বোঝে না সে বোঝে না- বুঝিয়ে দিচ্ছে আমরা পারছি না : পতন ঠেকাতে জেগে ওঠো ঘুরে দাঁড়াও

 

মাহমুদ কামরান: গল্পটা বস্তাপচা অধিকাংশ বাংলা সিনেমার মতোই। শিল্পীদের অভিনয় শৈলী আর পোশাকের উপস্থাপন চোখ ধাঁধানোর মতো। আর তাতেই মেতেছে যুবতীসহ বাংলার বধূরা। যুবতীদের চাই পাখি জামা, আর বধূদের চাই পাখি শাড়ি। ঈদে পাখি জামা, শাড়ির বায়না মেটাতে না পেরে অনেক মাতা-পিতাই আত্মহত্যার পথে পা বাড়াচ্ছেন, যুবতীদের কয়েকজন ইতোমধ্যেই আত্মহত্যা করে পরপারে পাড়ি জমিয়েছে।

ঘরে ঘরে টিভি। মহিলারা টিভি খুললেই রিমোটে ভারতীয় বেসরকারি চ্যানেল। হরেক নামের ধারাবাহিকে নজর। এর মধ্যে ‘বোঝে না সে বোঝে না’ যেনো বাংলার উঠতি বয়সী নারীদের সংস্কৃতিটাই পাল্টে দিয়েছে। এ ধারাবাহিকের গল্পটার নায়িকার নামই পাখি। চরিত্রটা দরিদ্র হলেও পোশাকের বদৌলতে নায়িকা। আর সে কারণেই পাখি চরিত্রের নায়িকার মতো পোশাক চায়। সারাদেশে পাখি জামার কারণে মৃত্যুর সংখ্যা অনেক। এই পোশাকের বায়না ধরে চুয়াডাঙ্গারই দু স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। পার্শ্ববর্তী কুষ্টিয়া ইবি থানাতে এক মায়েরও আত্মহত্যার খবর পাওয়া গেছে। পাখি জামা বা শাড়ির কারণে আরো কতোজন যে আত্মহত্যা করছে তার সব খবর অবশ্য পত্রিকার পাতায় ঠাঁই পাচ্ছে না। গ্রাম বাংলার অনেকেই এ মন্তব্য করে বলেছে, দেশি সংস্কৃতি উধাও। পেয়ে বসেছে ভারতীয় সিরিয়াল সংস্কৃতি। এর ধকল সামলাতে না পেরে দরিদ্র ও স্বল্প আয়ের অসংখ্য পরিবারে নেমে এসেছে দাম্পত্য কলহ, পিতা-মাতার সাথে সন্তানের বিরোধ। হায়রে কপাল!

পবিত্র রমজানে আত্মহত্যার অপচেষ্টা চালানোদের মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে ৩৮ জনকে। এর মধ্যে ২১ জন নারী, ১৭ জন পুরুষ। যার মধ্যে যুবতীর সংখ্যা ১০। যুবতীদের অধিকাংশেরই আত্মহত্যার আড়ালে ওই পাখি জামা। বড়রা? তাদের মধ্যে কয়েকজন রয়েছেন যারা সন্তানের পাখি জামার বায়না মেটাতে না পেরে মনের কষ্টে আত্মহত্যার অপচেষ্টা চালিয়েছেন। গত ২০ জুলাই কুষ্টিয়া ইবির নৃসিংহপুরের শমসের আলীর স্ত্রী আলিয় খাতুন (৩৪) গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন। তিনি তার একমাত্র কন্যার পাখি জামা কিনে দেয়ার আবদার মেটাতে গিয়ে স্বামীর সাথে মনমালিন্যে জড়িয়ে পড়েন। মনোকস্টে তিনি আত্মহত্যা করেন। চুয়াডাঙ্গা জেলা সদরের নিমতলা গ্রামের লাল্টু রহমানের স্কুলপড়ুয়া মেয়ে শিলা খাতুন পাখি জামা না পেয়ে গত ২১ জুন আত্মহত্যা করে। আলমডাঙ্গার পাইকপাড়ার হান্নানের মেয়ে ইয়াসমিন একই কারণে গত ১৫ জুলাই আত্মহত্যা করেছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

যে পাখি জামার জন্য এতো কিছু তার দাম কতো? চুয়াডাঙ্গার বিপণী বিতানগুলো ঘুরে দেখা গেছে, ১ হাজার ৭শ থেকে ৪ হাজার ২শ টাকার মধ্যে বিক্রি হচ্ছে এই জামা। উঠতি বয়সী মানেই পাখি জামার দিকে নজর। শাড়ি? তারও দাম কম নয়। ২ হাজার ৭শ থেকে ১৪ হাজার টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। স্বল্প আয়ের স্বামী কীভাবে তার স্ত্রীর পাখি শাড়ির বায়না মেটাবেন? দরিদ্র কৃষক, রিকশা চালক বা দিনমজুর কীভাবে তার মেয়েকে কিনে দেবেন অতো টাকা দামের পাখি জামা? এ কারণেই অনেকেই ঝুকছে আত্মহননের দিকে। বাড়ছে আত্মহত্যা প্রবণতা।

দায় কার? অনেকেরই অভিমত- দেশের তথা নিজস্ব সংস্কৃতি চর্চায় সৃষ্টিশীলতা না থাকা, এবং আকাশ সংস্কৃতিকে অবাধ করে দেয়াই যে কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে তা বুঝতে কারোর বাকি নেই। ভারতীয় ধারাবাহিক নাটকগুলোর অভিনয় শৈলীর কাছে বাংলাদেশি নাটক পাত্তাই পাচ্ছে না। অবাক হলেও সত্য যে, ভারতীয় চ্যানেলগুলো দেদারছে দেখানো হচ্ছে বাংলাদেশে, আর বাংলাদেশি কোনো চ্যানেলই ভারতের কোনো ক্যাবল নেটওয়ার্কই দেখাচ্ছে না। কী চমৎকার মুক্ত সংস্কৃতি। অদূরদর্শিতা আমাদের নিয়ে যাচ্ছে আত্মহত্যার দ্বারপ্রান্তে। দায়িত্বশীলেরা দেখছেন দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে। কিছুদিন পর? অপেক্ষা করছে পতনের আরো অনেক কিছু। সংস্কৃতি চর্চায় পিছিয়ে পড়া জাতি এখন দেখতে থাকো! পতন ঠেকাতে চাইলে জেগে ওঠো, ঘুরে দাঁড়াও। কারণ আমাদের হুমায়ুন আহম্মেদের নাটকই কিছুদিন আগে ওদের কাছে ছিলো বিনোদনের অমৃত।

Leave a comment

Your email address will not be published.