তিন মাসের শিশু শারমিনকে বাঁচানে গেলো না : অক্সিজেন না পেয়ে মৃত্যু?

 

স্টাফ রিপোর্টার: তিন মাসের শিশু শারমিনকে শেষ পর্যন্ত সুস্থ করে তোলা যায়নি। গতরাত ১০টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। অক্সিজেন সিলিন্ডারের জন্য ছোটাছুটি দৌঁড়াদৌঁড়ি করেও তা সময়মতো দিতে না পারায় শিশু শারমীন মারা যায় বলে অভিযোগ।

জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা জেলা সদরের দিগড়ি জোয়ার্দ্দারপাড়ার সেকেন্দার আলীর শিশুকন্যা কিছুদিন আগে নিউমোনিয়ায় আক্রন্ত হয়। সুস্থ হয়ে ওঠে। আবারও শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। তাকে গত রোববার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এক দফা তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন চিকিৎসক। পরে অবশ্য হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন রাখা হয়। অক্সিজেন দিয়েই রাখা ছিলো। গতরাত সাড়ে ৮টার দিকে অক্সিজেন চলার পরও শ্বাসকস্ট তীব্রতর হয়ে উঠছে দেখে পাশে থাকা শারমিনের দাদি তা খুলে দেন। সেবিকা দেখে দ্রুত অক্সিজেনের নল পুনঃস্থাপন করেন। রোগীর লোকজন সিলিন্ডার দেখে অক্সিজেন নেই বলে জানালে সেবিকা আলো স্টোররুমের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিকে কল করেন। স্টোররুমের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তি দ্রুত আসতে অপরাগতা প্রকাশ করে চাবি পাঠিয়ে দেন। অক্সিজেন সিলিন্ডার বের করে রোগীর কাছে নিতে দেরী হয়ে যায় অনেক। ততোক্ষণে শিশু রোগী শারমিন মারা যায়। রোগীর লোকজন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, অক্সিজেন হাসপাতালে থাকতেও রোগীকে দিতে দেরি হওয়ার কারণে মারা গেলো। সেবিকা স্টাফ নার্স আলো অবশ্য এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি।

Leave a comment

Your email address will not be published.