প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন : নির্বাচনী প্রচারণা শুরু

আলমডাঙ্গা ও জীবননগরের ৫ ইউপি নির্বাচন : মোট ভোটার ৬১ হাজার ১৩৯জন

স্টাফ রিপোর্টার: চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার নাগদাহ ও আইলহাস এবং জীবননগর উপজেলার বাঁকা, হাসাদহ ও রায়পুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তাদের কার্যালয়ে এ প্রতীক বরাদ্দ করা হয়। প্রতীক পাবার পর প্রার্থীরা ভোটের জোর প্রচারণা শুরু করেছে।
আগামী ২৯ মার্চ বৃহস্পতিবার জেলার ৫টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে ৬১ হাজার ১৩৯ জন ভোটার ভোট প্রয়োগ করবেন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ৩০ হাজার ৬৫৮ জন এবং নারী ভোটার ৩০ হাজার ৪৭৮ জন। নির্বাচনে প্রার্থীদের আচরণবিধি দেখভাল করবেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।
আলমডাঙ্গা ও জীবননগর উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, জেলার পাচঁটি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বর্তমানে ৫টি চেয়ারম্যান পদে ২১ জন, ১৫টি সংরক্ষিত সদস্য পদে ৫২ জন এবং ৪৫টি সাধারণ সদস্য পদে ২০০ জন প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। আগামী ১৫ মার্চ বৃহস্পতিবার আলমডাঙ্গা পাইলট বহুমুখী বালিকা বিদ্যালয়ে ও ১৬ মার্চ শুক্রবার জীবননগর উপজেলা কৃষি অফিসের হলরুমে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের আচরণবিধি সংক্রান্ত মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২১ মার্চ বুধবার আলমডাঙ্গায় ও ২২ মার্চ বৃহস্পতিবার জীবননগরে প্রিজাইডিং অফিসার, সহকারি প্রিজাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসারদের প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হবে।
প্রার্থীরা হলেন, আলমডাঙ্গার নাগদাহ ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আবুল কালাম আজাদ (আওয়ামী লীগ-নৌকা), আবুল হোসেন (মোটর সাইকেল,আ’লীগ-বিদ্রোহী), মকলেছুর রহমান জোয়ার্দ্দার (বিএনপি-ধানের শীষ), স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান দারুস সালাম (আনারস, জামায়াত), আলমগীর হোসেন (ঘোড়া) ও জাহাঙ্গীর আলম (গোলাপফুল, জাকের পার্টি) প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এই ইউপিতে ৩টি সংরক্ষিত সদস্য পদে ১৩ জন এবং ৯টি সাধারণ সদস্য পদে ২৭ জন নির্বাচনে লড়ছেন।
আইলহাস ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে অ্যাড. আব্দুল মালেক (আওয়ামী লীগ-নৌকা), রকিবুল হাসান (আনারস, আ’লীগ-বিদ্রোহী), আব্দুল ওয়াহাব (বিএনপি-ধানের শীষ) এবং বর্তমান চেয়ারম্যান মিনাজ উদ্দীন বিশ্বাস (চশমা, বিএনপি-বিদ্রোহী) প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এই ইউপিতে ৩টি সংরক্ষিত সদস্য পদে ১০ জন এবং ৮টি সাধারণ সদস্য পদে ২৫ জন নির্বাচনে লড়ছেন। ৩নং ওয়ার্ডে ১ জন প্রার্থী মনেয়নয়নপ্রত্র প্রত্যাহার করায় আবু হানিফ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।
জীবননগরের বাঁকা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আব্দুল কাদের প্রধান (আওয়ামী লীগ-নৌকা), আবুল কাশেম মুন্সী (বিএনপি-ধানের শীষ) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী হাফিজুর রহমান (মোটর সাইকেল) প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এই ইউনিয়নে ৩টি সংরক্ষিত সদস্য পদে ৯ জন এবং ৯টি সাধারণ সদস্য পদে ৫২ জন নির্বাচনে লড়ছেন। নির্বাচনে বর্তমান চেয়ারম্যান বাবলুর রহমান নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন না।
হাসাদহ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে রবিউল ইসলাম (আওয়ামী লীগ-নৌকা), মো. সোহরাব বিশ্বাস (চশমা, আ.লীগ-বিদ্রোহী), কামাল উদ্দীন সিদ্দীকী (বিএনপি-ধানের শীষ) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান সিরাজুল হক (আনারস, জামায়াত) নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এই ইউপিতে ৩টি সংরক্ষিত সদস্য পদে ১৩ জন এবং ৯টি সাধারণ সদস্য পদে ৫৮ জন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।
রায়পুর উনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে বর্তমান চেয়ারম্যান তাহাজ্জত হোসেন (আওয়ামী লীগ-নৌকা), আব্দুর রশীদ শাহ (আনারস, আ.লীগ-বিদ্রোহী), মতিয়ার রহমান (বিএনপি-ধানের শীষ) ও স্বতন্ত্র মোহাম্মদ আলী (মোটর সাইকেল, জামায়াত) প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। এই ইউপিতে ৩টি সংরক্ষিত সদস্য পদে ৭ জন এবং ৯টি সাধারণ সদস্য পদে ৩৭ জন প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন।
আলমডাঙ্গা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও দুটি ইউপি নির্বাচনের রিটানিং কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবু আনছার এবং জীবননগর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও তিনটি ইউপির রিটানিং কর্মকর্তা মো. মোতাওয়াকিল রহমান প্রতীক বরাদ্দের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। নির্বাচন সুষ্ঠু ও সফল করে তুলতে সকলের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *