দাম কমবে বাড়বে

দাম কমবে

স্টাফ রিপোর্টার: আজ থেকে শুরু হতে যাওয়া নতুন অর্থবছরের জন্য বাজেট প্রস্তাবে বেশির ভাগ পণ্যের সম্পূরক শুল্ক বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছিলো। ফলে ওই সব পণ্যের দাম বাড়ার কথা ছিলো। তবে নতুন ভ্যাট আইন স্থগিত হয়ে যাওয়ায় আগের মতোই বিভিন্ন পণ্যের ওপর সম্পূরক শুল্ক বহাল রেখে সংসদে পাস হওয়া অর্থবিলের গেজেট জারি করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)। তাতে প্রস্তাবিত বাজেটে যেসব পণ্যের দাম বাড়ার কথা ছিল, তা আর হচ্ছে না। একইভাবে যেসব পণ্যের দাম কমার কথা ছিলো, তাও আর কার্যকর হবে না। এছাড়া নতুন ভ্যাট আইনের আওতায় প্রস্তাবিত বাজেটে যে এক হাজার ৪৩টি পণ্য ও সেবাকে ভ্যাট অব্যাহতি সুবিধা দেয়ার কথা বলা হয়েছে, তাও হচ্ছে না। ফলে এসব পণ্য ও সেবার মধ্যে যেগুলোর ওপর এত দিন ভ্যাট ছিল, তাই বজায় থাকবে। বিদায়ী অর্থবছরে বাড়িঘরে রাখা ছোট ভাস্কর্য ও গৃহসজ্জায় ব্যবহৃত দ্রব্যের ওপর ৩০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ছিলো, যা নতুন অর্থবছরে কমিয়ে ২০ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে পণ্যটির দাম কমতে পারে। রেফ্রিজারেটর, ফ্রিজার এবং সমজাতীয় পণ্য, হিটপাম্প ও রেফ্রিজারেটিং ফার্নিচার আমদানির ওপর বিদায়ী অর্থবছরের ৩০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক কমিয়ে নতুন অর্থবছরে ২০ শতাংশ আরোপ করা হয়েছে। এতে এসব পণ্যের দাম কমতে পারে। আগে ১৫০০ সিসি পর্যন্ত গাড়ির ওপর ৪৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ছিলো। আর ১৫০১ সিসি থেকে ২০০০ সিসি পর্যন্ত গাড়ির (মাইক্রোবাস বাদে) ওপর ১০০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক দিতে হতো। নতুন অর্থবছর ১৬০০ সিসি পর্যন্ত গাড়ির ওপর সম্পূরক শুল্ক ৪৫ শতাংশ ধরা হয়েছে। ফলে ১৫০১ থেকে ১৬০০ সিসির গাড়ির দাম কমবে। এতোদিন ২০০১ সিসি থেকে ২৭৫০ সিসি পর্যন্ত গাড়ির ওপর ২০০ শতাংশ এবং ২৭৫১ থেকে ৪০০০ সিসি পর্যন্ত গাড়ির ওপর ৩৫০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ছিল। নতুন অর্থবছরে ২০০১ থেকে ৩০০০ সিসি পর্যন্ত ২০০ শতাংশ নির্ধারণ করা হয়েছে। ফলে ২৭৫১ সিসি থেকে ৩০০০ সিসি পর্যন্ত গাড়ির দাম কমতে পারে। একইভাবে সম্পূরক শুল্ক আরোপ হওয়ায় ১৫০১ সিসি থেকে ১৬০০ সিসি এবং ২৭৫১ সিসি থেকে ৩০০০ সিসি পর্যন্ত চার দরজাবিশিষ্ট ডাবল কেবিন পিকআপের দামও কমতে পারে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ২০০০ সিসি পর্যন্ত বিযুক্ত গাড়ি আমদানির ওপর ৩০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ছিল। নতুন অর্থবছরে ১৬০০ সিসি পর্যন্ত ২০ শতাংশ আরোপ করা হয়েছে। ফলে ১৬০০ সিসি পর্যন্ত বিযুক্ত গাড়ির দাম কমতে পারে। আগে হাইব্রিড গাড়ির জন্য আলাদা সম্পূরক শুল্ক ছিলো না। অন্য গাড়ির মতোই সম্পূরক শুল্ক ছিল হাইব্রিড গাড়ির ওপর। এবার নন-হাইব্রিড গাড়ির চেয়ে হাইব্রিডে সম্পূরক শুল্ক অনেক কমানো হয়েছে। যেমন ১৬০০ সিসি পর্যন্ত ২০ শতাংশ, ১৬০১ সিসি থেকে ২০০০ সিসি পর্যন্ত ৪৫ শতাংশ, ২০০১ সিসি থেকে ৩০০০ পর্যন্ত ৬০ শতাংশ, ৩০০১ থেকে ৪০০০ সিসি পর্যন্ত ১০০ শতাংশ এবং ৪০০০ সিসির ওপরে হলে ৩০০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা হয়েছে, যা সাধারণ গাড়ির চেয়ে

 

দাম বাড়বে

স্টাফ রিপোর্টার: ইলেকট্রনিক নিকোটিনের রিফিলের ওপর বিদায়ী অর্থবছরে সম্পূরক শুল্ক ছিল না। নতুন অর্থবছরে এর ওপর ১০০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক বসানো হয়েছে। ফলে এর দাম বেড়ে দ্বিগুণ হতে পারে। তসবিহ, মালাসহ বিভিন্ন পণ্য উৎপাদনে ব্যবহৃত কাঠের পুঁতির ওপর আগে সম্পূরক শুল্ক ছিল না। ২০১৭-১৮ অর্থবছরে নতুন করে ২০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা হয়েছে, ফলে এগুলোর দাম বাড়তে পারে। দরজা-জানালায় ব্যবহৃত ইজ-ওয়ার্কড গ্লাস বা কাচের ওপর এবারই প্রথম ২০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক আরোপ করা হয়েছে। ফলে এর দাম বাড়তে পারে। কাঁচের তৈরি ইমিটেশন, পাথর আকৃতি বা ছোট কাচের ওপর গেল অর্থবছরে ১০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ছিল, যা আগামী অর্থবছর বাড়িয়ে ২০ শতাংশ করা হয়েছে। ফলে এর দাম বাড়তে পারে। ই-সিগারেট বা ইলেকট্রনিক নিকোটিন ডেলিভারি সিস্টেমের ওপর আগে সম্পূরক শুল্ক ছিল না, এবার প্রথমবারের মতো ১০০ শতাংশ বসানো হয়েছে। ফলে এর দাম বাড়তে পারে। ২০০০ সিসি পর্যন্ত বিযুক্ত গাড়ি আমদানির ওপর এতো দিন ৩০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ছিল, নতুন অর্থবছরে ১৬০১ থেকে ২০০০ সিসি পর্যন্ত তা বাড়িয়ে ৪৫ শতাংশ ধরা হয়েছে। ফলে এসব গাড়ির দাম বাড়তে পারে। ২০০০ সিসির ওপরে বিযুক্ত গাড়ি আমদানির ওপর আগে ৬০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ছিল। নতুন অর্থবছরে ২০০১ থেকে ৩০০০ সিসি পর্যন্ত ১০০ শতাংশ, ৩০০১ সিসি থেকে ৪০০০ সিসি পর্যন্ত ৩০০ শতাংশ এবং ৪০০০ সিসির বেশি হলে ৩৫০ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক দিতে হবে। ফলে এসব গাড়ির দাম বাড়বে।

 

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *