মেহেরপুর সদর উপজেলা নির্বাচন জমে উঠেছে : ভোটাররা করছেন চুলচেরা বিশ্লেষণ

মেহেরপুর অফিস: আগামী ১৯ ফেব্রুয়ারি মেহেরপুর সদর উপজেলা নির্বাচন। বিগত ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিরোধী দলের অংশগ্রহণ না থাকায় ওই নির্বাচন নিয়ে বিএনপিসহ মেহেরপুরবাসীর মধ্যে ছিলো না খুব বেশি নিবার্চনী আমেজ। উপজেলা নির্বাচনের প্রার্থীরা ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। এলাকার উন্নয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ভোট প্রার্থনা করছেন তারা। আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দলীয়ভাবে তাদের একক প্রার্থী মনোনয়ন দিয়েছে।

জেলার তিনটি উপজেলার মধ্যে প্রথম দফায় ১৯ ফেব্রুয়ারি মেহেরপুর সদর উপজেলা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এ নির্বাচনে মোট ১ লাখ ৭৮ হাজার ৭০৭ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৮৮ হাজার ৫৮ এবং মহিলা ভোটার ৯০ হাজার ৬৪৯ জন। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে দুজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৪ জন ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দুজন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এরা হলেন- চেয়ারম্যান পদে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ গোলাম রসুল এবং বিএনপিসহ ১৯ দলীয় জোটের জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাড. মারুফ আহাম্মেদ বিজন। ভাইস চেয়ারম্যান পদে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রব বিশ্বাস, বিএনপিসহ ১৯ দলীয় জোটের পৌর জামায়াতের আমির অধ্যক্ষ মাহাবুবুল আলম, জেলা যুবদলের যুগ্মআহ্বায়ক প্রভাষক ফয়েজ মোহাম্মদ ও শহর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আজিজ আহম্মেদ মতিন। এছাড়া মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের সামিউন বাশিরা পলি ও বিএনপির মহিলা দলের সভানেত্রী বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোমানা আহাম্মেদ রুমা।

নির্বাচনের প্রার্থীরা ব্যক্তিগত ও সমষ্টিগতভাবে করছেন মিটিং। যাচ্ছেন গণসংযোগে। এদিকে চায়ের দোকানসহ সবখানেই বইছে নির্বাচনী হাওয়া। হাতে হাত মিলিয়ে দোয়া চেয়ে ফিরছেন প্রার্থীরা। সরকার ও বিরোধী দল উপজেলা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করায় ভোটারদের মধ্যে প্রার্থী নির্বাচনে চলছে নানা হিসাব নিকাশ ও চুলচেরা বিশ্লেষণ।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী আলহাজ গোলাম রসুল বলেন, নির্বাচিত হলে মাদকমুক্ত মেহেরপুর সমাজ গড়বো। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখাসহ সাম্প্রদায়িক সম্প্রতি সমুন্নত রাখার অঙ্গীকারও করেন তিনি। বিএনপিসহ ১৯ দলীয় জোটের চেয়ারম্যান প্রার্থী অ্যাড. মারুফ আহাম্মেদ বিজন বলেন, যারা নির্বাচনে কাজ করবে তারা যেন কোনো প্রশাসনিক হয়রানির শিকার না হয়।

মেহেরপুর জেলা নির্বাচন অফিসার মোজাম্মেল হোসেন জানান, উপজেলা নির্বাচনের সকল প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে। তফশিল মোতাবেক সব নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন করা সম্ভব হবে বলে তিনি মনে করেন। তিনি আরো বলেন, আগামী ৩ ফেব্রুয়ারি মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিন। ৪ ফ্রেবুয়ারি প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *