৪৮ ঘন্টা পরেও পদ্মায় নিখোঁজ কলেজছাত্র মৃন্ময়ের মেলেনি সন্ধান : উদ্ধার অভিযান আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ ঘোষণা : মামলার প্রস্তুতি

দামুড়হুদা প্রতিনিধি : রাজশাহীর পদ্মা নদীতে নিখোঁজ কলেজছাত্রের ৪৮ ঘণ্টা পরেও কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। ৩ দিন উদ্ধার অভিযান চালানোর পর উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নিদের্শনা মোতাবেক গতকাল মঙ্গলবার সন্ধ্যায় উদ্ধার অভিযান কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাজশাহী (সদর) ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ফরহাদ হোসেন। তিনি বলেন, গত রোববার পদ্মা নদীতে নৌকা ভ্রমণে গিয়ে মোবাইলে সেলফি তোলার চেষ্টাকালে চলন্ত নৌকা থেকে পানিতে পড়ে নিখোঁজ হন নগরীর মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র আসিফ আল মাসুদ মৃন্ময় (১৮)। খবর পেয়ে ওই দিন দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত অনুসন্ধান চালালেও তার সন্ধান পাওয়া যায়নি। পরদিন সোমবার সকাল থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত পুনরায় উদ্ধার অভিযান শুরু করা হয়। কিন্ত ওই ছাত্রের কোনো সন্ধান না পেয়ে ওই দিনেরমত উদ্ধার অভিযান স্থগিত করা হয় এবং গতকাল মঙ্গলবার আবারও উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করা হয়। ৩ দিন অভিযান চালালেও তার কোনো সন্ধান পাওয়া যায়নি। রাজশাহী মতিহার থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শাহাদত হোসেন বলেন, রাজশাহী পদ্মানদীর লালন মঞ্চের দক্ষিণে চরশ্রীরামপুর এলাকায় মাঝনদীতে সেলফি তুলতে গিয়ে নৌকা থেকে পানিতে পড়ে সে নিখোঁজ হয়। থানায় এখনও পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি। ওইদিন মৃন্ময়ের সাথে থাকা সহপাঠিদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের পরিবারের জিম্মায় দেয়া হয়েছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এদিকে নিখোঁজ কলেজছাত্র মৃন্ময়ের ছোটো চাচা আব্দুস সালাম বলেছেন, ঘটনাটি অনেকটাই রহস্যজনক। কারণ সে যদি সেলফি তুলতে গিয়ে নৌকা থেকে পড়ে যায় তাহলে তার মোবাইলফোনটিও পানিতে পড়ার কথা। তর্কের খাতিরে ধরেই নিলাম মোবাইলফোনটি নৌকায় পড়েছে। তাহলে মোবাইলের অবশ্যই কোনো না কোেন চিহৃ থাকতো। মোবাইলটি দেখে মনেই হচ্ছেনা যে এটি পড়ে গিয়েছিলো। তাছাড়া ওই মোবাইলফোনটি এমনভাবে লক করা হয়েছে যা সাধারণ কেউ খুলতে পারেনি। শেষমেষ এক্সপার্ট লোক দিয়ে ওই লক খোলার ব্যবস্থা করা হয়। তিনি আরও জানান, যে ছেলে দুটো ওর সাথে ছিলো তারা মৃন্ময়ের সাথে দামুড়হুদায় এসেছিলো। তারা গত শুক্রবার এক সাথেই রাজশাহীর উদ্দেশে দামুড়হুদা থেকে রওনা হয়। তার ভাগ্যে কী ঘটেছে তা এখনও নিশ্চিত না। মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, আমার জানামতে গতকাল সন্ধ্যায় নৌকার মাঝিসহ মোট ৬ জনের নামে সংশ্লিষ্ট থানায় জিডি করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, রাজশাহী মডেলস্কুল অ্যা- কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র দামুড়হুদা দশমীপাড়ার মহাসিন আলী দর্জির ছেলে আসিফ আল মাসুদ মৃন্ময়সহ ৬ শিক্ষার্থী গত রোববার দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে পদ্মানদীতে বেড়াতে যায়। এদের মধ্যে তিনজন ছাত্র ও তিনজন ছাত্রী ছিলো। তারা একটি নৌকা ভাড়া নিয়ে রাজশাহীর পদ্মানদীর মধ্যচর এলাকায় ঘুরছিলো। এরই এক পর্যায়ে সে নৌকা থেকে পড়ে পানিতে ডুবে যায়।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *