দু যুগ পর সেমিফাইনালে আর্জেন্টিনা

 

বেলজিয়ামের বিরুদ্ধে একমাত্র গোলেরব্যবধান গড়ে দিলো নাপোলি স্ট্রাইকার হিগুয়াইনও

স্টাফ রিপোর্টার: আর্জেন্টিনার দু যুগের অপেক্ষার অবসান হলো।গনসালো হিগুয়াইনের একমাত্র গোলে বেলজিয়ামকে হারিয়ে ব্রাজিল বিশ্বকাপেরসেমি-ফাইনালে উঠেছে লিওনেল মেসির দল।দিয়েগো ম্যারাডোনার নেতৃত্বে ১৯৯০ সালে শেষবার বিশ্বকাপের শেষ চারে উঠেছিলোআর্জেন্টিনা। এবার মেসির কাঁধে সওয়ার হয়ে একের পর এক বাঁধা পেরুচ্ছে ‘আলবিসেলেস্তে’রা। তবে এ টুর্নামেন্টে প্রথমবারের মতো মনে হয়েছে একটা দলহিসেবেই খেলছে তারা।ফুটবল জাদুকর লিওনেল মেসির ঝলক তো ছিলোই বেলজিয়ামের সাথেব্যবধান গড়ে দিয়েছেন নাপোলি স্ট্রাইকার হিগুয়াইনও। ৩৩তম মিনিটে চোট পেয়ে আনহেল দি মারিয়ামাঠ ছাড়লে দলের প্রয়োজনে মিডফিল্ডে নেমে আসেন নাপোলির এ স্ট্রাইকার।খুববেশি সুযোগ তৈরি করতে পারেনি বেলজিয়াম। আর্জেন্টিনার জমাট রক্ষণ ভাঙতে পারেননি এডেনহ্যাজার্ড, রোমেলু লুকাকুরা। অফসাইড ফাঁদে পড়ে অনেক প্রচেষ্টা নষ্ট করা মারুয়ানফেলাইনি, ড্রিস মের্টেনসরা আর্জেন্টিনার গোলরক্ষক সের্হিও রোমেরোকে তেমন কোনোপরীক্ষায় ফেলতে পারেননি।শনিবার ব্রাজিলিয়ার স্তাদিও নাসিওনালে তৃতীয় মিনিটেবল পেয়েই আর্জেন্টিনার প্রথম আক্রমণের সূচনা করেন মেসি।অষ্টম মিনিটেমাঝমাঠে বল পান মেসি। বল পায়ে আঠার মতো রেখে বেলজিয়ামের দু খেলোয়াড়কে এড়িয়ে আনহেলদি মারিয়াকে বল দেন তিনি।রিয়াল মাদ্রিদ উইঙ্গার বল বাড়িয়েছিলেন ডানেসাবালেতার দিকে। কিন্তু বল বেলজিয়াম ডিফেন্ডার ইয়ান ভার্টনেনের পায়ে লেগে যায়হিগুয়াইনের কাছে। প্রথম ছোঁয়াতেই বাঁ পোস্টে ডান পায়ের হাফভলি ফেরানোর কোনো সুযোগইছিলো না অন্য পোস্টে থাকা থিবো কোর্তোয়ার।২৬তম মিনিটে প্রথম সুযোগটি পায়বেলজিয়াম। কেভিন ডি ব্রুইন জোরালো শট কোনোমতে ঠেকান রোমেরো।দু মিনিট পরমাঝ মাঠ থেকে মেসির অসাধারণ এক পাস থেকে সুযোগ পান দি মারিয়া। ডি বক্সে ঢুকে শটনিলেও সাথে লেগে থাকা ভিনসেন্ট কম্পানি ঠেকিয়ে দেন।৩৯তম মিনিটে ডি বক্সেরঠিক বাইরে থেকে মেসির ফ্রি-কিক অল্পের জন্য লক্ষ্যে থাকেনি। তিন মিনিট পর সুযোগ আসেবেলজিয়ামের সামনেও। ভার্টনেনের ক্রস থেকে কেভিন মিরালেস হেড লক্ষ্যেথাকেনি।৫১তম মিনিটে বাঁ প্রান্ত দিয়ে হিগুয়াইনের শট বেলজিয়ামের একখেলোয়াড়ের গায়ে লেগে বার ঘেঁষে বাইরে চলে যায়। পর মুহূর্তে একই প্রান্ত দিয়েএসেকিয়েল লাভেস্সির ক্রস ডি বক্সে কোনো সতীর্থকে খুঁজে না পেলে আর্জেন্টিনার একটিচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যায়।চার মিনিট পর আর্জেন্টিনাকে হতাশ করে ক্রসবার।অনেকটা দৌঁড়ে কম্পানির দু পায়ের ফাঁক দিয়ে বল গলিয়ে বেলজিয়ামের ডি বক্সে ঢুকে পড়েনহিগুয়াইন। সামনে ছিলেন কেবল কোর্তোয়া। তাকে পরাস্ত করতে পারলেও বল ক্রসবারে লেগেবাইরে চলে গেলে হতাশায় পুড়তে হয় নাপোলি স্ট্রাইকারকে।৬১তম মিনিটেভার্টনেনের ক্রসে ফেলাইনির হেড বার উঁচিয়ে গেলে বেলজিয়ামের একটি সুযোগ নষ্টহয়।চার মিনিট পর আর্জেন্টিনার ত্রাতা রোমেরো। একটি ক্রস বাঁচাতে গিয়ে নিজেরজালেই জড়িয়ে দিচ্ছিলেন এসেকিয়েল গারায়। বাঁ দিকের বার ঘেঁষে আসা বলটি ঠেকান মোনাকোরএই গোলরক্ষক।৮৩তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ানোর ভালো একটি সুযোগ আসে দু বারেরচ্যাম্পিয়নদের সামনে। পাবলো সাবালেতার ক্রসে অল্পের জন্য মাথা ছুঁয়াতে পারেননিরদ্রিগো পালাসিও। দুই মিনিট পর ডি ব্রুইনের শট একজনের পায়ে লেগে অল্পের জন্য বাইরেচলে গেলে বেঁচে যায় আর্জেন্টিনা।যোগ করা সময়ে দারুণ একটি সুযোগ হাতছাড়াকরেন মেসি। ক্লাব ফুটবলে শেষ সাতবার ঠেকিয়ে রাখা কোর্তোয়াকে পরাস্ত করার সুযোগএসেছিল চারবারের বর্ষ সেরা ফুটবলারের সামনে। কিন্তু ডি বক্সে আগুয়ান গোলরক্ষককেপরাস্ত করতে পারেননি তিনি।পরের মিনিটে বেলজিয়ামের দারুণ একটি আক্রমণকোনোমতে ঠেকিয়ে আর্জেন্টিনার ত্রাতা গারায়।আগের সব ম্যাচে বদলি খেলোয়াড়দেরশেষ দিকের গোলে জয় পেয়েছিলো এবারের আসরের ‘কালো ঘোড়া’ বেলজিয়াম। আর্জেন্টিনারবিপক্ষে এই ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে পারেনি তারা। তাই ২৮ বছর পর সেমি-ফাইনালে পৌঁছানোহলো তাদের।

Leave a comment

Your email address will not be published.