তল্লাশিসহ গৃহকর্তাকে মারপিট : জনরোষের মুখে বিজিবির দু রাউন্ড গুলিবর্ষণ : বেধড়ক লাঠিচার্জ

দামুড়হুদার ভারত সীমান্তবর্তী চাকুলিয়ার একটি বাড়িতে অভিযান : ফেনসিডিল না পেয়ে উগ্র আচরণের ক্ষুব্ধ জনতার প্রতিবাদ?

 

দামুড়হুদা প্রতিনিধি: দামুড়হুদার সীমান্তবর্তী চাকুলিয়া গ্রামে বিজিবি সদস্যরা এক গরুব্যবসায়ীর বাড়ি তল্লাশি শেষে বাড়িমালিক নেপালকে (২৮) বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেছেন। স্থানীয়রা এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, এ সময় গ্রামবাসী প্রতিরোধ গড়ে তোলে। উত্তেজিত গ্রামবাসী বিজিবি সদস্যদের ঘিরে ফেললে তারা দু রাউন্ড গুলি চালায়। এ সময় ৫ জনের মধ্যে ৩ বিজিবি সদস্য ক্যাম্পে ফিরতে পারলেও উত্তেজিত গ্রামবাসীর হাতে দু বিজিবি সদস্য আটক হয়। গ্রামবাসী তাদের ঘরে বন্দি করে রাখে। স্থানীয়রা আহত গরুব্যবসায়ীকে উদ্ধার করে দামুড়হুদা উপজেলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পরে বিজিবি সদস্যরা গ্রামে চড়াও হয়। তারা গ্রামবাসীকে বেধড়ক মারপিট করতে থাকে। মহিলারা বাধা দিতে গেলে বিজিবি সদস্যরা তাদের কেউ লাঞ্ছিত করেন। এ সময় গ্রামের অধিকাংশ পুরুষ গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে রক্ষা পায়। গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে ঘটনার সূত্রপাত। রাত সাড়ে ১২টার দিকে অতিরিক্ত বিজিবি সদস্য এসে আটককৃত দু বিজিবি সদস্যকে ঘরের দরজার তালা ভেঙে উদ্ধার করে নিয়ে যান। পরে পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হয়।

স্থানীয়রা জানান, গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে দামুড়হুদার ঠাকুরপুর বিজিবি ক্যাম্পের কমান্ডার শহিদ মিয়া সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে চাকুলিয়া গ্রামের ছালারদ্দিনের ছেলে গরুব্যবসায়ী নেপালের বাড়িতে অভিযান চালান। ফেনসিডিল উদ্ধারের কথা বলে বাড়িতে প্রবেশ করে এবং পুরো বাড়ি তল্লাশি চালানো হয়। তল্লাশি শেষে ফেনসিডিল না পেয়ে বিজিবি সদস্যরা বাড়িমালিক নেপালকে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করেন। এ ঘটনায় গ্রামবাসীরা উত্তেজিত হয়ে ওঠে। গ্রামের সাধারণ মানুষ সংঘটিত হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তোলে। বিজিবির ৫ সদস্যকে ঘিরে ফেলে। এ সময় বিজিবি সদস্যরা দু রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করেন। বিজিবির ৩ সদস্য সেখান থেকে সরে যেতে সক্ষম হলেও কমান্ডার শহিদ ও হাবিলদার ওয়াজেলকে উত্তেজিত গ্রামবাসী ধরে রাখে।

ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে স্থানীয়রা আরো জানায়, আমরা আহত গরুব্যবসায়ী নেপালকে চিকিৎসার জন্য দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পরপরই রাত আনুমানিক ৯টার দিকে বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ প্রায় ৫০/৬০ জন বিজিবি সদস্য গ্রামে ঢোকে। পুরো গ্রাম ঘিরে ফেলে। গ্রামবাসীর অভিযোগ, গ্রামবাসীর ওপর চড়াও হয়ে বেধড়ক মারপিট শুরু করেন বিজিবি সদস্যরা। সামনে যাকে পেয়েছে তাকেই বেধড়ক পিটিয়ে আহত করেন বিজিবি সদস্যরা। গ্রামবাসী রক্ষা পেতে গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যায়। এর মধ্যে কেউ কেউ ভারতে পালিয়ে গিয়ে রক্ষা পায় বলে স্থানীয়রা জানায়। ফলে পুরোগ্রাম পুরুষশূন্য হয়ে পড়ে। পরে রাত ১২টার দিকে বিজিবি সদস্যরা নেপালের বাড়ি থেকে ফেনসিডিল উদ্ধার হয়েছে বলে জানালে গ্রামের অনেকেই বলেন, নেপালের বাড়িতে নয়, অন্য স্থান থেকে তা এনে উদ্ধার দেখানো হচ্ছে। নেপালকে আটক করতে বিজিবি সদস্যরা হাসপাতালে যাচ্ছেন এমন খবর পেয়ে স্থানীয়রা নেপালকে রাতেই অন্যত্র সরিয়ে নেয়। এ ঘটনায় কেউ আটক হয়েছে কি-না তা নিশ্চিত করে জানা সম্ভব হয়নি। এ ঘটনার জন্য গ্রামের মুনছুরের ছেলে বিজিবির লাইনম্যান মনিকে দায়ী করেন স্থানীয়রা। বিজিবির এ হামলার ঘটনাটি খতিয়ে দেখে দোষীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বিজিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাসহ চুয়াডাঙ্গা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজগার টগরের সদয় দৃষ্টি আর্কষণ করেছে ভুক্তভোগী এলাকাবাসী।

Leave a comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *