বিএসএফ-বিজিবির চোখ ফাঁকি দিয়ে ভারতীয় হনুমানের প্রবেশ

 

দামুড়হুদার জিরাট গ্রামের মাঠের ফসল ও ফল বিনষ্ট : কৃষকরা বিপাকে

স্টাফ রিপোর্টার: বিএসএফ-বিজিবির চোখ ফাঁকি দিয়ে সীমান্ত পেরিয়ে চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার পারকৃষ্ণপুর-মদনা ইউনিয়নের জিরাট গ্রামে ভারতীয় হনুমানের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে গ্রামের কৃষকরা। মাঠের পর মাঠ আবাদি ফসল, আম, লিচুসহ কোনো কিছুই রক্ষা পাচ্ছে না হনুমানের হাত থেকে। মাঠের ফসল রক্ষা করতে না পেরে সর্বস্বান্ত হচ্ছে কৃষকরা। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসকের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছে ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামবাসীরা। সচেতনমহলের দাবি জেলা প্রশাসন, বন বিভাগ, কৃষি বিভাগ, প্রাণীসম্পদ বিভাগ ও জনপ্রতিনিধিদের যৌথ উদ্যোগে সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ ও হনুমানের খাদ্য সরবরাহের জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন।

সরেজমিন জানা গেছে, দামুড়হুদার জিরাট গ্রামে ভারত সীমান্ত পেরিয়ে গত এক মাস আগে ৪০-৫০টি হনুমান দল বেধে প্রবেশ করে। এরপর গ্রামের কৃষক কিবরিয়া, নিজাম, শুকুর আলী, গোলাম মোস্তফা ও বসির উদ্দিনসহ অনেক কৃষকের জমির ফসল পটল, মুগ, পাট, আম, লিচুসহ মাঠে থাকা ফসল ক্ষতি করতে থাকে। কোনো কিছুই হনুমানের হাত থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। ফসল রক্ষা করতে গিয়ে স্থানীয়রা গুলতি ব্যবহার করলেও তা কোনো কাজে আসছে না।

জিরাট গ্রামের কৃষক কিবরিয়া হনুমানের অত্যাচারের কথা বলতে গিয়ে বলেন, তার মাঠে থাকা তিনবিঘা মুগ, পটল, আম ও পাট খেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। একই কথা বললেন, বসির উদ্দিন। তার কলাগাছের ২টি কাদি হনুমান খেয়ে ফেলেছে। এছাড়া অভিন্ন কথা বলেন অনেক কৃষক। হনুমানের খোঁজে কৃষক কিবরিয়ার সাথে মাঠে এ প্রতিবেদক গেলে একদল হনুমানকে পাওয়া যায় জিরাট গ্রামের সাবেক মেম্বার মৃত আনছার আলীর আমবাগানের মগডালে। ওই আমবাগানে দেখা যায় কয়েকজন শিশু হনুমানকে লক্ষ্য করে গুলতি ছুঁড়ে মারছে। তবে, এতে হনুমানের কোনো টেনশন নেই। সে খাদ্যের জন্য জীবনবাজী রেখে সীমান্ত পেরিয়ে বাংলাদেশে ঢুকে পড়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে দামুড়হুদা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃপাংশু শেখর বিশ্বাস জানান, হনুমানের আগমনের বিষয়টি কেউ তাকে জানায়নি। তবে, কৃষকদের ফসল রক্ষার্থে করণীয় সম্পর্কে তেমন কিছুই তিনি জানাতে পারেননি।

দামুড়হুদা উপজেলা প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা ডা. আ.হ.ম শামিমুজ্জামান জানান, বন্যপ্রাণী হত্যা করার কোনো নিয়ম নেই। তবে, হনুমান কামড়ালে র‌্যাবিস রোগে আক্রান্ত হয়।পারকৃষ্ণপুর- মদনা ইউপি চেয়ারম্যান জাকারিয়া আলম জানান, হনুমান আসার বিষয়টি তাকে কেউ জানাননি। তবে, খোঁজ নিয়ে করণীয় বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *