বাগদাদে আটকে পড়া জীবননগরের আবুল কালাম আজাদের দেশে ফেরার আকুতি

অশান্ত ইরাকে মৃত্যুর সংখ্যা হাজার পার : আকাশে অস্ত্রবাহী মার্কিন ড্রোন : বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির বিরুদ্ধে নিষ্ক্রীয়তার অভিযোগ

 

স্টাফ রিপোর্টার: ইরাকে আটকে পড়া বাংলাদেশিদের মধ্যে চুয়াডাঙ্গা জেলারও কয়েকজন রয়েছের। এদেরই একজন জীবননগর পুরাতন তেতুলিয়ার আবুল কালাম আজাদ গতকাল শনিবার বিকেলে মাথাভাঙ্গা দফতরে ফোন করেন। করুণ কণ্ঠে তিনি বলেন, আমরা খুব বিপদে আছি। বাংলাদেশ অ্যাম্বাসিতে যোগাযোগ করা হলে বার বারই বলা হচ্ছে, দেখছি। দেখছি বলে ফোন কেটে দেয়ার পর আর যোগযোগ করছে না। মাথার ওপর উড়ছে চালকবিহীন বোমারু বিমান। সেনাবাহিনীর লোকজন এসে রোদে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড় করিয়ে রাখছে। যে কোম্পানিতে আমরা চাকরি করি তারাও আর যোগাযোগ করছে না। আমরা এখন কী করবো? আমাদের বাঁচান প্লিজ।

ফোনে আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, আমরা বাগদাদ শহরের ১০ কিলোমিটার পূর্বের ক্যাম্পে থাকি। এখানে কোরিয়ান, ইন্ডিয়ান ও বাংলাদেশি অসংখ্য শ্রমিক রয়েছেন। কোরিয়ানরা আমাদের বস। ইরাকে সিয়া-সুন্নি সংঘর্ষের পর আমাদের বসেরা সব আড়াল হয়ে গেছে। ভারতীয়দের অধিকাংশেরই দেশে ফিরিয়ে নেয়া হয়েছে। বাকি যে ক’জন রয়েছে তাদের ৩০ জুনের মধ্যেই ফিরিয়ে নেয়া হবে। আর আমরা অর্থাৎ বাংলাদেশিদের দেশে ফেরানোর কোনো উদ্যোগই আমরা লক্ষ্য করছি না। খেয়ে না খেয়ে দিন কাটছে। ইন্টারনেটের সংযোগও বিছিন্ন করে দিয়েছে ইরাকের সরকার। ক্যাম্প মসজিদের ইমামকে কয়েকদিন আগে অপহরণ করা হয়। তিন দিন পর তাকে তার দাঁড়ি কেটে ফেরত দেয়া হয়েছে। আজ (শনিবার) সকালের দিকে সেনাবাহিনীর একটি দল এসে আমাদের দীর্ঘ সময় রোদে দাঁড় করিয়ে রাখে। আমাদের সাথে যাচ্ছে তাই ব্যবহার করে। আমরা আমাদের দেশে ফেরানোর ব্যবস্থার জন্য বার বার ইরাকে অবস্থিত বাংলাদেশ অ্যাম্বাসির সাথে যোগাযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাচ্ছি না। এ অবস্থায় আমাদের কী করা উচিত বুঝতে পারছি না। ভাই আমাদের জন্য কিছু করার থাকলে দেশে বসে করেন।

এদিকে ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আকাশে মার্কিন অস্ত্রবাহী মানবহীন বিমান (ড্রোন) টহল দিচ্ছে। পেন্টাগনের কর্মকর্তাদের বরাতে গত শুক্রবার এক সংবাদ মাধ্যমের প্রতিবেদনে জানানো হয়, দেশটিতে অবস্থানরত মার্কিন সামরিক উপদেষ্টাদের রক্ষায় এ ড্রোন মোতায়েন করা হয়েছে।ইরাকে সুন্নি বিদ্রোহী গোষ্ঠী আইএসআইএসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে দেশটির সরকারি বাহিনীকে সহায়তা দিতে ১৮০ জন মার্কিন সামরিক উপদেষ্টা সে দেশে অবস্থান করছেন। ইরাকের একটা বিশাল অংশ ইতোমধ্যে আইএসআইএস দখল করে নিয়েছে। জঙ্গিদের অগ্রযাত্রা প্রতিরোধে ইরাকি সেনাবাহিনী কার্যত ব্যর্থ।

পেন্টাগনের মুখপাত্র রিয়ার অ্যাডমিরাল জন কারবি বলেন, ইরাকের অনুরোধে দেশটির আকাশে মানবহীন বিমান উড়ছে। এর মধ্যে অস্ত্রবাহী ড্রোনও আছে।গত সপ্তাহে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা বলেছেন, ইরাকের প্রয়োজনে সে দেশে আইএসআইএস জঙ্গিদের বিরুদ্ধে সামরিক পদক্ষেপ নিতে তিনি প্রস্তুত। এর পরিপ্রেক্ষিতে ইরাকের সরকারি বাহিনীকে সহায়তায় ৩০০ সামরিক উপদেষ্টা পাঠানোর ঘোষণা দেন তিনি।

অপরদিকে সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়েছে, দ্য ইসলামিক স্টেট ইন ইরাক এন্ডসিরিয়া’ (আইএসআইএস) ও এর মিত্রদলগুলো ইরাকজুড়ে আগ্রাসী তৎপরতা শুরু করার পরথেকে এ পর্যন্ত ১ হাজারেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। জাতিসংঘই এ পরিসংখ্যান দিয়েছে। নিনেভে, দিয়ালা এবংসালাহআল-দিনপ্রদেশেঅন্তত৭৫৭মানুষনিহতএবংপ্রায়৬শ’ জনআহতহয়েছেবলে জানানজারিক।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ প্রবাস কল্যাণ মন্ত্রী ইতোমধ্যেই ঘোষণা দিয়ে বলেছেন, ইরাকে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের নিরাপদে দেশে ফেরার জন্য সকল প্রকারের সহায়তা দেয়া হচ্ছে। অথচ গতকাল টেলিফোনে আবুল কালাম আজাদের অসহায় কণ্ঠ হতবাক করেছে।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *