দামুড়হুদার গোচিয়ারপাড়ার শাহানারা হত্যামামলা : আসাদুল দু দিনের পুলিশি রিমান্ডে : তথ্য উদঘাটন

দর্শনা অফিস/কার্পাসডাঙ্গা প্রতিনিধি: দামুড়হুদার গোচিয়ারপাড়ার শাহানারা হত্যামামলার আসামি আসাদুলকে দু দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পুলিশ। চলছে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদ। মিলতে শুরু করেছে হত্যা রহস্য? আসাদুলের দেয়া তথ্য পুলিশ যাচাই-বাচাই করছে। গত ২৬ সেপ্টেম্বর বৃহস্পতিবার রাতে দামুড়হুদা উপজেলার নতিপোতা ইউনিয়নের জগন্নাথপুর গোচিয়ারপাড়ার আ. আজিজ খানের স্বামী পরিত্যক্তা মেয়ে ৪ সন্তানের জননী শাহানারাকে তার বাড়ির পেছনের বাশবাগানে ধর্ষণ শেষে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। শুক্রবার ভোরে বাশবাগান থেকে শাহানারার লাশ দেখে গ্রামবাসী পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে শাহানার লাশ উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয় ময়নাতদন্তের জন্য। এ ঘটনায় শাহানারার ভাই আজাদ থানায় হত্যামামলা দায়ের করেন।

এদিকে শাহানারাকে ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগের আঙুল ওঠে একই গ্রামের বাজারপাড়ার প্রভাবশালী নজির উদ্দিনের ছেলে আসাদুল ইসলামের দিকে। ঘটনার পর থেকে আসাদুল গাঁ ঢাকা দিলে সন্দেহ আরো ঘনীভূত হয়। এ হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত সন্দেহে ঘটনার তিনদিনের মাথায় রোববার রাতে থানার অফিসার ইনচার্জ আহসান হাবীবের নেতৃত্বে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই ইমদাদুল হক গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে নিহত শাহানারার পরকীয়া প্রেমিক প্রভাবশালী বহুল আলোচিত আসাদুলকে গ্রেফতার করেন। আসাদুলকে গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে সে প্রাথমিকভাবে হত্যা ঘটনার বেশ কিছু তথ্য দেয় পুলিশকে। আসাদুলকে সোমবার আদালতে সোপর্দ করে ৭ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন এসআই এমদাদুল হক। বিজ্ঞ আদালত আসাদুলকে পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য দু দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। গত পরশু মঙ্গলবার মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এমদাদুল হক দু দিনের পুলিশি রিমান্ডে থানায় এনে আসাদুলকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। চলছে জিজ্ঞাসাবাদ।

এসআই এমদাদুল হক জানিয়েছেন, আসাদুলকে জিজ্ঞাসাবাদে বেশ কিছু তথ্য উৎঘাটন হয়েছে। যা মামলার তদন্তের স্বার্থে গোপন রাখা হচ্ছে। থানার অফিসার ইনচার্জ আহাসান হাবীব জানিয়েছেন, আসাদুলের দেয়া তথ্য যাচাই-বাচাই করা হবে। তথ্যের সত্যতা মিললে হত্যা রহস্য উৎঘাটনে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আজ বৃহস্পতিবার আসাদুলকে আদালতে সোপর্দ করা হতে পারে। তবে তার জবানবন্দি রেকর্ড করা হচ্ছে কি-না তা জানা যায়নি।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *