হরিনারায়ণপুরের অপহৃত ব্যবসায়ীর লাশ উদ্ধার : নিজ ঘরে বৃদ্ধ খুন

কুষ্টিয়ার দু প্রান্ত থেকে দু জনের লাশ উদ্ধারের পর জেনারেল হাসপাতালমর্গে নিয়ে ময়নাতদন্ত

 

স্টাফ রিপোর্টার: কুষ্টিয়া হরিনারায়ণপুরের নূরুল ইসলাম (৩২) ও দৌলতপুরের শেরপুর গ্রামের আজিরুদ্দিন সরদারকে (৭০) খুন করা হয়েছে। নূরুল ইসলাম নিখোঁজ থাকার দু দিনের মাথায় গতকাল কুষ্টিয়া কুমারখালীর কাঞ্ঝনপুরের কালিনদী থেকে লাশ উদ্ধার করা হয়। শেরপুরের আজিরুদ্দিন সরদারকে তার বাড়িতেই কুপিয়ে খুন করা হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার তার লাশ দৌলতপুর থানা পুলিশ উদ্ধার করে।

পুলিশ ও এলাকাবাসীসূত্রে জানা গেছে, কুষ্টিয়া জেলা সদরের হরিনারায়ণপুর গ্রামের বাজারে নুরুল ইসলাম হাঁড়ি-পাতিলের ব্যবসা করতেন। গত রোববার সন্ধ্যার দিকে বাড়ি ফেরার পথে তিনি নিখোঁজ হন। রাতেই তার পরিবারের লোকজন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। গতকাল সকাল সাড়ে ৮টার দিকে হরিনারায়ণপুর বাজারের কাছে কাঞ্চনপুর গ্রামে কালিন্দীতে নুরুলের মৃতদেহ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশকে জানায়। নূরুল ইসলামকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করা হয় বলে গুঞ্জন ওঠে। এ গুঞ্জনের ধন্ধে পড়ার এক পর্যায়ে গতকাল কুমারখালীর কালিনদী থেকে তার লাশ উদ্ধার হয়।

এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার ভোর ৬টার দিকে দৌলতপুর উপজেলার শেরপুর গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে বৃদ্ধ কৃষক আজিরুদ্দিন সরদারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। আজিরুদ্দিনের সাথে স্থানীয় নবীর উদ্দীন পক্ষের লোকজনের জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। এ নিয়ে গত বুধবার সন্ধ্যার দিকে উভয় পক্ষের মধ্যে মারামারি হয়। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গভীররাতে পুলিশ ওই এলাকায় তল্লাশি চালায়। তবে ওই সময় মারামারিতে অংশ নেয়া কাউকে পাওয়া যায়নি। গতকাল সকালে আজিরুদ্দিনের বাড়ির লোকজন পুলিশকে ফোন করে জানায়, তাকে ঘুমন্ত অবস্থায় কে বা কারা কুপিয়ে হত্যা করেছে। এ ঘটনায় হত্যামামলার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন।

                ‌আমাদের দৌলতপুর প্রতিনিধি পুলিশ ও স্থানীয়দের বরাত দিয়ে জানিয়েছেন, আজিরুদ্দিন সরদার এক চরমপন্থি নেতার পিতা। খুনের নেপথ্যে রহস্য নিহিত রয়েছে বলে গ্রামের অনেকেই মন্তব্য করেছেন। অবশ্য নবী পক্ষের লোকজনকেই এ খুনের জন্য দায়ী করা হচ্ছে।

দৌলতপুর থানার উপপরিদর্শক ওবাইদুর রহমান জানান, একটি হত্যামামলা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে শেরপুর গ্রামের নবী পক্ষের সাথে আলাল সর্দারের পক্ষের লোকজনের মধ্যে বিরোধ ছিলো। এর জের ধরে নবী পক্ষের লোকজন বুধবার রাতে নিজ বাড়িতে হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে আজির উদ্দিন সর্দারকে হত্যা করে লাশ ফেলে পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তদন্ত চলছে।

কুষ্টিয়ার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (ভেড়ামারা সার্কেল) সিএ হালিম জানান, নিহতের মাথায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানোর ফলেই তার মৃত্যু হয়েছে বলে পুলিশ ধারণা করছে। নিহতের পরিবার এ খুনের ঘটনায় প্রতিপক্ষ চরমপন্থি নেতা মান্নান মোল্লার অনুসারী নবী গ্র“পকে দায়ী করেছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *