মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি : মেহেরপুরে ওষুধ ব্যবসায়ীদের মানববন্ধন ও স্মারকলিপি প্রদান

 

মেহেরপুর অফিস: মেহেরপুর জেলা ড্রাগিস্ট অ্যান্ড কেমিস্ট সমিতির আহ্বায়ক আনোয়ারুজ্জামান ওরফে আনারুল ইসলামের নামে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মেহেরপুর জেলার ওষুধ ব্যবসায়ীরা অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেন। গতকাল রোববার দুপুর থেকে এ ধর্মঘট শুরু হলেও পরে তা প্রত্যাহার করা হয়। একই দিন বিকেলে মেহেরপুর প্রেসক্লাবের সামনে তারা মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেন। জেলা প্রশাসকের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে তারা ধর্মঘট প্রত্যাহার করেন।

মেহেরপুর জেলা ড্রাগিস্ট অ্যান্ড কেমিস্ট সমিতির সদস্য সচিব রাকিবুল হাসান রনো জানিয়েছেন, গত ১৮ সেপ্টেম্বর ওষুধ বেচাকেনা নিয়ে সমিতির আহ্বায়ক হাসপাতাল সড়কের মিয়া ফার্মেসির সত্বাধিকারী আনারুল ইসলামের সাথে এরিস্ট ফার্মা লি.’র মেডিকেল ইনফরমেশন অফিসার (এম.আই.ও) শরিফুল ইসলামের বাকবিতণ্ডাতা বাধে। সমিতির সদস্য আব্দুল লতিফ মধ্যস্ততা করে দ্বন্দ্ব মিটিয়ে দেন। এরপরও আনারুল ইসলাম ও তার দোকান কর্মচারী কাফিরুল ইসলামের নামে গোপনে সদর থানায় ছিনতাই মামলা দায়ের করেন এরিস্ট ফার্মা লি.’র এম.আই.ও শরিফুল ইসলাম। ওই মামলায় গতকাল রোববার দুপুরে আদালতে জামিন নিতে গেলে সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মহিবুল ইসলাম জামিন বাতিল করে আসামিদের কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন। ওই সময় তাদের আদালত থেকে জেলহাজতে নেয়ার পথে আনারুল ইসলাম অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাকে পুলিশ প্রহরায় মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়।

এ দিকে এখবর ছড়িয়ে পড়লে মেহেরপুরের ওষুধ ব্যবসায়ীরা তাদের দোকান বন্ধ করে হাসপাতালে ছুটে যান এবং মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে জেলা শহরের ৭৪টি ওষুধের দোকান বন্ধ করে ধর্মঘট শুরু করেন। মামলা প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত হাসপাতাল চত্বরে জেলা ড্রাগিস্ট অ্যান্ড কেমিস্ট সমিতির নেতৃবৃন্দ অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের সিদ্ধান্ত দেন। তারা মানববন্ধন ও জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি প্রদানেরও সিদ্ধান্ত নেন। এছাড়াও তারা এরিস্ট ফার্মা লি.’র সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক রাখবেন না বলেও সিদ্ধান্ত নেন। মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত তাদের ওই কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে তারা আরো জানান। সিদ্ধান্ত মোতাবেক তারা ওই দিন বিকেলে মেহেরপুর প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। ওই সময় বক্তব্য রাখেন জেলা ড্রাগিস্ট অ্যান্ড কেমিস্ট সমিতির সদস্য সচিব রাকিবুল হাসান রনো, সদস্য আব্দুল লতিফ প্রমুখ। পরে তারা জেলা প্রশাসক বরাবর স্মারকলিপি পেশ করেন। জেলা প্রশাসক মাহমুদ হোসেন স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। এ সময় জেলা প্রশাসকের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে ব্যবসায়ীরা ধর্মঘট প্রত্যাহার করেন। সন্ধ্যায় তারা তাদের দোকান খোলেন।

এদিকে এরিস্ট ফার্মা লি’র মেডিকেল ইনফরমেশন অফিসার শরিফুল ইসলাম তার লিখিত অভিযোগে বলেন, মেহেরপুর জেলা ড্রাগিস্ট অ্যান্ড কেমিস্ট সমিতির আহ্বায়ক আনোয়ারুজ্জামান এরিস্ট ফার্মা লি.’র ওষুধ কেনার সময় কিছু অনৈতিক প্রস্তাব দেন এবং মাঝে মাঝে কিছু ওষুধ ফেরত দেন। কোম্পানির স্বার্থে প্রতিবাদ করলে তিনি আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দেন। গত ১৮ সেপ্টেম্বর রাত ১০টার দিকে মেহেরপুর হাসপাতাল গেটে তিনি ও তার কর্মচারীসহ কয়েকজন লোক আমাকে মারধর করেন ও আমার প্যান্টের ভেতরে থাকা কোম্পানির কালেকশন করা এক লাখ ৩৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেন। এরিস্ট ফার্মা লি.’র এম.আই.ও শরিফুল ইসলাম ঢাকার খিলগাঁও বাগিচার আকরাম আলী বিশ্বাসের ছেলে। তিনি চাকরির জন্য মেহেরপুর শহরের মল্লিকপাড়া এলাকায় অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর ইসমাইল হোসেনের বাড়িতে থাকেন। ঘটনার পর তিনি গত ২০ সেপ্টেম্বর মেহেরপুর সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। যাতে বিবাদী করা হয় মেহেরপুর শহরের ওয়াপদাপাড়ার মৃত আব্দুল করিম মিয়ার ছেলে মেহেরপুর জেলা ড্রাগিস্ট অ্যান্ড কেমিস্ট সমিতির আহ্বায়ক আনোয়ারুজ্জামান ও তার দোকানের কর্মচারী মো. কাফিকে।

Leave a comment

Your email address will not be published.