বিনম্র ও গভীর শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ

 

মাথাভাঙ্গা ডেস্ক: বিনম্র ও গভীর শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ, প্রতিটি ক্ষেত্রে জাতির পিতার আদর্শ বাস্তবায়ন এবং শোককে শক্তিতে পরিণত করে যেকোনো মূল্যে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ রুখে দিয়ে ক্ষুধা-দারিদ্র্যমুক্ত অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকারের মধ্যদিয়ে রাষ্ট্রীয়ভাবে যথাযোগ্য মর্যাদায় গতকাল সোমবার পালিত হলো স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস। শোকাবহ ১৫ আগস্টে বাঙালি জাতি চোখের জল আর হৃদয়ের ভালোবাসায় স্মরণ করেছে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সকল শহীদদের। জাতির পিতা হারানোর বেদনায় বাঙালি জাতি দিনভর কেঁদেছে। শোকাচ্ছন্ন নীরবতায় যেন থমকে গিয়েছিলো গোটা দেশ। ৪২ বছর হয়ে গেলো, এখনও মৃত্যুঞ্জয়ী মহানায়ক বঙ্গবন্ধুকে ভোলেনি কৃতজ্ঞ বাঙালি। বরং নতুন করেই নতুন শপথে বলীয়ান হয়ে বাঙালি জাতি গতকাল ৪২ বছর আগের ভয়াল এক রাতের শোকাবহ স্মৃতি স্মরণ করেছে। যিনি জাতিকে উপহার দিয়েছিলেন স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ, লাখো শহীদের রক্তস্নাত লাল-সবুজের পতাকা। শুনিয়েছিলেন সেই অমর বাণী- এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম,এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম। দেশজুড়ে দিনব্যাপী জাতীয় শোক দিবসের প্রতিটি কর্মসূচিতেই বঙ্গবন্ধুর পলাতক খুনিদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে এনে মৃত্যুদণ্ডাদেশ কার্যকর, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ সমূলে উপড়ে ফেলে জঙ্গি হামলা ও গুপ্তহত্যার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়ে তোলার প্রত্যয় এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার দ্রুত সম্পন্ন করে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করার দাবি জানানো হয়। একই সাথে শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করে দেশকে এগিয়ে নেয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে তারা বলেন, বঙ্গবন্ধুর বাংলায় জঙ্গিদের কোনো ঠাঁই নেই।

সকাল সাড়ে ৬টায় দেশ ও জাতির পক্ষ থেকে ধানমণ্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান রাষ্ট্রপতি মো. আবুদল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পুষ্পস্তবক অর্পণের পর সশস্ত্র বাহিনীর একটি চৌকস দল গার্ড অব অনার প্রদান করে। এ সময় বিউগলে বেজে ওঠে করুণ সুর। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানোর পর সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। পরে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ আগস্টের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে তারা মোনাজাত করেন। রাষ্ট্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রী পৃথক দুটি ফুলেল শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের পর কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থেকে এই মহান নেতার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করেন।

সারা বাংলাদেশের ন্যায় চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, ঝিনাইদহ ও কুষ্টিয়ায় গভীর ভালোবাসা আর বিনম্র শ্রদ্ধায় পালিত হলো বাংলাদেশের অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদতবার্ষিকী। গতকাল সোমবার  সূর্যোদয়ের সাথে সাথে সব সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্বশাসিত ভবন ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে সকাল সাড়ে ৬টায় জাতীয় ও দলীয় পতাকা অর্ধনমিত ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। এ সময় শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়।

চুয়াডাঙ্গায় সকাল সাড়ে ৯টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বর থেকে একটি শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে জেলা শিল্পকলা একাডেমি চত্বরে এসে শেষ হয়। পরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, জেলা জজশীপ ও জেলা আইনজীবী সমিতি, স্বাস্থ্য বিভাগ, পৌরসভা, জেলা পরিষদ, জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা কারাগার, পাসপোর্ট অফিস, সদর উপজেলা পরিষদ, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ, সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজ, বিএমএ চুয়াডাঙ্গা শাখা, বঙ্গবন্ধু পরিষদ স্বাস্থ্য বিভাগ চুয়াডাঙ্গা শাখা, স্বাচিপ চুয়াডাঙ্গা শাখা, বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন চুয়াডাঙ্গা শাখা, চুয়াডাঙ্গা হোমিও প্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালসহ বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠান। পরে শ্রীমন্ত টাউন হলে আলোচনা সভার আয়োজন করে জেলা প্রশাসন। এতে সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক আনজুমান আরা। প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক জিয়াউদ্দীন আহমেদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দিন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ সামসুল আবেদীন খোকন, পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজাদুল ইসলাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক মুন্সি আলমগীর হান্নান। চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মুন্সি আবু সাঈফের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সরকার বিভাগের উপপরিচালক আনজুমান আরা। সভায় বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারিদের বিদেশ থেকে ফিরিয়ে এনে শাস্তির দাবি জানান বক্তারা। এর আগে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা সংগ্রামের ভাষণের প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনের আয়োজন করে জেলা তথ্য অফিস।

দিবসটি উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা জজশীপ ও জেলা আইনজীবী সমিতির যৌথ উদ্যোগে জেলা আইনজীবী সমিতি মিলনায়তনে আলোচনা সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। চুয়াডাঙ্গা জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাড. নুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় জেলা ও দায়রা জজ মোহা. রবিউল ইসলাম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। বিশেষ অতিথি হিসেবে চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ড. এবিএম মাহমুদুল হক, অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ (১) জাকির হোসেন, জেলা আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক মহ. শামসুজ্জোহা (পিপি) ও সরকারি কৌশলী (জিপি) মোল্লা আব্দুর রশীদ  উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনাসভায় যুগ্ম জেলা জজ আব্দুর রহিম, জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুস্তাফিজুর রহমান ও জেলা জজ আদালতের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মতিউল আশরাফ বক্তব্য রাখেন।

চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদ ওয়াক্তিয়া মসজিদে মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। মিলাদ ও দোয়া পরিচালনা করেন ইমাম সাব্বির আহমেদ মোমিন। চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদ আয়োজিত মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে জেলা পরিষদের সদস্য শহিদুল ইসলাম সাহান, মাফলুকাতুর রহমান সাজু, মাহবুবুর রহমান মোল্লা, খলিলুর রহমান, সংরক্ষিত সদস্য হাছিনা খাতুন, কাজল রেখা, তানিয়া বেগম ও মিতা খাতুন উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা রমজান আলী, প্রধান সহকারী ইসরাইল হোসেন, হিসাবরক্ষক আসলাম উদ্দিন, উচ্চমান সহকারী বেদানা খাতুন ও গোপনীয় সহকারী জালাল উদ্দিনসহ কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আইনজীবীদের মধ্যে আলহাজ্ব মুনছুর উদ্দিন মোল্লা, সেলিম উদ্দিন খান, আলমগীর হোসেন, বজলুর রহমান, আব্দুল মালেক, শফিকুল ইসলাম, আবু তালেব বিশ্বাস, আতিয়ার রহমান, মসলেম উদ্দিন (২) ও তসলিম উদ্দিন ফিরোজ বক্তব্য রাখেন । এ সময় দোয়া পরিচালনা করেন কোর্ট জামে মসজিদের পেশ ইমাম রুহুল আমিন ।

এ সময় যুগ্ম জেলা জজ (২) তপন রায়, সহকারী জজ (সদর) খায়রুল ইসলাম, সহকারী জজ (আলমডাঙ্গা) সেলিম রেজা ও সহকারী জজ (জীবননগর) ফারিহা নোশীন বর্ণী এবং জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্যবৃন্দ ও জজশীপের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিশেষ আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি জেলা ও দায়রা জজ মোহা. রবিউল ইসলাম বলেন, ৭ই মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু মুক্তি ও স্বাধীনতা সংগ্রামের কথা বলেছেন। জিন্নাহ সাহেব যখন উর্দু ভাষা চাপিয়ে দিতে গেছেন তখন তিনি বলেছেন বাংলা ভাষা চাই । ৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ৬৬ সালের ছয় দফা ও ৬৯ সালের গণঅভ্যুথানে এবং ৭০ সালের নির্বাচন তিনি নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি ছিলেন জীবন পুরুষ ।  জাতির ও দেশের জন্য তিনি সময় দিয়েছেন। বঙ্গবন্ধুর প্রত্যেকটা বিষয় জানতে হবে। জাতির জন্য এতো ত্যাগ স্বীকার করেছেন । তিনি সহজ সরল ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর সবকিছু আত্মস্ত করতে পারি তাহলেই স্বার্থকতা।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের আয়জনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে ফুলদিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় প্রাঙ্গণে জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস জাতীয় পতাকা ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সাবেক পৌর মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার দলীয় পতাকা উত্তোলন করেন। এরপর জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় প্রাঙ্গণে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ফুলদিয়ে শ্রদ্ধা জানান জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুল হক বিশ্বাস ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সাবেক পৌর মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার।

জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক সাবেক পৌর মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশে দিনের তাৎপর্য তুলে ধরে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি খুশতার জামিল, প্রচার সম্পাদক ফেরদৌস আরা সুন্না, সাংগাঠনিক সম্পাদক আলমগীর হান্নান, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. আব্দুল মালেক, শ্রমিক লীগের সভাপতি আফজালুল হক, উপপ্রচার সম্পাদক শওকত আলী বিশ্বাস, ক্রীড়া সম্পাদক আরশাদ উদ্দিন চন্দন, দফতর সম্পাদক অ্যাড. আবু তালেব বিশ্বাস, জেলা মহিলা লীগের সভাপতি সদর উপজেলার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কহিনুর বেগম, মুক্তিযোদ্ধা প্রজন্মলীগের চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার আহ্বায়ক গরিব রুহানী মাসুম সাহী প্রমুখ। এছাড়াও অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগ, সকল সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠণের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এরপর পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত, ১৫ আগস্টের শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।

বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্যদিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালন করেছে চুয়াডাঙ্গা জেলা পুলিশ। দিবসটি  উপলক্ষে পুলিশ লাইন মঞ্চে দিনব্যাপী কোরআন খানি, দোয়া মাহফিল, এতিম ও দুস্থদের মাঝে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়। বিকেলে পুলিশ সদস্যদের অংশগ্রহণে ক্বেরাত, হামদ/নাত ও আযান প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা পুলিশ সুপার নিজাম উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) আব্দুল মোমেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর ও আলমডাঙ্গা সার্কেল) তরিকুল ইসলাম, সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (দামুড়হুদা ও জীবননগর সার্কেল) কলিমুল্লাহ ও সহকারী পুলিশ সুপার (হেড কোয়াটার্স) আহসান হাবীব। পরে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন অতিথিবৃন্দ।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে বিভিন্ন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল সাড়ে ৭টায় চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের সম্মেলনকক্ষে প্রথমে মিলাদ মাহফিল ও  আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গার সিভিল সার্জন ডা. রওশন আরা বেগম। আলোচনাসভা শেষে সিভিল সার্জন ডা. রওশন আরা বেগমের নেতৃত্বে র‍্যালি বের করা হয়। পরে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

বাংলাদেশ কৃষক লীগ ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, চুয়াডাঙ্গ জেলা শাখার আয়োজনে দিবসটি উপলক্ষে চুয়াডাঙ্গা জেলা শ্রীমন্ত টাউন হলে আয়োজিত আলোচনাসভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠানে চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক জানিফের পরিচালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদাক আজাদুল ইসলাম আজাদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য জেলা আ.লীগের সহসভাপতি হাজি আলী আজগার টগর, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হাজি শেখ সামসুল আবেদীন খোকন, সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড. শফিকুল ইসলাম শফি, প্রধান বক্তা চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র ওবায়দুর রহমান চৌধুরি, বিশেষ বক্তা চুয়াডাঙ্গা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কবীর, চিৎলা ইউপি চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান প্রমুখ।

এছাড়া বক্তব্য রাখেন চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক জাকির হুসাইন জ্যাকি, চুয়াডাঙ্গা জেলা যুবলীগের সাবেক সদস্য অ্যাড. তসলিম উদ্দীন ফিরোজ, আলমডাঙ্গা উপজেলা যুবলীগের যুগ্মআহ্বায়ক সাজ্জাদুল ইসলাম স্বপন, চুয়াডাঙ্গা সদর থানা কৃষক লীগের আহ্বায়ক আব্দুল মতিন দুদু, চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শরীফ হোসেন দুদু, চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের  সাবেক সদস্য গাজী এমদাদুল হক সজল, চুয়াডাঙ্গা সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ইমরান আহমেদ বিপ্লব, চুয়াদাঙ্গা পৌর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নঈম পারভেজ সজল, পৌর ছাত্রলীগের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক মাফিজুর রহমান মাফি, পৌর ছাত্রলীগের দফতর সম্পাদক সেক সামী তাপু, চুয়াডাঙ্গা সদর থানা ছাত্রলীগের সভাপতি জুয়েল রানা ও সাধারণ সম্পাদক সুমন রেজা। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কৃষকলীগ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সভাপতি মোমিনপুর ইউপি চেয়ারম্যান জনাব গোলাফ ফারুক জোয়াদ্দার।

এদিকে যথাযথ মর্যাদায় ফার্স্ট ক্যাপিটাল ইউনিভার্সিটিতে শোক দিবসের কর্মসূচি পালিত হয়েছে। সকাল ৯টায় জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার মধ্যদিয়ে দিনের কর্মসূচি শুরু হয়। সকাল ১০টায় আলোচনা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে ট্রেজারার ও ভারপ্রাপ্ত ভিসি প্রফেসর আবদুল মোত্তালিবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা ছিলেন প্রতিষ্ঠানের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান সাবেক পৌর মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন। ইংরেজি বিভাগের সিনিয়র লেকচারার আমিরুল ইসলাম জয়ের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন রেজিস্ট্রার ও ইংরেজি বিভাগের প্রধান ইমরোজ মুহাম্মদ শোয়েব ও সমাজবিজ্ঞান বিভাগের প্রভাষক রেজওয়ানুল হাসান অনি। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক ড. মহবুব আলম, সহকারী রেজিস্ট্রার নাফিউল ইসলাম জোয়ার্দ্দার শান্ত, প্রশাসনিক কর্মকর্তা মফিজুল হকসহ সকল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও লেকচারারগণ।

চুয়াডাঙ্গা সরকারি আদর্শ মহিলা কলেজে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অধ্যক্ষ প্রফেসর নওরোজ মোহাম্মদ সাঈদ, বিশেষ অতিথি ছিলেন উপাধ্যক্ষ ড. জাহাঙ্গীর আলম, শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক মফিজুর রহমান। বাংলা বিভাগের প্রভাষক নাঈমা ফারহানার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতির দায়িত্ব পালন করে বাংলা বিভাগের প্রধান ড. আব্দুর রশীদ। কলেজের অনুষ্ঠানের সাথে কলেজ প্রশাসনের পক্ষ থেকে শিক্ষক-কর্মচারী-শিক্ষার্থীরা র‌্যালি সহযোগে শিল্পকলা একাডেমিতে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্যদিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

চুয়াডাঙ্গা জেলা সদরের নূরনগর-জাফরপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সকালে শোকর‌্যালি, আলোচনাসভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মহাবুল হোসেন লালু। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন প্রধান শিক্ষক ফারজানা নাসরিন। চুয়াডাঙ্গা মহিলা দাখিল মাদরাসা এবারও শোকদিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে। পালিত কর্মসূচির মধ্যে ছিলো শোক র‌্যালি, আলোচনাসভা ও দোয়া। সার্বিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সুপার মমতাজ বেগম। আলোকদিয়া রোমেলা খাতুন মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শোকর‌্যালি, আলোচনাসভা ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান শিক্ষক শীরফা খাতুনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতথি ছিলেন আলোকদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান ইসলাম উদ্দীন।

চুয়াডাঙ্গা রেলবাজার ফাযিল মাদরাসায় দবিসটি উপলক্ষে দোয়া, মিলাদ মাহফিল, কোরআন খানি অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিলটি পরিচালনা করেন মাদরাসার অধ্যক্ষ জান্নাত আলী। দোয়া মাহফিল শেষে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শোকর‌্যালিতে অংশগ্রহণ করে চুয়াডাঙ্গা ফাযিল মাদরাসা। চুয়াডাঙ্গা রেলবাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়েদোয়া মাহফিল, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও কাঙালি ভোজের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানটি সার্বিকভাবে আয়োজন করেন বিদ্যালয়ের সভাপতি নাসির আহাদ জোয়ার্দ্দার ও প্রধান শিক্ষক লতিফুন্নেছা

চুয়াডাঙ্গা জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে আল মিরাজ স্কুলমাঠে আলোচনাসভার আয়োজন করা করা হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জেলা পরিষদের সদস্য নুরুন্নাহার কাকলী, প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আছিয়া খাতুন। বিশেষ অতিথি ছিলেন ময়না খাতুন, রাফিয়া খাতুন, শাহানা খাতুন, লিপি খাতুন, সাফিয়া খাতুন, পলি খাতুন প্রমুখ।

বাংলাদেশ ডিপ্লোমা মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন, চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার আলোচনাসভা, পদযাত্রা ও পুস্পস্তবক অর্পন। উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সিনিয়র সহসভাপতি, ডা হারুন অর রশিদ পলাশ, সাধারণ সম্পাদক ডা. রবিউল ইসলাম। সহসভাপতি, ডা. শফিকুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. রোকনুজ্জামানসহ সাংগঠনিক সম্পাদক, ডা. তোফাজ্জেল হোসেন, অর্থ সম্পাদক ডা. মোখলেছুর রহমান, সম্মানিত সদস্য ডা. রওশন আমিন রতনসহ ডা.আশরাফুল হক শিমুল, ডা. রুহিনা সাঞ্জিত আরা, ডা. সাবিনা ইয়াসমিন ডা. জনি, ডা. শুভ, ডা. রাসেল, ডা. এনামুল প্রমুখ। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সিভিল সার্জন ডা. রওশন আরা বেগম, বিএমএ চুয়াডাঙ্গা জেলা শাখার সভাপতি ডা. মার্টিন হীরক চৌধুরী ও বিডিএমএ কেন্দ্রীয় কমিটির সহসাংগঠনিক সম্পাদক ডা.আক্তারুজ্জামান জোয়ার্দ্দার।

ডা. আফছার উদ্দিন কলেজ আয়োজিত শোক র‌্যালি, আলোচনাসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। কলেজের সভাপতি জিল্লুর রহমানের সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন অধ্যক্ষ মাহাবুল ইসলাম সেলিম। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন অ্যাড. তসলিম উদ্দিন ফিরোজ, ফাস্ট ক্যাপিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ে সাবেক প্রভাষক আব্দুল্লাহ আল মামুন, ছাত্রলীগ নেতা শিপন আলী প্রমুখ। এছাড়া বক্তব্য রাখেন প্রভাষক আবু সালেহ, মনিরুল ইসলাম, মোশাররফ হোসেন, বিদ্যোৎসাহী সদস্য ফরিদ হোসেন, অভিভাবক সদস্য নুরুল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন প্রভাষক কুদরাত-ই-খুদা

এদিকে দামুড়হুদার নতিপোতা ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে শোক দিবসের কর্মসূচি পালিত হয়েছে। নতিপোতা গ্রামের দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মোমিন মাস্টারের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন সাবেক ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি মোহাসিন আলী, যুবলীগ নেতা লোকমান হাকিম, মামুন প্রমুখ। বেড়বাড়িতে ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সেলিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল ওহাব, আশা প্রমুখ। এছাড়া নতিপোতা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কলাবাড়ি রামনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শোক দিবসের কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

দামুড়হুদার কুড়–লগাছিতে হাশেম রেজার বাসভবন সংলগ্ন দলীয় অফিসে দিবসের কর্মসূচি পালিত হয়। আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মজিদ মোল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত শোকসভায় বক্তব্য রাখেন জসিম মেম্বার, সাংবাদিক আজাদ হোসেন, মনিরুল ইসলাম, আজিমউদ্দিন, হাজি মফিজ উদ্দীন, ইসমাইল হোসেন, জীবননগর উপজেলা বঙ্গবন্ধু প্রজন্মলীগের সেক্রেটারি শরিফুল ইসলাম মিন্টু, ফারহানা আফরোজ জিসা, যুবলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম ছাত্রলীগ নেতা রিপন, লিটন প্রমুখ।

ডিঙ্গেদহ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, ডিঙ্গেদহ বালিকা বিদ্যালয়ে আলোচনাসভায় প্রধান শিক্ষক শরিফ উদ্দিনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন শঙ্করচন্দ্র ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান। উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আব্দুস ছাত্তার, তাহাজদ্দিন, সাইফুদ্দিন, প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আজম আলী প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন মাও. সাইফুল ইসলাম। এছাড়াও উদীচী, ডিঙ্গেদহ দাখিলি মাদরাসা, সোহরাওয়ার্দ্দী স্মরনী বিদ্যাপীঠ, জালশুকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে র‌্যালি ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। অপরদিকে বেলা ৫টায় শঙ্করচন্দ্র ইউপি হলরুমে ইসলামী ফাউন্ডেশন ও শঙ্করচন্দ্র ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে দোয়া, আলোচনাসভা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়।

পদ্মবিলা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, পদ্মবিলা ইউনিয়ন পরিষদে জাতীয় পতাকা উত্তলন করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের বিশ্বাস। কাথুলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, হাড়োকান্দি বলেশ্বরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কুশোডাঙ্গা বাজারে দিবসটি উপলক্ষে কাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়। এ সময় পদ্মবিলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়র উপদেষ্টা খাজা শাহবুদ্দিনসহ স্থানীয় নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সরোজগঞ্জ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সরোজগঞ্জে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলী আহম্মদ হাসানুজ্জামান মানিক। প্রধনি অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষক লীগের সাবেক সভাপতি আজিজুল হক। বিশেষ অতিথি ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি হাজি মজিবর রহমান, চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের মেম্বার হাসিনা খাতুন, চুয়াডাঙ্গা জেলা ইটভাটা মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোতালেব প্রমুখ। সরোজগঞ্জ তেতুল শেখ কলেজে আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হাজি আব্দুল্লা শেখ সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন কলেজের শিক্ষা কমিটির চেয়ারম্যান আজিজুল হক পরিচালনা কমিটির সদস্য হাজি জয়নাল অবেদিন, জালাল উদ্দিন মহর, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ গোলাম কিবরিয়া প্রমুখ। এছাড়া ছাদেমান নেছা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, চুয়াডাঙ্গা সরোজগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা কৃষক সাবেক সভাপতি আজিজুল হক। সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি জুয়েল রানা।

অপরদিকে, চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের উদ্যোগে কুতুবপুর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন মাঠে আলোচনাসভা ও  দোয়া অনষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। চুয়াডাঙ্গা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোহাইমেন হাসান জোয়ার্দ্দার অনিকের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষকলীগের সাবেক সভাপতি আজিজুল হক। উপস্থিত ছিলেন কুতুবপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি হাজি মজিবর রহমান, চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের মেম্বার হাসিনা খাতুন, কুতুবপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলী আহম্মদ হাসানুজ্জামান মানিকসহ জেলা ও কলেজ ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বদরগঞ্জ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, বদরগঞ্জ আলিয়ারপুর আজিজ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দিবসটি উপলক্ষ্যে দোয়া আলোচনাসভার আয়োজন করা হয়। বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি আব্দুল মোতালেবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সাবেক চেয়ারম্যান শাখাওয়াত হোসেন টাইগার, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলাউদ্দিন আহম্মেদ, সহকারী প্রধান শিক্ষক জাকিরুল ইসলাম ও সহকারী শিক্ষক সাইফুল ইসলাম স্বপন।

বদরগঞ্জ বাকী বিল্লাহ কামিল মাদরাসায় র‌্যালি ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। মাদরাসার অধ্যক্ষ আব্দুল জলিল হাওলাদারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন মাদরাসার সাবেক চেয়ারম্যান শাখাওয়াত হোসেন টাইগার, সাবেক চেয়ারম্যান হাজি রেজাউল করীম ও উপাধ্যক্ষ আল মুজাহিদ প্রমুখ। দিবসটি উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ বদরগঞ্জ শাখায় জাতীয়, দলীয় পতাকা উত্তোলনসহ নানা কর্মসূচি পালন করে।

এছাড়া দিবসটি উপলক্ষে বদরগঞ্জ ডিগ্রি কলেজের উদ্যোগে র‌্যালি আলোচনা ও দোয়া মাহফিল কলেজ হলরুমে অনুষ্ঠিত হয়। কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি অ্যাড. বেলাল হোসেনের সভাপতিতে বক্তব্য রাখেন  কলেজের জিবি সদস্য কুতুবপুর ইউপির সাবেক চেযারম্যান শাখাওয়াত হোসেন টাইগার, অধ্যক্ষ শরিফুল ইসলাম প্রমুখ।

বেগমপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, চুয়াডাঙ্গা সদরের বেগমপুর ও তিতুদহ ইউনিয়নে যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালিত হয়েছে। বেগমপুর ইউনিয়নের হিজলগাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বেগমপুর ইউনিয়ন পরিষদ, বেগমপুর ও তিতুদহ ইউনিয়ন মসজিদ ভিত্তিক শিশু ও গণশিক্ষা কার্যক্রম ইসলামিক ফাউ-েশনের উদ্যোগে, তিতুদহ ইউনিয়ন পরিষদ, গিরিশনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দিবসটি পালিত হয়েছে। অনুষ্ঠনের মধ্যে ছিলো আলোচনা, প্রতিযোগিতা, মিলাদ মাহফিল ও দোয়ার অনুষ্ঠান। এসব অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, বেগমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলী হোসেন জোয়ার্দ্দার, তিতুদহ ইউপি চেয়ারম্যান আকতার হোসেন, হিজলগাড়ী মাধ্যমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি সাইফুল আজম মিন্টু, প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন স্বপন, সদস্য শাহিন আহম্মেদ, মিল্টন, হায়দার মল্লিক, শিক্ষক নুর মোহাম্মদ, সাবেক চেয়ারম্যান সামসুল হক, মিজানুর রহমান টিপু, মইনুল ইসলাম, লোকমান হোসেন, ইউপি সচিব ফয়জুর রহমান, আসাবুল হক মাসুদ প্রমুখ।

আলমডাঙ্গা ব্যুরো: আলমডাঙ্গায় উপজেলা প্রশাসন, আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠণ এবং বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে দিবসটি পালিত হয়েছে। আলমডাঙ্গা উপজেলা পরিষদের পুরাতন হলরুমে আলোচনাসভা ও হামদ-নাত, চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের, কবিতা পাঠ ও রচনা প্রতিযোগীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়। সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আজাদ জাহান। প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা হেলাল উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কাজী খালেদুর রহমান অরুণ, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শামীম আরা, উপজেলা কৃষি অফিসার একেএম হাসিবুল হাসান, থানা অফিসার ইনচার্জ আকরাম হোসেন, উপজেলা আওয়াম লীগের সিনিয়র সহসভাপতি সাবেক চেয়ারম্যান মজিবার রহমান। উপজেলা সমাজসেবা অফিসার আবু তালেবের উপস্থাপনায় বক্তব্য রাখেন প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. আব্দুল্লাহেল কাফি, পরিবার পরিকল্পনা অফিসার আব্দুস সাত্তার, উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মঈনুল ইসলাম, প্রকল্প কর্মকর্তা আলহাজ্ব মিজানুর রহমান, আলমডাঙ্গা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আলহাজ আবু হাসান বাচ্চু প্রমুখ।

উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা, দলীয় ও শোক পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে শোক র‌্যালি আলমডাঙ্গার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলি মাস্টার, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি জেলা পরিষদ সদস্য আবু মুসা, সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

আলমডাঙ্গা পৌরসভা পৃথক কর্মসূচি পালন করে। পৌরসভার পক্ষ থেকে শহরের প্রতিটি পোলে অর্ধনমিত জাতীয় ও শোক পতাকা উত্তোলন করা হয়। একই সাথে পৌরসভা চত্বরে অর্ধনমিত জাতীয় ও শোক পতাকা উত্তোলন করা হয়। বাদ জোহর মিলাদ মাহফিল ও মোনাজাত করা হয়। পৌরসভার সকল মসজিদে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। উপস্থিত ছিলেন পৌর মেয়র হাসান কাদির গনু, প্যানেল মেয়র-১ সদর উদ্দিন ভোলা, প্যানেল মেয়র-২ জহুরুল ইসলাম স্বপন, ওয়ার্ড কাউন্সিলর আলাল উদ্দিন, কাজী আলী আজগর সাচ্চু, আব্দুল গাফফার, মতিয়ার রহমান ফারুক, ফারুক হোসেন, জাহিদুর ইসলাম ও মামুন অর রশিদ হাসান, মহিলা কাউন্সিলর কল্পনা খাতুন, নূর জাহান খাতুন প্রমুখ।

অপরদিকে, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেডিয়াম সদস্য শেখ সামসুল আবেদীন খোকন, চুয়াডাঙ্গা পৌর মেয়র জেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক ওবায়দুর রহমান চৌধুরী জিপু, জেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্মআহ্বায়ক চিৎলা ইউপি চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ জানিফের নেতৃত্বে শোক র‌্যালি বের হয়। র‌্যালি শেষে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনাসভায় কলেজ ছাত্রলীগের সম্পাদক সেলিম রেজা তপনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেডিয়াম সদস্য শেখ সামসুল আবেদীন খোকন। উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম গোলাম সরোয়ারের উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শরিফ হোসেন দুদু, চুয়াডাঙ্গা পৌর ছাত্রলীগের সম্পাদক সজল, যুগ্মসম্পাদক মাজিজুর রহমান মাফি, আলমডাঙ্গা উপজেলা যুবলীগের যুগ্মসম্পাদক  সাজ্জাদুল ইসলাম স্বপন, শাহিন রেজা শাহিন, সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাবেক খাসকররা ইউপি চেয়ারম্যান তাফসির আহমেদ মল্লিক লাল, সাবেক উপজেলা ছাত্রলীগের সম্পাদক শরিফুল ইসলাম রিফাত, কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক আহ্বায়ক জেলা যুবলীগের সাবেক সদস্য সোহেল রানা শাহিন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি মিজানুর রহমান প্রমুখ।

অপরদিকে, আলমডাঙ্গা উপজেলা, পৌর ও কলেজ ছাত্রলীগ শোক র‌্যালি শহর প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালি শেষে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম খান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বেলগাছী ইউপি চেয়ারম্যান আমিরুল ইসলাম মন্টু, জেলা পরিষদের সদস্য পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু মুসা, সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, সাবেক উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আহসান উল্লাহ, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সালমুন আহমেদ ডন, সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর আলাল আহমেদ, পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি নয়ন সরকার, কলেজ ছাত্রলীগরে সভাপতি আাশরাফুল হক প্রমুখ।

মুন্সিগঞ্জ ফুটবল মাঠে জেহালা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আয়োজনে দিবসটি পালিত হয়। শোকর‌্যালি, আলোচনাসভা ও দোয়া মাহাফিলের মাধ্যমে শেষ হয়। যুবলীগ নেতা হিরোর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ নেতা কুতুব উদ্দিন। অতিথি ছিলেন জেহালা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা জেলা পরিষদ সদস্য খলিলুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা আসাদুল হক, জেহালা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্মআহ্বায়ক আব্দুল হান্নান মাস্টার, আওয়ামী লীগ নেতা লিটন চৌধুরী, ফজলুর রহমান, সুকুর, ইলা, তিতু, মুক্তিযোদ্ধা ইসাহাক, গজনবী, মনি খন্দকার প্রমুখ। শোকর‌্যালিটি মুন্সিগঞ্জ মদন বাবুর মোড় হতে জেহালা বাজার প্রদক্ষিণ করে ফুটবল মাঠে এসে শেষ হয়। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন মুন্সিগঞ্জ হাফেজিয়া মাদরাসার সুপার হাফেজ আবু তালেব।

আলমডাঙ্গা ডিগ্রি কলেজ, আলমডাঙ্গা মহিলা ডিগ্রি কলেজ, হারদী এমএস জোহা ডিগ্রি কলেজ, এমএস জোহা কৃষি কলেজ, মীর সামসুল ইসলাম পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, এমএস হুদা মেডিকেল টেকনোলজি কলেজ, হাটবোয়ালিয়া স্কুল অ্যান্ড কলেজ, খাসকররা কলেজ, আলমডাঙ্গা পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়, আলমডাঙ্গা মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, এরশাদপুর একাডেমি, বাদেমাজু বাদল স্মৃতি একাডেমি, কুমারী ইউনিয়ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, এম সবেদ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পাঁচলিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়, হাটবোয়ালিয়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, পাইকপাড়া জনকল্যাণ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বেলগাছি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, আলমডাঙ্গা মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আলমডাঙ্গা আদর্শ প্রাথমিক বিদ্যালয়, গোবিন্দপুর-এরশাদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জেএন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, হারদী ইউনিয়ন পরিষদ দিবসটি পালন করে। মুন্সিগঞ্জ একাডেমী, মুন্সিগঞ্জ মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, সৃজনী মডেল মাধ্যমিক বিদ্যাপীঠ, মুন্সিগঞ্জ পশুহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কর্মসূচি পালন করে।

জামজামি প্রতিনিধি জানিয়েছেন, জামজামিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জামজামি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি দিদার আলী মালিতা। শোক আলোচনায় অংশ নেন চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদ সদস্য শ্রী তপন কুমার বিশ্বাস, জামজামি ইউনিয়ন আওয়মী লীগের সাধারণ সম্পাদক রাহাব উদ্দিন, ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি ডা. আসাদুজ্জামান ডেভিড, সাধারণ সম্পাদক রতন শাহ প্রমুখ।

আসমানখালী প্রতিনিধি জানিয়েছেন: আসমানখালী মাধ্যামিক বিদ্যালয়ে আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক আমিনুল ইসলাম। প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের সদস্য রকিবুল হাসান। অপরদিকে ইউনিয়ন আওয়ামি লীগের উদ্যোগে বেলা ১টার দিকে কাঙালিভোজ ও মসজিদ, মাদরাসায় দোয়া মোনাজাত করা হয়েছে। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন বড়গাংনী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মাসুদুর রহমান প্রমুখ। ইসলামি ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আসমানখালীতে আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন আব্দুস সালাম। প্রধান অতিথি ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক। ভাংবাড়ীয়া ইউনিয়ন পরিষদে আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন ইউপি চেয়ারম্যান কাওসার আহম্মদ বাবলু, প্রধান অতিথি ছিলেন সাবেক ইউপি সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা  আহম্মদ আলী।

ভালাইপুর প্রতিনিধি: আলমডাঙ্গার গোকুলখালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে র‌্যালি শেষে আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন বিদ্যালয় কমিটির সভাপতি বিল্লাল হোসেন। উপস্থিত ছিলেন প্রধান শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক, দাতা সদস্য ফরিদ হোসেন প্রমুখ। আলমডাঙ্গার গাংনী ইউপি চেয়ারম্যানের ভিলায় শোক দিবসের আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন মজিবুল মিয়া। প্রধান অতিথি ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান আবু তাহের আবু। অতিথি ছিলেন ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হৃদয় হোসেন ফারুক প্রমুখ।

চুয়াডাঙ্গার ভালাইপুর মোড়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইউপি সদস্য জহুরুল ইসলাম। অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক জেলা ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন দিপু, যুবলীগ নেতা ইনামুল হক, আব্দুল আলিম, অহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

আলমডাঙ্গার ভালাইপুরে শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভা ও দোয়া মাহফিলে জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কবীরের সভাপতিত্বে অতিথি ছিলেন চিৎলা ইউপি চেয়ারম্যান জিল্লুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা আমীর হোসেন, শুকুর আলী, জহুরুল ইসলাম, ছমির আলী প্রমুখ। এদিকে আ.লীগ নেতা কামরুজ্জামান বাবুর সভাপতিত্বে অতিথি ছিলেন রাশেদিন, আলমগীর হোসেন, নজরুল ইসলাম প্রমুখ।

আলমডাঙ্গার কুলপালা গ্রামে শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনাসভা ও দোয়া মাহফিলে ইউনিয়ন আ.লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোহাম্মদ আলী শাহ’র সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন আ.লীগ নেতা শাহ্ আব্দুল বাতেন, আক্তার মাস্টার, মজিবর রহমান প্রমুখ। খাদিমপুর ইউনিয়নের কৃষক লীগের উদ্যোগে আলোচনাসভায় কৃষক লীগের সহসভাপতি তোহিদুর রহমান চন্দনের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা কৃষক লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান কবীর। অতিথি ছিলেন আলমডাঙ্গা উপজেলা কৃষক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদুর রশীদ মাসুম, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাফিজুর রহমান বাবলু, ইউনিয়ন কৃষক লীগের সভাপতি নাজিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক পিন্টু মিয়া প্রমুখ।

দামুড়হুদা প্রতিনিধি  জানিয়েছেন, দামুড়হুদায় শোকর‌্যালি, আলোচনাসভা, মিলাদ মাহফিলসহ নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে ১৫ আগস্ট জাতীয় শোকদিবস যথাযোগ্য মর্যদায় পালিত হয়েছে। দামুড়হুদা উপজেলা প্রশাসন, আব্দুল ওদুদ শাহ ডিগ্রি কলেজ, উপজেলা দলিল লেখক সমিতি, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, উপজেলা সাহিত্য পরিষদ, দামুড়হুদা পাইলট গালর্স স্কুল অ্যান্ড কলেজ, দামুড়হুদা পাইলট হাইস্কুল, জয়রামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়, বিষ্ণুপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ আওয়ামী লীগ, কৃষক লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ আলাদা আলাদাভাবে দিবসটি পালন করেছে। এ উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টায় আব্দুল ওদুদ শাহ ডিগ্রি কলেজের প্রিন্সিপাল কামাল উদ্দীনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন দামুড়হুদা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু।

সকাল ৯টায় দামুড়হুদা উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শোকর‌্যালি বের হয়। র‌্যালি শেষে অডিটোরিয়াম হলরুমে দামুড়হুদা উপজেলা নির্বাহী অফিসার রফিকুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগর। বিশেষ অতিথি ছিলেন দামুড়হুদা উপজেলা চেয়ারম্যান মাও. আজিজুর রহমান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) সৈয়দা নাফিস সুলতানা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সিরাজুল আলম ঝন্টু, জেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ইউপি চেয়ারম্যান এসএএম জাকারিয়া আলম, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ছালমা জাহান, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, জেলা পরিষদের সদস্য শফিউল কবির ইউসুফ, দামুড়হুদা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম, যুগ্মসম্পাদক ইমতিয়াজ হোসেন, উপজেলা কৃষি অফিসার সুফি মো. রফিকুজ্জামান, উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মশিউর রহমান, উপজেলা মৎস্য অফিসার আইয়ুব আলী, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুল মতিন, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাকী সালাম, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী আব্দুর রশিদ, উপজেলা সাহিত্য পরিষদেও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল আলিম, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাজু আহম্মেদ রিংকু প্রমুখ।

বেলা ১১টায় উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের উদ্যোগে শোকর‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিতে নেতৃত্ব দেন এমপি আলী আজগার টগর। বেলা সাড়ে ১১টায় দামুড়হুদা ৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ, কৃষক লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের উদ্যোগে শোকর‌্যালি বের হয়। এছাড়া দুপুর ১২টার দিকে দামুড়হুদা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের উদ্যোগে শোকর‌্যালি বের হয়। র‌্যালি শেষে দামুড়হুদা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য নজরুল মল্লিক।

হাউলী প্রতিনিধি জানিয়েছেন, জয়রামপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় সকাল ১০টার দিকে শোকর‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালি শেষে বিদ্যালয় ব্যবস্থানা কমিটির সভাপতি আযুব আলী স্বপনের সভাপতিত্বে আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়।

জুড়ানপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দামুড়হুদার বিষ্ণুপুরে আলোচনাসভায় সভাপতিত্ব করেন আহ্বায়ক মাহাতাব উদ্দিন। উপস্থিত ছিলেন জুড়ানপুর ইউপি চেয়ারম্যান সোহরাব হোসেন।

কার্পাসডাঙ্গা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দামুড়হুদার সদাবরিতে আওয়মী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চুয়াডাঙ্গা ২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগর। উপস্থিত ছিলেন পারকৃষ্ণপুর মদনা ইউপি চেয়ারম্যান এসএম জাকারিয়া আলম, কুড়ুলগাছি ইউপি চেয়ারম্যান শাহ মোহাম্মদ ইনামুল করিম ইনু, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন প্রমুখ।

কার্পাসডাঙ্গায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ জাতীয়, দলীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন করে। উপস্থিত ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান ভুট্ট, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি শহিদুল হক, ইউনিয়ন সাধারণ আওয়ামী লীগের সম্পাদক নজির আহম্মেদ প্রমুখ।

এদিকে ইউনিয়ন আওয়মী লীগের একাংশ আরামডাঙ্গা বটতলায় সকাল ৭টায় জাতীয় শোক দিবস পালন উপলক্ষে জাতীয়, দলীয় ও কালো পতাকা উত্তোল করে। কার্পাসডাঙ্গার বিভিন্ন স্কুল প্রতিষ্ঠান দিবসটি পালনের লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করে।

দর্শনা অফিস জানিয়েছে, দর্শনায় দলীয় কার্যালয় থেকে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগর ও জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজাদুল ইসলাম আজাদের নেতৃত্বে বের করা হয় শোকর‌্যালি। এছাড়া দর্শনা পৌরসভাসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, শ্রমিক, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সংগঠনের পক্ষ থেকে র‌্যালি বের করা হয়। দর্শনা সরকারি কলেজ মাঠের শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়েছে। পৌর আ.লীগের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত শোকসভার সভাপতিত্ব করেন দর্শনা পৌর আ.লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আজাদুল ইসলাম আজাদ। প্রধান বক্তা ছিলেন, অনুষ্ঠানের আয়োজক চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগর। উপস্থিত ছিলেন, জেলা আ.লীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক, ইউপি চেয়ারম্যান জাকারিয়া আলম, উপজেলা আ.লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম, জেলা পরিষদের সদস্য মুন্সি সিরাজুল ইসলাম, আ.লীগ নেতা হাজি জয়নাল আবেদীন, শফিকুল আলম, মোমিনুল ইসলাম, মোশাররফ হোসেন, কেরুজ শ্রমিক নেতা ফিরোজ আহমেদ সবুজ প্রমুখ। বিকেলে মদনা বাজারে আ.লীগ নেতাকর্মীদের সাথে সংক্ষিপ্ত মতবিনিময় করেন এমপি আলী আজগার টগর।

এছাড়া দামুড়হুদার পারকৃষ্ণপুর-মদনা ইউনিয়নের সাড়াবাড়িয়া ও কুড়ুলগাছি ইউনিয়নের সদাবাড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শোকসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য হাজি আলী আজগার টগর। পৃথক এ দুটি শোকসভার সভাপতিত্ব করেন আ.লীগ নেতা আবুল হোসেন।

চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক, দামুড়হুদা উপজেলা আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান মনজু ও দর্শনা পৌর মেয়র, পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমানের নেতৃত্বে শোক র‌্যালি বের করা হয়। এর আগে কেরুজ বাজার মাঠে, জাতীয়, শোক ও দলীয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে অনুষ্ঠিত শোকসভার প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা পরিষদের সাবেক প্রশাসক মাহফুজুর রহমান মঞ্জু। প্রধান বক্তা ছিলেন অনুষ্ঠানের আয়োজক পৌর মেয়র পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক মতিয়ার রহমান। দর্শনা মেমনগর দোয়া মাহফিল ও দুস্থদের মধ্যে খাবার বিতরণ করা হয়। এছাড়া কেরুজ চিনিকলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবিএম আরশাদ হোসেন কর্মকর্তা ও শ্রমিক নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে পতাকা উত্তোলন ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুস্পমাল্য অর্পণ ও শোকসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উপস্থিত ছিলেন, মহাব্যবস্থাপক (অর্থ) মোশারফ হোসেন, মহাব্যবস্থাপক (ডিস্টিলারী) ফিদাহ হোসেন বাদশা, মহাব্যবস্থাপক (কৃষি) এসএম মতিউল্লাহ, মহাব্যবস্থাপক (কারখানা) আনোয়ার কবির, মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) মনোয়ারুল ইসলাম, সেলস অফিসার শেখ শাহবুদ্দিন, কেরুজ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আকরাম হোসেন শিকদার, শ্রমিক-কর্মচারী ইউনিয়নের সভাপতি তৈয়ব আলী, সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান, শ্রমিক নেতা হাফিজুল ইসলাম, মনিরুল ইসলাম প্রিন্স, মোস্তাফিজুর রহমান, ফিরোজ আহম্মেদ সবুজ, ফারুক আহম্মেদ, খবির উদ্দিন প্রমুখ।।

জীবননগর ব্যুরো জানিয়েছে, দিবসটি উপলক্ষে জীবননগরে জাতীয় ও কালো পতাকা অর্ধনমিত, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ, মিলাদ মাহফিল, শোক র‌্যালি, আলোচনাসভা, শিশুদের নিয়ে বিভিন্ন প্রতিযোগিতা, বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠান ও কাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়।

উপজেলা পরিষদের উদ্যোগে সকাল ৮টায় উপজেলা ক্যাম্পাসে জাতীয় ও শোক দিবসের কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে উপজেলা চেয়ারম্যান আবু মো. আব্দুল লতিফ অমল ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সেলিম রেজার নেতৃত্বে শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালিতে উপজেলা পরিষদের বিভিন্ন দফতরের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, সাব রেজিষ্ট্রি অফিস, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ, জীবননগর ডিগ্রি কলেজ, আদর্শ মহিলা ডিগ্রি কলেজ, জীবননগর পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়, পাইলট মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়, শাপলাকলি আদর্শ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, উপজেলা আলিম মাদরাসা, আশরাফুল মডেল অ্যাকাডেমি, পৌর কিন্ডার গার্টেন অ্যান্ড হাইস্কুল, দৌলৎগঞ্জ মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জীবননগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, জীবননগর বালিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তেঁতুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পুরাতন তেঁতুলিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, আকলিমা প্রি ক্যাডেট স্কুল, প্রাইড প্রি ক্যাডেট স্কুল, রাখি প্রি ক্যাডেট স্কুল, উপজেলা শিশু নিকেতন ও ফেমাস প্রি কিন্ডার গার্টেনের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকবৃন্দ র‌্যালিতে অংশগ্রহণ করেন। র‌্যালি শেষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ, মিলাদ মাহফিল, বঙ্গবন্ধুর জীবনীর ওপর প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন, শিশুদের নিয়ে রচনা, চিত্রাঙ্কন, উপস্থিত বক্তৃতা প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়। দুপুরে উপজেলার সকল মসজিদ ও উপাসনালয়ে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠান ও প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

উপজেলা আওয়ামী লীগের দুটি গ্রুপ পৃথক অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে। উপজেলা আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে জাতীয়, দলীয় ও শোক দিবসের পতাকা উত্তোলন করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোর্তূজা, উপজেলা চেয়ারম্যান আবু মো. আব্দুল লতিফ অমল ও পৌর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। শেষে আলোচনা অনুষ্ঠান, মিলাদ মাহফিল ও কাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের অপর গ্রুপের উদ্যোগে ইসলামী ব্যাংক মার্কেট এলাকায় জাতীয়, দলীয় ও শোক দিবসের পতাকা উত্তোলন করা হয়। পতাকা উত্তোলন করেন জেলা আওয়ামী লীগ নেতা মোশাররফ হোসেন মিয়া, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম ও জেলা আওয়ামী লীগের কার্য নির্বাহী সদস্য নজরুল মল্লিক। শেষে আলোচনাসভা, মিলাদ মাহফিল ও কাঙালি ভোজের আয়োজন করা হয়। উপজেলার উথলী, আন্দুলবাড়িয়া, রায়পুর, হাসাদাহ, বাঁকা, মনোহরপুর, কেডিকে ও সীমান্ত ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের দু গ্রুপ ও অঙ্গ সংগঠন পৃথকভাবে ওয়ার্ড, গ্রাম ও বাজার ভিত্তিক শোক র‌্যালি, মিলাদ মাহফিল, আলোচনাসভা ও কাঙালি ভোজের আয়োজন করে। জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী সদস্য নজরুল মল্লিক তার নির্বাচনী কার্যালয়ে পতাকা উত্তোলন, আলোচনাসভা, মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করে। উপজেলার ২৩ মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৭ মাদরাসা, ৭২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শোক দিবসের র‌্যালি, আলোচনাসভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ইসলামী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মসজিদ ভিত্তিক শিশু পাঠাগারের শিক্ষার্থীদের নিয়ে কিরাত প্রতিযোগিতার আয়োজন করে বলে খবর পাওয়া গেছে।

 

আন্দুলবাড়িয়া প্রতিনিধি জানিয়েছেন, আন্দুলবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের উদোগে জাতীয় ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। পতাকা উত্তোলন করেন ইউপি চেয়ারম্যান শেখ শফিকুল ইসলাম মোক্তার ও সাংবাদিক নারায়ণ ভৌমিক। এ সময় ইউপি সচিব মনিরুজ্জামান, বিভিন্ন ওর্য়াডের সদস্য ও গ্রাম পুলিশের চৌকসদল উপস্থিত ছিলেন। দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন মাও. আনোয়ার হোসেন। আলোচনাসভায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়ার সহসভাপতি আশাদুজ্জামানের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন ইউপি চেয়ারম্যান শেখ শফিকুল ইসলাম মোক্তার, সাংবাদিক নারায়ণ ভৌমিক, জীবননগর উপজেলা সুপারভাইজার জিয়াউর রহমান, উপজেলা মডেল কেয়ারটেকার রেজাউল করিম প্রমুখ। আন্দুলবাড়িয়া বহুমখী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে র‌্যালি শেষে আলোচনাসভায় বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মীর মকলেচুর রহমান টজোর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন প্রধান শিক্ষক ফাতরুজ্জামান প্রমুখ। আন্দুলবাড়িয়া বহুমুখী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি ইউপি চেয়ারম্যান শেখ শফিকুল ইসলাম মোক্তার। বিকেলে আন্দুলবাড়িয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের উদ্যোগে আলোচনাসভা, কাঙালিভোজ, দোয়া ও মিলাদ মহাফিল অনুষ্ঠিত হয়। পুরাতন ইউনিয়ন পরিষদের বকুলতলায় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সিনিয়ার সহসভাপতি আশাদুজ্জামানের সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মর্ত্তুজা, বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ অমল, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ শফিকুল ইসলাম মোক্তার।

উথলী প্রতিনিধি জানিয়েছেন, জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে উথলী মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ে র‌্যালি, আলোচনাসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। সালাউদ্দীন কাজলের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন মোহা. লুৎফর রহমান, আশকার আলী, ওবাইদুর রহমান, মমতাজ উদ্দীন, কাদিমুল এহসান, সাইদুর রহমান, আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ। ধোপাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আতিয়ার রহমানের সভাপতিত্বে সভায় বক্তব্য রাখেন আসাদুজ্জামান, শরিফউদ্দীন, খাজা আহম্মদ, মিজানুর রহমান, জাকির হোসেন, আলতাব প্রমুখ। এছাড়া উথলী মহাবিদ্যালয়, উথলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়, উথলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়।

মেহেরপুর অফিস জানিয়েছে, শোক র‌্যালি, জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ, আলোচনাসভা, এবং মিলাদ মাহফিলের মধ্যদিয়ে মেহেরপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪২তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস পালিত হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টায় মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শহরে শহীদ ড. সামসুজ্জোহা নগর উদ্যান থেকে একটি শোক র‌্যালি বের হয়। র‌্যালির নেতৃত্ব দেন মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন। র‌্যালিটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে এমপি অধ্যাপক ফরহাদ হোসেন ও জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। পর্যায়ক্রমে জেলা জজ আদালতের পক্ষে জেলা জজ মো. রবিউল হাসান, জেলা পুলিশের পক্ষে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান, মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বশির আহম্মেদ, জেলা পরিষদের পক্ষে চেয়ারম্যান সদর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ  গোলাম রসুল, সিভিল সার্জন ডা. জিকেএম শামসুজ্জামান, পৌরসভার পক্ষে মেয়র মাহফুজুর রহমান রিটন, জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি আব্দুল হালিম ও সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেক, জেলা মহিলা লীগের পক্ষে পৃথক পৃথকভাবে সভানেত্রী তহমিনা আবেদীন ও সাধারণ সম্পাদিকা লাভলী ইয়াসমিন, পৌর আওয়ামী লীগের পক্ষে সভাপতি অ্যাড. ইয়ারুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আক্কাস আলী, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক শহীদুল ইসলাম পেরেশান, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি বারিকুল ইসলাম লিজন ও সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানা, জেলা কৃষক লীগের পক্ষে সভাপতি মাহাবুবুল আলম শান্তি, এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী আজিমউদ্দিন সর্দ্দার, মেহেরপুর-১ আসনের সাবেক এমপি ও জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলহাজ জয়নাল আবেদীন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক জেলা পরিষদ প্রশাসক অ্যাড. মিয়াজান আলী, জেলা জজ আদালতের পিপি অ্যাড. পল্লব ভট্টাচার্য প্রমুখ জাতির জনকের প্রকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এছাড়াও মেহেরপুর সরকারি কলেজ, সরকারি মহিলা কলেজ, পৌর ডিগ্রি কলেজ, মেহেরপুর মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজ, সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়সহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং জেলা শিল্পকলা একাডেমি, মেহেরপুর সাহিত্য পরিষদ, মেহেরপুর থিয়েটারসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করা হয়। এসময় জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা আলহাজ আসকার আলী, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক কেএম আতাউল হাকিম লাল মিয়া প্রমুখ নেতা সেখানে উপস্থিত ছিলেন।

পরে জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহের সভাপতিত্বে সেখানে জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মের ওপর আলোচনাসভা শুরু হয়। এছাড়া দিনের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে স্বেচ্ছায় রক্তদান, জেলার সকল মসজিদ, মন্দির ও গির্জায় জাতির জনকের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া করা হয়। এছাড়া আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ, বাস্তুহারালীগ, শ্রমিকলীগসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে কাঙালি ভোজ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর জীবনীর ওপর রচনা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। জেলা কৃষকলীগের পক্ষ থেকে সোমবার রাতে শহরের ওয়াপদার মোড়ে সদর থানা কৃষক লীগের অফিসে কোরানখানী অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে শহরের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান ও দোকানপাটে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করে রাখা হয়।

মুজিবনগর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, দিবসটি উপলক্ষে সকাল ৮টায় মুজিবনগর উপজেলা চত্বর থেকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা আক্তারের নেতৃত্বে একটি শোকর‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি মুজিবনগরের বিভিন্ন সড়ক ও কমেপ্লেক্স চত্বর প্রদক্ষিণ শেষে মানচিত্রের কাছে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাহিদা আক্তার, মুজিবনগর থানা ইনচার্জ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম। এছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাগায়োন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আয়ূব হোসেন, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আব্দুল জলিল, মোনাখালী ইউপি চেয়ারম্যান মফিজুরর রহমান, দারিয়পুর ইউপি চেয়ারম্যান তৌফিকুল বারী বকুল, মুজিবনগর উপজেলা যুবলীগের সভাপতি কামরুল হাসান চাঁদু, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রোকনুজ্জামান রোকন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের নির্বাচন প্রস্ততি কমিটির আহ্বায়ক মতিউর রহমান মতিন, মুজিবনগর আইসিটির পক্ষে জাহিদ হাসান রাজিবসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। এছাড়া উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে মেহেরপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য ফরহাদ হোসেন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জিয়াউদ্দীন বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক আমাম হোসেন মিলু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্ঠিত আলোচনাসভা, কাঙালি ভোজ ও দোয়া মহাফিল যোগদান করেন। একইভাবে জেলা যুবলীগের যুগ্মআহ্বায়ক শহিদুল ইসলাম পেরেশান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকশনা উপকমিটির সদস্য এমএএস ইমন ও মহাজনপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতি রেজাউর রহমান নান্নু ও সম্পাদক আব্দুর রশিদ বল্টু উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে আলোচনাসভা, কাঙালি ভোজ ও দোয়া মহাফিলে অংশগ্রহণ করেন।

এছাড়া মুজিবনগর আদর্শ মহিলা কলেজসহ এদিন সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি ও স্বায়াত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন ভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। বিভিন্ন মসজিদ, মন্দির ও গীর্জায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া করা হয়।

গাংনী প্রতিনিধি জানিয়েছেন. নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে মেহেরপুর গাংনীতে জাতির জনকের শাহাদৎ বার্ষিকী পালিত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সকাল ৮টায় গাংনী উপজেলা পরিষদ চত্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণের মধ্যদিয়ে শোক দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফ-উজ-জামান। মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মকবুল হোসেন, মহিলা এমপি সেলিনা আখতার বানু, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেক, গাংনী থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন ও পৌর মেয়র আশরাফুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড, আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন, ওয়ার্কার্স পার্টি ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করা হয়। আলোচনা সভাশেষে দোয়া মোনাজাতে বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের প্রয়াত সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় দোয়া করা হয়।

এদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের আয়োজনে সকাল ৭টার দিকে বাস স্ট্যান্ড রেজাউল চত্বরে পতাকা উত্তোলন করা হয়। বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন মহিলা এমপি সেলিনা আখতার বানু, প্রধান অতিথি জেলা আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক এমএ খালেক ও উপজেলা আ.লীগ সভাপতি সাহিদুজ্জামান খোকনসহ নেতৃবৃন্দ। র‌্যালি শেষে গাংনী সিনিয়র সিদ্দিকীয়া সিনিয়র মাদারসা প্রাঙ্গণে আলোচনাসভা ও দোয়া মাহফিল শেষে কাঙালি ভোজ বিতরণ করা হয়।

অপরদিকে মেহেরপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য মকবুল হোসেনের উদ্যোগে উত্তরপাড়ায় মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আলোচনাসভা, শোকর‌্যালি, জাতির জনকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ এবং কাঙালি ভোজ বিতরণ করা হয়। বক্তব্য রাখেন সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম শফিকুল আলম, সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সেলিনা মমতাজ কাকলী ও মহিলা আ.লীগ নেত্রী নুরজাহান বেগমসহ নেতৃবৃন্দ।

এদিকে দুপুর ১টার দিকে জেলা আ.লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোকলেছুর রহমান মুকুলের উদ্যোগে থানাপাড়ার কাসেম মোড়ে আলোচনা সভা, দোয়া মাহফিল ও কাঙালি ভোজ বিতরণ করা হয়। বক্তব্য রাখেন আ.লীগ নেতা আক্তারুজ্জামান বাবু, আব্দুর রাজ্জাক ও উপজেলা যুবলীগ যুগ্ম সম্পাদক মজিরুল ইসলামসহ বিভিন্ন এলাকার নেতৃবৃন্দ।  দুপুরে ঝিনেরপুলপাড়াস্থ মহিলা এমপি সেলিনা আখতার বানুর কার্যালয়ে আলোচনাসভা, দোয়া মাহফিল ও কাঙালি ভোজ বিতরণ করা হয়। বক্তব্য রাখেন মহিলা এমপি, উপজেলা আ.লীগ সভাপতি সাহিদুজ্জামান খোকন ও পৌর আ.লীগ সাধারণ সম্পাদক আনারুল ইসলাম বাবুসহ নেতৃবৃন্দ।

এদিকে বিকেলে গাংনী হাসপাতাল বাজারস্থ কার্যালয়ের সামনে জেলা পরিষদ সদস্য মজিরুল ইসলামের উদ্যোগে আলোচনাসভা, দোয়া মাহফিল ও কাঙালি ভোজ বিতরণ করা হয়। জেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমান্ডার আমিরুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনাসভায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ গোলাম রসুল। বক্তব্য রাখেন সাবেক পৌর মেয়র আহম্মেদ আলীসহ নেতৃবৃন্দ।

গাংনী উপজেলা দলিল লেখক সমিতির উদ্যোগে সাব রেজিস্ট্রি অফিস চত্বর থেকে একটি শোক র‌্যালি শুরু হয়ে প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে শেষে শহীদ মিনারে গিয়ে শেষ হয়। দলিল লেখক সমিতি সভাপতি আল মামুন পিন্টু ও সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন। বিকেলে কাথুলীতে কৃষক লীগের উদ্যোগে আলোচনাসভা, দোয়া ও কাঙালি ভোজ বিতরণ করা হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা কৃষক লীগ সাধারণ সম্পাদক ওয়াসিম সাজ্জাদ লিখন। এদিকে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন ছাড়াও এলাকার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে শোক দিবস পালিত হয়।

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি জানিয়েছেন,  ঝিনাইদহে দিবসটি পালনে যথাযথ মর্যাদা ও কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। দিবসটি পালন উপলক্ষে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে শোক র‌্যালি, আলোচনাসভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। শহরের বিভিন্ন স্থানে আয়োজন করা হয় কাঙালি ভোজের। আওয়ামী লীগ ছাড়াও অঙ্গসংগঠনের সকল ইউনিটগুলো এই কর্মসূচিতে অংশগ্রহন করেন। শ্রমিক সংগঠনগুলো নানা প্রান্তে আলোচনাসভা ও দোয়ার মাহফিলের কর্মসূচি পালন করে। এদিকে মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শহরের পুরাতন ডিসি কোর্ট চত্বর থেকে শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে চুয়াডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে শেষ হয়। এখানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তাবক অর্পণ করে বঙ্গবন্ধুর প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানানো হয়।

ডাকবাংলা প্রতিনিধি জানিয়েছেন, ডাকবাংলা বাজারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাধুহাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি রেজাউল। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাধুহাটি ইউপি চেয়ারম্যান কাজি নাজীর উদ্দীন। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রফিউদ্দীন বিশ্বাস প্রমুখ।

এদিকে সাধুহাটি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খলিলুর রহমানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রফিউদ্দীন বিশ্বাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রশিদ সরকার, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু নাছের বিশ্বাস লিটন প্রমুখ।

কোটচাঁদপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, শোক দিবসে উপজেলা পরিষদ দু দিনব্যাপী কর্মসূচি পালন করে। কর্মসূচির মধ্যে ছিলো ১৪ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর জীবনভিত্তিক রচনা প্রতিযোগিতা ও হিফজ প্রতিযোগিতা। ১৫ আগস্ট সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জাতীয় পতাকা অর্ধ নমিতভাবে উত্তোলন, পবিত্র কোরআন খতম, শোক র‌্যালি, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবনে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন, আলোচনাসভা, দোয়া মাহফিল, যুবঋনের চেক ও সনদ বিতরণ। সকালে উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণ থেকে সংসদ সদস্য নবী নেওয়াজের নেতৃত্বে স্কুল, কলেজও মাদরাসার শিক্ষার্থীসহ সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে এক বিশাল শোক র‌্যালি বের হয়।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *