স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করাকে কেন্দ্র দুপক্ষের সংঘর্ষ : আহত ৬

 

 

আলমডাঙ্গা ব্যুরো:স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করার প্রতিবাদ করাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে দু পক্ষের ৬ জন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৫ জনকে আলমডাঙ্গা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে (হারদী) ভর্তি রাখা হয়েছে। গতকাল বুধবার বিকেলে চুয়াডাঙ্গা জেলা লোকমোর্চার নেতৃবৃন্দ হারদী হাসপাতালে সরেজমিনে যান। তারা জানান, বিষয়টি তদন্তপূর্বক আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

জানা গেছে, আলমডাঙ্গা উপজেলার ভাংবাড়িয়া ইউনিয়নের মহেষপুর উত্তরপাড়ার সমসের আলীর ছেলে হারদী কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র মোহন আলী একই পাড়ার ষষ্ঠ শ্রেণির এক ছাত্রীকে দীর্ঘদিন ধরে উত্ত্যক্ত করে আসছে। গত সোমবার স্কুলে যাওয়ার পথে মোহন ওই স্কুলছাত্রীর ওড়না কেড়ে নেয়। বিষয়টি স্কুলছাত্রী বাড়ির লোকজনকে জানালে গত মঙ্গলবার তার চাচা সামসুল ও দাদি সুফিয়া খাতুন মোহনের বাড়িতে গিয়ে বিষয়টি জানতে চান। এ সময় মোহন তাদের সাথে অসদাচরণ ও অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। উভয় পক্ষের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মোহন ও তার লোকজন ওই ছাত্রীর দাদি ও চাচাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে। খবর পেয়ে সামসুলের বড় ভাই আনোয়ার ও তার স্ত্রী হোসনে আরা ছুটে গেলে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষে আহত হোসেন আলীর স্ত্রী সুফিয়া খাতুন (৫৫), তার দু ছেলে ছেলে আনোয়ার হোসেন (৩৫), সামসুল ইসলাম (৩০), মওলা বক্সের ছেলে সমসের আলী (৪০), তার ছেলে কলেজছাত্র মোহন আলীকে (১৮) হারদী হাসপাতালে ভর্তি রাখা হয়েছে। গত মঙ্গলবার জেলা লোকমোর্চার নেতৃবৃন্দ হারদী হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে ঘটনার বর্ণনা শুনেন এবং তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে নেতৃবৃন্দ জানান।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *