সভাপতি পদপ্রার্থী আশাদুল হোসেন লেমন ও গিয়াস উদ্দীনের প্রার্থিতা বাতিল : আপিল

 বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার নির্বাচন : আজ সন্ধ্যায় প্রার্থিতা প্রত্যাহারের সুযোগ

স্টাফ রিপোর্টার: বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতি চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার নির্বাচনে সভাপতি পদপ্রার্থী বর্তমান সভাপতি হাজি আসাদুল হোসেন জোয়ার্দ্দার লেমন ও মো. গিয়াস উদ্দীনের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়েছে। মনোনয়ন যাচাই-বাছাই শেষে নির্বাচন কমিশন এ দুজনের প্রার্থিতা বাতিল করেন। অবশ্য গতকালই প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার জন্য আপিল করা হয়েছে। আপিল গ্রহণ করে আপিল বোর্ডে তা প্রেরণ করে আজ বুধবার সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে নির্বাচন কমিশনকে জানানোর জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।
বাতিলকৃত সভাপতি পদপ্রার্থী দুজনের প্রার্থিতা আপিলবোর্ডের রায়ে ফেরত না পেলে অপর সভাপতি পদপ্রার্থী সালাউদ্দিন চান্নু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে পারেন। নির্বাচন কমিশনসূত্র বলেছে, সভাপতি পদপ্রার্থী আসাদুল হোসেন জোয়ার্দ্দার লেমন ও মো. গিয়াস উদ্দীনের মনোনয়নেই সমর্থক হিসেবে স্বাক্ষর করেছেন সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী ইবরুল হাসান জোয়ার্দ্দার। একজন ভোটার একই পদের একজনকে ভোট দিতে পারেন যেমন, তেমনই তিনি একজনকেই সমর্থন করার এখতিয়ার রাখেন। একই ব্যক্তি একই পদের দুজনকে সমর্থন করার কারণে বাতিল হয়েছে দুজনেরই প্রার্থিতা। আজ আপিল বোর্ড কি সিদ্ধান্ত দেয় তা জানার অপেক্ষায় এখন সকলে। আপিল বোর্ডের আহ্বায়ক হাজি অ্যাড. আশরাফ আলী। সদস্য দুজন হলেন অ্যাড. নরুল ইসলাম ও অ্যাড. এমএম মুকুল। নির্বাচন কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন হাজি অ্যাড. সেলিম উদ্দীন খান।
ঘোষিত তফশিল অনুযায়ী চুয়াডাঙ্গা জেলা দোকান মালিক সমিতির নির্বাচনের ভোটগ্রহণ আগামী ৩ নভেম্বর শুক্রবার। জেলা আইনজীবী সমিতির মিলনায়তনে গোপন ব্যালটে ভোটগ্রহণ করা হবে। গতকাল ছিলো মনোনয়ন যাচাই-বাছাই শেষে প্রার্থী তালিকা প্রকাশের দিন। এ দিনে প্রকাশিত প্রার্থিতা তালিকায় সভাপতি পদপ্রার্থী দুজনের প্রার্থিতা বাতিল ছাড়া বাকি একজন স্বতন্ত্র সদস্যপদসহ দুটি প্যানেলের সকল প্রার্থীরই মনোনয়ন বৈধ বলে ঘোষণা দেয়া হয়। সদস্য পদে স্বতন্ত্র তথা একক প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন এএইচএমএম কালাম তুহিন। বৈধ প্রার্থীর মধ্যে সভাপতি পদে সালাউদ্দীন চান্নু, সিনিয়র সহসভাপাতি পদে অব্দুল কাদের জগলু ও সামসুল আলম। সহসভাপতি পদে ৫টি আসনে ১০ জন প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন নীল রতন সাহা, হাজি মো. শাহাবুদ্দিন, সহিদুল ইসলাম ভাষা, সামসুজ্জামান খোকন, শীফ উদ্দীন, মফিজুর রহমান, হেলাল উদ্দীন, মশিউর রহমান, শহিদুল হক কদর ও রমজান আলী জোয়ার্দ্দার। সাধারণ সম্পাদক পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ইবরুল হাসান জোয়ার্দ্দার ও মাসুদুর রহমান। যুগ্মসম্পাদক পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বী হাজি সেলিম রেজা ও ওহিদুল ইসলাম বিশ্বাস, সহসাধারণ সম্পাদক পদে তিনটি আসনে ৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বী। এরা হলেন- হাবিল হোসেন জোয়ার্দ্দার, দেলোয়ার উদ্দীন জোয়ার্দ্দার দুলু, নিশিত চক্রবর্তী, মশিউর রহমান, সাইদুর রহমান ও সামসুল আলম। কোষাধ্যক্ষ পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বী তহিবুুর রহমান জোয়ার্দ্দার বাবু ও মো. ওসমান গনি। সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুজ্জামান খোকন ও শওকত হাসান। সহসাংগঠনিক সম্পাদক পদে হেদায়েতুল্লাহ মণ্ডল ও এসএম শামীম মাসুদ। দফতর সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বী দুজন হাসান সাইফুল্লাহ খালিদ ও ফারুক হোসেন। প্রচার সম্পাদক পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন মফিজুর রহমান মফি ও শাহজাহান আলী। সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বী পবিত্র কুমার আগরওলা ও খন্দকার জান্নাতুল ফেরদৌস সৌরভ। ধর্ম ও সমাজ সেবক সম্পাদক পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বী ডা. নাজমুুল আলম খান ও আলা উদ্দীন। ক্রীড়া সম্পাদক পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন মহিসন রেজা ও রেজাউল হক রিজা। এছাড়া কার্যকরি সদস্য পদে ৩৩ আসনে প্রার্থীর সংখ্যা দুটি প্যানেলসহ একজন স্বতন্ত্র দিয়ে দাঁড়িয়েছে ৬৭ জন। এরা হলেন- আব্দুর রহিম, জাকির হোসেন, আহসানুল্লাহ মামুন, মনিরুজ্জামান মুকুল, জয়দেব কুমার দেবনাথ, আব্দুল মালেক, হামিদুর রহমান জনি, দারুল ইসলাম, আবু সাঈদ, সুলতান আরেফিন, আব্দুর রাজ্জাক, দিলীপ কুমার সাধু খা, আরিফুজ্জামান, শফিকুল ইসলাম ঝণ্টু, আরিফুজ্জাসান চৌধুরী জুয়েল, মোয়াজ্জিন হোসেন বাবলু, মুরশেদ কামাল, জালাল উদ্দীন, আব্দুস সালাম, রবিউল হক রবি, সহিদ হোসেন বিশ্বাস, আসাদুজ্জামান শান্তি, সাইজুল হাসান, ইকতিয়ার হোসনে, মোমিনুল ইসলাম, মিণ্টু ম-ল, মোশারফ হোসেন, কৃষ্ণ কুমার সাধু খা, সেলিম রেজা, গোলাম মেহেদী, পাচু গোপাল সাহা, শরিফুল ইসলাম, আব্দুর রব শেখ, মাহফুজুর রহকমান জোয়ার্দ্দার মিজাইল, জাকির হোসেন, গোলাম মস্তফা শেখ মাস্তার, গিয়াস উদ্দীন বাচ্চু, মফিজুর রহমান জোয়ার্দ্দার হাবলু, মাহবুব আলম রিংকু, কিশোর কুমার কু-ু, নাজিম উদ্দিন, স্বপন, আজমল হোসেন ঝড়ু, শাহিদুল হাসান ফিরোজ, আব্দুল মালেক, আসলাম আলী, নওশাদ আলী, আব্দুল বারী, নরুল আমিন, রাশিদুল হক তুষার, আতিয়ার, হাফিজুল হক লাভলু, দিপংকর দে, গোলাম মওলা খান, হাজি রমজান আলী, শেখ পিয়ার মুহাম্মদ, আবুল কালাম, রোকন উদ্দীন মিলো, টিপু সুলতান মালিক, আহসান খান, জাকির হোসেন টুটুল, আশরাফুর রহমান জোয়ার্দ্দার মিলন, ইলিয়াস হোসেন, বজলুর রহমান, মাসুম বিশ্বাস, বিপ্লব হোসেন ও এএইচএমএম কালাম তুহিন।
সমিতির মোট ভোটার সংখ্যা ৯৮৪ জন। আজ মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। আগামীকাল ১৯ অক্টোবর চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করা হবে। ২১ অক্টোবর বরাদ্দ দেয়া হবে প্রতীক।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *