বাংলাদেশে একদলীয় শাসনের শুরু

স্টাফ রিপোর্টার: বিএনপিবিহীন নতুন জাতীয় সংসদের শপথ গ্রহণের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কার্যকর একদলীয় শাসন চালু করছেন। এবারের নির্বাচন নিয়ে কড়া সমালোচনা, এমনকি নিষেধাজ্ঞার হুমকিও তাকে এ পথ থেকে ফেরাতে পারবে বলে মনে হয় না। এর ফলে দু দশক ধরে বেগম খালেদা জিয়া ক্ষমতার যে স্বাদ ভোগ করেছেন এতে তিনি  ফাঁদে পড়ছেন এবং সেই সুবিধা হারাচ্ছেন।

বাংলাদেশ সরকারের মন্ত্রী হাসানুল হক ইনু বলেছেন, রাজনীতি থেকে খালেদা জিয়াকে বাদ দেয়া হবে কি-না তা নিয়েও সরকারি মহলে আলোচনা আছে। তিনি বলেন, তারা বলেছেন তাকে বাদ দেয়া হবে খুবই ঝুঁকিপূর্ণ। ইনু বলেন, আমার মতে তাকে নিয়ে বাংলাদেশ অনেক ঝুঁকিতে পড়বে। ওদিকে ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম বলেছেন, দৃশ্যত সরকারকে সমঝোতায় বাধ্য করাতে পারে একমাত্র সেনাবাহিনী। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেনাবাহিনীকে সন্তুষ্ট রাখতে পারলে তার কাজ চালিয়ে যেতে পারেন। অন্যদিকে শুধু বাস পোড়ানো ছাড়া কিছুই করতে পারবেন না খালেদা জিয়া। যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী পত্রিকা দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস এক প্রতিবেদনে এসব কথা বলেছে। এর লেখক এলেন ব্যারি। মাট্রিয়ার্কস ডুয়েল ফর পাওয়ার থ্রেটেনস টু টিলট বাংলাদেশ অফ ব্যালান্স শীর্ষক প্রতিবেদনে তিনি বাংলাদেশের বর্তমান রাজনীতি নিয়ে আলোচনা করেছেন। তিনি লিখেছেন, প্রধানমন্ত্রীর একজন ঘনিষ্ঠ উপদেষ্টা গওহর রিজভী তাকে বলেছেন, নতুন নির্বাচন হবে। তবে কোনো সময়সীমা সম্পর্কে তিনি জানাতে পারেন নি। তিনি আরও বলেছেন, বিএনপির অনুপস্থিতিতে যে শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছে তা পূরণে নতুন একটি বিরোধী জোট গড়ে উঠবে। এতে বিএনপির একাংশ বেরিয়ে এসে যোগ দেবে। তিনি বলেছেন, এতে যে বিঘ্ন সৃষ্টি হবে তাতে ছেলের হাতে ক্ষমতা দিয়ে যাওয়া অসম্ভব হবে খালেদা জিয়ার জন্য। তিনি আরও বলেন, দুটি জিনিস অবশ্যই ঘটবে। তার একটি হলো নির্বাচন হবেই এবং তাতে বিএনপি যোগ দেবেই। তবে তাতে খালেদা জিয়া থাকতেও পারেন, না-ও পারেন।
এলেন ব্যারি লিখেছেন, রাজধানী ঢাকার দুটি অভিজাত আবাসিক ভবনে দু নারী একে অন্যের দিকে তাকিয়ে আছেন কার আগে চোখের পলক পড়ে তা দেখতে। সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার মুখে কঠিন অভিব্যক্তি। মধ্যযুগীয় রানীদের মতো তিনি ক্রিম হোয়াইট রুমে অতিথিদের অভ্যর্থনা জানান। তাকে বেশ কিছুদিন গৃহবন্দি রাখা হয়। তার বাসভবনের বাইরে পুলিশ ও বালুভর্তি ৫টি ট্রাক দিয়ে তাকে অবরুদ্ধ রাখা হয়। কিন্তু দৃশ্যত তাতেও তিনি অবিচল। তিনি বলেছেন, অনেকবার আমাকে গৃহবন্দি করা হয়েছে। অনেক বার আমি জেলে ছিলাম।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *