সাংবাদিকদের নিরাপত্তা বিধানের আশ্বাস : ওসি প্রত্যাহারের দাবি প্রত্যাহার

দৈনিক মাথাভাঙ্গা দফতরে হানা : প্রেসক্লাবে হামলা : মামলার বাদীকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত

 

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার সকল সাংবাদিকের নিরাপত্তা বিধানের সর্বাত্মক চেষ্টার প্রতিশ্রুতি দিয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান মুনসী বলেছেন, এটা আমার দায়িত্ব। দৈনিক মাথাভাঙ্গায় তিন দফা হামলার বিষয়টি পূর্বে জানা সম্ভব হয়নি বলেই অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটিয়ে সরতে পেরেছে হামলাকারীরা। হামলা ঠেকাতে না পারার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি। আমাকে ভুল বুঝবেন না। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে চুয়াডাঙ্গা প্রেসক্লাবে কর্মনির্ধারণ সভা চলাকালে সদর থানার ওসি উপস্থিত হয়ে সকল সাংবাদিকের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার আশ্বাস দিলে তার প্রত্যাহারের দাবি প্রত্যাহার করে নেয়া হয়।

চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আরো বলেছেন, ঘটনার পর থেকে পুলিশের তরফে যা যা করার তার সবই করা হয়েছে। ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি দেয়ার পাশাপাশি উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণে আন্তরিকতায় ঘাটতি থাকবে না।

প্রসঙ্গত, গত ৬ জানুয়ারি সন্ধ্যার পর তিন দফা তিন দল যুবক দৈনিক মাথাভাঙ্গার প্রধান কার্যালয়ে হানা দেয়। অবর্ণনীয় গালিগালাজের এক পর্যায়ে সম্পাদককে লাঞ্ছিত করা হয়। প্রেসক্লাব হামলা মামলার এক আসামি মামলার বাদী প্রেসক্লাব সেক্রেটারি তথা মাথাভাঙ্গা সম্পাদককে লাঞ্ছিত করার প্রতিবাদে গতপরশু প্রেসক্লাবে প্রতিবাদসভায় বলা হয়, প্রেসক্লাবে হামলার পর প্রেসক্লাব সদস্যরা নিরাপত্তা চেয়ে গণজিডি করেন। জিডির প্রতি সদর থানার ওসি আন্তরিক দৃষ্টি দেননি। দিলে পত্রিকা অফিসে হামলার ঘটনা ঘটতো না। এরই প্রেক্ষিতে সদর থানার ওসিকে প্রত্যাহারের দাবি জানানো হয়। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে প্রেসক্লাবের সহসভাপতি জেড আলমের সভাপতিত্বে প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ বৈঠকে বসেন। করণীয় নির্ধারণসভার এক পর্যায়ে সদর থানার ওসি হাজির হয়ে নিরাপত্তার বিষয়ে আন্তরিক হবেন বলে প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করায় প্রত্যাহারের দাবি থেকে প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ আপাতত সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নেন।

আওয়ামী লীগের প্রতিবাদ

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান স্বাক্ষরিত এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ৭ জানুয়ারি দৈনিক মাথাভাঙ্গা পত্রিকার প্রথম পাতায় প্রকাশিত ‘দৈনিক মাথাভাঙ্গা দফতরে তিন দফা তিন দল যুবকের হানা’ শীর্ষক প্রকাশিত খবরের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি আমরা। প্রকাশিত সংবাদে বলা হয়েছে, হামলাকারীরা ক্ষমতাসীদলের সদস্য, যা সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখা সবসময়ই সাংবাদিকদের মত প্রকাশের স্বাধীনতায় বিশ্বাসী। সাংবাদিকদের প্রতি কোনো প্রকার অসম্মানজনক ঘটনাকে কখনও প্রশ্রয় দেয় না। ক্ষমতাসীন দলের কোনো সদ্য এ ধরনের ঘটনার সাথে জড়িত নয়। এ ধরনের বিচ্ছিন্ন ঘটনার সাথে ক্ষমতাসীন দলের নাম ব্যবহার করায় দলকে হেয় প্রতিপন্ন করা হয়েছে বলে আমরা মনে করি। এ ধরনের ঘটনার সাথে ক্ষমতাসীন দলের কোনো সদস্য জড়িত নয়। আমরা জোর প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *