মহেশপুর এসিল্যান্ড অফিসের ৪১ লাখ টাকা গায়েব!

 

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: মহেশপুর এসিল্যান্ড অফিসের কর্মকর্তাদের স্বাক্ষর জালিয়াতি করে ভুয়া বিল ভাউচারের মাধ্যমে ৪১ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। স্থানীয় হিসাবরক্ষণ অফিসের সহায়তায় মহেশপুর এসি ল্যান্ড অফিসের নাজির কাম-ক্যাশিয়ার মহিউদ্দীন আহম্মেদ ২০১২ সালের ২৯ জুলাই থেকে ২০১৬ সালের ৬ এপ্রিল পর্যন্ত এই টাকা আত্মসাত করে নিয়েছেন বলে অভিযোগ ওঠেছে। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসকের গঠিত তদন্ত কমিটির এক প্রতিবেদনে জালিয়াতির মাধ্যমে সরকারি অর্থ হাতিয়ে নেয়ার চাঞ্চল্যকর এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

মহেশপুরের এসিল্যান্ড চৌধুরী রওশন ইসলাম জানান, গত ২ মে মহেশপুর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিসের সাবেক নাজির জাল স্বাক্ষর করে সরকারের বিভিন্ন খাতের ২২ লাখ টাকা উত্তোলনের সময় হাতেনাতে ধরা পড়েন। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়। এ সময় তার কাছ থেকে ৮টি নকল সিল উদ্ধার করা হয়। ঘটনা তদন্তে ঝিনাইদহের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) খলিল আহম্মেদকে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের এক কমিটি গঠিত হয়। ওই কমিটির অন্য দুই সদস্য হলেন- মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আশাফুর রহমান ও ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসক অফিসের সহকারী কমিশনার তাছলিমা আক্তার।

জানা গেছে, গত ১৩ মে থেকে তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করেন। ১৫ দিন তদন্ত শেষে গত ২৭ মে জেলা প্রশাসকের দপ্তরে তদন্ত কমিটি যৌথ স্বাক্ষরে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেন। যার স্মারক নং জেপ্রঝি/০৩-০৬/১৬-৩৭। চার পৃষ্ঠার ওই তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, দুর্নীতির দায়ে অপসারিত ও আদালত কর্তৃক সাজাপ্রাপ্ত মহেশপুর এসি ল্যান্ড অফিসের নাজির কাম ক্যাশিয়ার মহিউদ্দীন আহম্মেদ ৪৬ মাসে ৬০টি বিলের মাধ্যমে ৪১ লাখ ১৬৬৭ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। ২০১৬ সালের ৬ এপ্রিল ১২৯ নং বিলের বিপরীতে মহিউদ্দীন টাকা তুলে নেন। তাকে সহায়তা করেন মহেশপুর উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের দুর্নীতিবাজ কিছু কর্মকর্তা। তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে মহেশপুর উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিসের টোকেন রেজিস্টারের ৪৬৩৩ ও ৪৬৩৪ নং কোডে এমন কিছু বিলের সন্ধান পাওয়া গেছে যা উপজেলা ভুমি অফিস থেকে পাঠানো হয়নি। এমন অনেক বিল স্বাক্ষর জাল করে তুলে নেয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে হিসাবরক্ষণ অফিস কোনো যাচাই বাছাই করেনি।

সূত্র জানায়, আত্মসাৎকৃত অর্থের পরিমাণ আরো বাড়তে পারে। কারণ মহেশপুর উপজেলা হিসাবরক্ষণ অফিস তদন্ত কাজে দায়িত্বশীলতার সাথে সহায়তা করেনি। অনেক বিলের নথি তারা অফিস থেকে গায়েব করে দিয়েছেন। তদন্ত করার সময় সে সব বিল তারা দেখাতে পারেনি। ধারণা করা হচ্ছে, মহেশপুর উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা সুজিত কুমার, অডিটর আব্দুল খালেক ও জুনিয়র অডিটর মোহাম্মদ আলী এই চক্রের সাথে জড়িত। জুনিয়র অডিটর মোহাম্মদ আলী বিভিন্ন সময় মহিউদ্দীনের কাছ থেকে ফ্রিজসহ নানা রকমের উপঢৌকন নিয়েছেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

আর তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা সরকারী অর্থের আমানতকারী। প্রতিটি খাতেই সরকারী বরাদ্দ সুনিদ্দিষ্ট। কেউ ইচ্ছা করলেই বেশি টাকা তুলতে পারে না। কিন্তু জলিয়াতি চক্রের প্রধান মহিউদ্দীন কীভাবে বিনা বাধায় বরাদ্দের অতিরিক্ত টাকা উত্তোলন করেছেন, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন তদন্ত কমিটি। তদন্ত কমিটির ভাষ্য প্রতিবছর হিসাবরক্ষণ অফিসে আভ্যন্তরীণ অডিট হয়।

প্রত্যেক ডিডিও যোগদান করার পর তাদের নমুনা স্বাক্ষর হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার কাছে প্রেরণ করেন। এক্ষেত্রে আভ্যন্তরীণ অডিট যেমন প্রশ্নবিদ্ধ, তেমনি স্বাক্ষর যাচাই না করে কীভাবে একজন বরখাস্তকৃত ক্যাশিয়ারের কাছে হিসাবরক্ষণ অফিস টাকা দিতেন এমন প্রশ্ন তোলা হয়েছে।

তদন্ত কমিটির এক কর্তকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, মহেশপুর এসিল্যন্ড অফিসের প্রধান সহকারী খায়রুল ইসলাম এসিল্যান্ডকে না জানিয়ে বরখাস্তকৃত নাজির মহিউদ্দীনকে দিয়ে বিল করাতেন। এই বিলগুলো অফিস থেকে যাওয়ার মাঝ পথেই পরিবর্তন করতো মহিউদ্দীন। সেখানে এসিল্যন্ডসহ প্রত্যেকের জাল স্বাক্ষর করে নকল সিল মোহর ব্যবহার করা হতো। তবে এ সব বিলে প্রধান সহকারী খায়রুল ইসলামের অনুসাক্ষর নেই। এ সব বিলে এ্যামবুশ সিল ব্যবহার করা হয়েছে। এতেই প্রমানিত হয় মহিউদ্দীনের সাথে মহেশপুর হিসাবরক্ষণ অফিসের কর্মকর্তারা জড়িত।

এ বিষয়ে মহেশপুর উপজেলা হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা সুজিত কুমার জানান, এই জালিয়াতি ঘটনার সাথে তারা জড়িত নয়। তিনি বলেন, ২০১২ সাল থেকে এ পর্যন্ত অনেক এসিল্যান্ড, অডিটর ও হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করেছেন। আমি বেশি দিন এখানে আসেনি।

তিনি পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, এসিল্যান্ড অফিস একজন বরখাস্তকৃত নাজির দিয়ে বিল ওঠানোর দায়িত্ব দিয়ে ভুল করেছেন। এর দায়ভার তোর আমরা নেব না। তবে তিনি বিল গয়েব করার বিষয়টি এড়িয়ে যান। তিনি ওপরের নির্দেশ ছাড়া আমি এ সব বিল দেখাতে পারি না। তদন্ত কমিটির প্রধান ঝিনাইদহের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) খলিল আহম্মেদ বলেন, আমরা একটি তদন্ত রিপোর্ট জমা দিয়েছি। সেখানে ৪১ লাখের কিছু বেশি টাকার গরমিল পাওয়া গেছে বলে জানান তিনি। আর তদন্ত এখনো চলমান রয়েছে। মহেশপুর হিসাবরক্ষণ অফিস যেভাবে সহায়তা করার কথা সেভাবে করেনি। তারপরও আমরা আরো অনুসন্ধান চালাচ্ছি।

সূত্রে জানা গেছে, জালিয়াতিচক্রের প্রধান মহিউদ্দীন কোটচাঁদপুর ইউএনও অফিসে চাকরি করার সময় জালিয়াতির দায়ে জিআর ২১/৯২ নং মামলায় ১০ বছর সাজাপ্রাপ্ত হন। দীর্ঘদিন কারাভোগের পর সুপ্রিমকোর্টের ক্রিমিনাল আপিলের ১১৩৬/৯৯ নং মামলার রায়ে তিনি খালাস পেয়ে পুনরায় চাকরিতে যোগদান করেন। এরপর ২০১৫ সালের ১৩ অক্টোবর কালীগঞ্জ উপজেলা ভূমি অফিসের ১০ লাখ টাকা দুর্নীতির মাধ্যমে উত্তোলনের দায়ে অপসারিত হন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *