলা পরিষদ থেকে ঘোলদাড়ী ঈদগাহ ও মক্তব মেরামতের জন্য জেলা পরিষদে আবেদন করলে ২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়। এই একই প্রকল্প দেখিয়ে একই গ্রামের আবুল কাশেমের ছেলে আব্দুল হালিম লাটিম আবেদন করেন। তিনি বরাদ্দ না পেয়ে ক্ষিপ্ত হয়ে এক লাখ টাকা দাবি করেন। গতকাল সোমবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে পাইকপাড়া গ্রামের মৃত মজিবারের ছেলে মহাবুল ও লাটিম এসে মক্তবের সামনে বরাদ্দকৃত টাকা দাবি করেন। টাকা না পেয়ে আমাকে মারধর করেন তারা। স্থানীয়রা উদ্বার করে হাসপাতালে চিকিৎসা দিয়েছে।

এ ব্যপারে জানতে চাইলে লিটন ও মাহাবুল মারধরের ঘটনা মিথ্যা বলে জানিনে বলেন, গ্রামের ঈদগাহ ও মক্তবের কমিটি রয়েছে। সেই কমিটির তোয়াক্কা না করে ইউপি সদস্য লিটন নিজ ক্ষমতা বলে সম্পূর্ণ অনিয়ম করে মক্তব মেরামত করছে। এ বিষয়ে জানতে গেলে দুজনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়েছে এছাড়া অন্য কিছু না।

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *